• আজ মঙ্গলবার, ১৯ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ৩ আগস্ট, ২০২১ ৷

মির্জাপুরে বসতবাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ; দেড় মাসেও ‘ব্যবস্থা নেয়নি’ পুলিশ

mirzapur 5
❏ রবিবার, জুন ২০, ২০২১ ঢাকা

মো. সানোয়ার হোসেন, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি- ভাড়াটিয়া লোকদিয়ে ঘরবাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত ১০ মে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার জামুর্কী ইউনিয়নের গুনটিয়া গ্রামে বসতবাড়ি ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। ঘটনার পরদিন ভুক্তভোগী সুরভী সালমা বাদী হয়ে মির্জাপুর থানায় ৩ জনকে বিবাদী করে অভিযোগ দায়ের করেছেন। তবে অভিযোগের ১ মাস ৮ দিনেও আইনি ব্যবস্থা নেয়নি মির্জাপুর থানা পুলিশ।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন যাবৎ ঘাটাইল উপজেলার বেলদহ গ্রামের মৃত আমেনা বেগমের ছেলে (সুরভী সালমার ভাগিনা) আতিকুর রহমানের সাথে জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। বিরোধের জেরে ভাগিনা আতিকুর পরিকল্পিতভাবে গত ১০ মে ঘরবাড়ি বেদখল করার উদ্দেশে বাড়িতে থাকা ভাড়াটিয়াদের হুমকি দিয়ে বাড়ি থেকে জিনিসপত্রসহ বের করে দেয় এবং ঘর ভাঙচুর করে।

ঘর ভাঙচুরের খবর পেয়ে সুরভী সালমা ও তার স্বামী আব্দুস সালাম ভূইয়া ওই স্থানে গেলে বিবাদীরা গুম ও হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়। এ ঘটনার পরদিন সুরভী সালমা থানায় অভিযোগ করেন।

এ ঘটনার সুষ্ঠ বিচারের জন্য মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও বিচার পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ সুরভী সালমার। তিনি বলেন, অভিযোগ দায়েরের পর সরেজমিনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা পরিদর্শন করেন কিন্তু ঘর ভাঙচুরের ১ মাস ৮ দিন পেরিয়ে গেলেও কোনো প্রকারের আইনি ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ।

জানতে চাইলে অভিযুক্ত আতিকুর রহমান বলেন, গত ২৬ মার্চ জায়গা-জমির ব্যাপার নিয়ে স্থানীয় মেম্বার ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে বসা হয়েছিল। জায়গাটি পরিমাপ করে আমাকে দক্ষিণাংশের জায়গা বুঝিয়ে দেয়া হয়। কিন্তু ঘরটি সরিয়ে দেয়ার কথা ছিল সেটি সরিয়ে না দেয়ায় আমি নিজে ঘরটি ভেঙে দেই।

জামুর্কী ইউনিয়ন পরিষদের ৪ নং ওয়ার্ড মেম্বার মো. সেলিম আহম্মেদের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, গত ২৬ মার্চ বিষয়টি নিয়ে বসা হয়েছিল। সেদিন সম্পূর্ণ জায়গা পরিমাপ করে তাদের জায়গা বুঝিয়ে দেয়া হয়।

তাদের ঘর সরিয়ে ফেলার কোনো নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল কি না জানতে চাইলে বলেন, এ ধরণের নির্দেশনা দেয়ার কোনো সুযোগ নেই, তবে তিনি ঘর ভাঙচুরের ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেন এবং যারা ঘরটি ভেঙেছেন তারা অন্যায় করেছেন বলেও মন্তব্য করেন।

এ বিষয়ে মির্জাপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. রুবেল হোসেন জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। সুরভী সালমার ভাই এই ঘটনাটি মিমাংসা করে দিবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন।

ঘর ভাঙচুরের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কে বা কারা ঘরটি ভেঙেছে বিষয়টি তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন