• আজ মঙ্গলবার, ১৯ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ৩ আগস্ট, ২০২১ ৷

ব্যবসায়ীর হাত-পা বেঁধে মুখে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করেন তারা

atok
❏ সোমবার, জুন ২১, ২০২১ ময়মনসিংহ

কামরুজ্জামান মিন্টু, স্টাফ রিপোর্টার- ময়মনসিংহের নান্দাইলে হাত-পা বাঁধা ও মুখে বালিশ চাপা অবস্থায় জাহিদ মিয়া তালুকদার নামে এক ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্ধারের পর চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

তারা হলেন- হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার মুরাদপুর গ্রামের মো. আরাফাত উল্লাহর ছেলে নাঈম ইসলাম (১৯), ঢাকার কোটবাড়ি এলাকার ইয়াকুব আলীর ছেলে হোসেন আলী(২১), ময়মনসিংহের নারায়নপুর গ্রামের সালামতের ছেলে রাসেল মিয়া (১৯) ও একই এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে সুমন মিয়া (১৯)।

রোববার (২০ জুন) রাতে সময়ের কন্ঠস্বরকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ওসি) শাহ কামাল আকন্দ।

তিনি বলেন, শুক্রবার বিকেলে উপজেলার গাংগাইল ইউনিয়নের অরণ্যপাশা গ্রামের ভাড়া বাসা থেকে জাহিদের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় রাতে নিহতের বড় ভাই মো. আসাদ মিয়া তালুকদার বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামি করে মামলা করেন। মামলার পরদিন (শনিবার) ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে
ঢাকা মেট্টোপলিটন এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করে।

ওসি বলেন, গ্রেপ্তারের পর নাঈম ইসলাম জানান, গত প্রায় ছয় মাস ধরে তারা আটজন হকার ও একজন মহাজন মিলে নান্দাইল উপজেলার অরণ্যপাশা গ্রামের চৌরাস্তা এলাকার ভাড়া বাসায় থেকে কাঠের তৈরি বিভিন্ন তৈজসপত্রের ব্যবসা করে আসছিল। এ অবস্থায় মহাজনকে প্রতিদিন তিন থেকে চার হাজার টাকা আমদানি দিত। এর মধ্যে একদিনের প্রায় তিন হাজার টাকা তিনি মহাজনকে দেননি।

এ নিয়ে প্রত্যেকদিন তাগাদা করেন মহাজন জাহিদ মিয়া তালুকদার। এক পর্যায়ে নাঈম ঢাকায় চলে যায়। সেখানে পুরো ঘটনাটি তার বন্ধুদের জানালে বন্ধুরা সিদ্ধান্ত নেয় নান্দাইলে গিয়ে মহাজন জাহিদকে হত্যা করবে এবং তার কাছে থাকা টাকা ও মোবাইল নিয়ে আসবে।

এ কথায় রাজি হয়ে নাঈম গত বৃহস্পতিবার রাতে নান্দাইলে এসে মহাজনের কক্ষে প্রবেশ করে। পরে খেয়ে সকলেই বিছানায় গেলে মহাজন জাহিদ ঘুমিয়ে পড়েন। তখন চারজনে মিলে তাকে হাত-পা বেঁধে বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরদিন শুক্রবার খুব ভোরে তারা ঢাকার উদ্যেশ্যে রওনা দেয়। সঙ্গে নিয়ে যায় মহাজনের দুটি মোবাইল ও নগদ এক হাজার টাকা।

শাহ কামাল আকন্দ আরও বলেন, আজ রবিবার দুপুরে তাদেরকে আদালতে হাজির করলে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে সবাই। পরে তাদেরকে কারাগারে পাঠানো হয়।

নিহত জাহিদ হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার গানপুর গ্রামের মাহতাব উদ্দিনের ছেলে। সে উপজেলার গাংগাইল ইউনিয়নের অরণ্যপাশা গ্রামের হাবিবুর রহমানের বাড়ি ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করতো।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন