• আজ মঙ্গলবার, ১২ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ২৭ জুলাই, ২০২১ ৷

কাদের মির্জাকে গ্রেফতার দাবিতে ৪৮ ঘণ্টার হরতালের ডাক


❏ শনিবার, জুন ১২, ২০২১ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর, নোয়াখালী- নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল এবং সড়ক অবরোধ করেছেন তার কর্মী ও অনুসারীরা। একই সঙ্গে এ ঘটনায় ৪৮ ঘণ্টার হরতালের ডাক দিয়েছে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ।

বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার অনুসারীদের নেতৃত্বে বাদলের ওপর হামলার অভিযোগ এনে শনিবার (১২ জুন) দুপুরে হরতালের ডাক দেওয়া হয়।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে উপজেলার আট ইউনিয়নের নেতাকর্মীরা কাদের মির্জাকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ মিছিল এবং সড়ক অবরোধ করেন। এ সময় বসুরহাট- বাংলাবাজার-চাপরাশিরহাটের প্রধান সড়ক এবং উপজেলার আট ইউনিয়নের সড়কগুলোর যোগাযোগ বসুরহাট থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেন বাদলের অনুসারীরা।

পরে দুপুরে ফেসবুক লাইভে এসে ৪৮ ঘণ্টার হরতালের ডাক দেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের মুখপাত্র মাহবুবুর রশীদ মঞ্জু।

লাইভে তিনি বলেন, আমাদের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল ও সাবেক ছাত্রনেতা আলালের ওপর হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এর আগে অনেক নেতাকর্মী আহত হয়েছে। সব নেতাকর্মী রাস্তায় নেমে আসুন। কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এখন থেকে ৪৮ ঘণ্টার হরতালের ডাক দেওয়া হলো।

তিনি আরও বলেন, ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে আবদুল কাদের মির্জাকে গ্রেফতার করতে হবে। তানাহলে আমরা রাস্তা থেকে সরে যাব না।। প্রয়োজনে আমাদের মৃত্যু হবে, তাও আমরা আর পিছু হটব না।

লাইভে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের মুখপাত্র মাহবুবুর রশীদ মঞ্জুর পাশে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খান ও সাবেক ছাত্রনেতা ফখরুল ইসলাম রাহাতকে বসে থাকতে দেখা যায়।

এর আগে সকাল সাড়ে ৮টায় বসুরহাট বাজারের প্রধান সড়কের ইসলামী ব্যাংকের সামনে মিজানুর রহমান বাদলের (৫০) ওপর হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনার পর বসুরহাটে আবারও উত্তেজনাসহ থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। বাজারের ব্যবসায়ী ও ক্রেতা-বিক্রেতারা আতঙ্কে রয়েছেন। যেকোনো মুহূর্তে বড় ধরনের সংঘর্ষের আশঙ্কাও করছেন তারা।

তবে এই হামলার সাথে নিজের এবং তার অনুসারীদের জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন কাদের মির্জা। বলেন, ‘আমি সকালে বসুরহাট বাজারের সার্বিক পরিস্থিতি দেখতে যাই। এ সময় আমার সঙ্গে বাজারের ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষজন ছিল। পরিদর্শন শেষে আমি যথারীতি পৌরভবনে চলে আসি। কে বা কারা বাদলের ওপর হামলা করেছে, না কি এটা সাজানো নাটক তার কিছুই জানিনা।’

কোম্পানীগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে। তদন্তের পর বস্তারিত জানান যাবে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন