🕓 সংবাদ শিরোনাম

রাজশাহী মেডিকেলের করোনা ইউনিটে আরও ১৭ জনের মৃত্যুশাহজাদপুরে একটি সেতুর অভাবে ঘুরে যেতে হয় ১০ কিলোমিটারস্কুল কলেজে ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়াভাই’ দেখাতে নির্দেশচাঁদাবাজির মামলায় গ্রেপ্তার ঢাবি ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কারসরকারি গুদামে খাদ্যশস্য মজুদ আছে ১৬.৬৯ লাখ মেট্রিক টনসেচের অভাবে ত্রিশালে আমন চারা রোপণে দুশ্চিন্তায় কৃষকরাবিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবনে ২৭৬ টি রয়েল বেঙ্গল টাইগারের হদিস নেই!শেরপুরে ব্রক্ষপুত্র নদীর ভাঙ্গন, বিলীন হচ্ছে ফসলি জমিব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত মাকে বাঁচাতে ছেলে ইনজেকশন খুঁজে হয়রান!ফরিদপুরে গায়ে পচনধরা রোগীকে বাঁশ ঝাড়ে ফেলে দিলো স্বজনরা, উদ্ধারে পুলিশ

  • আজ বৃহস্পতিবার, ১৪ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ২৯ জুলাই, ২০২১ ৷

বাউফলে কেন্দ্র দখলের অভিযোগ, ভোট বর্জন

vote
❏ সোমবার, জুন ২১, ২০২১ বরিশাল

কৃষ্ণ কর্মকার, বাউফল প্রতিনিধি- পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলায় অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ভোট বর্জন, কেন্দ্র দখল ও সহিংস ঘটনার মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে। কয়েকটি ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের কর্মীরা কেন্দ্র দখল করে ভোটারদের প্রকাশ্যে ভোট দিতে বাধ্য করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এর প্রতিবাদে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীরা ভোট বর্জন করেন।

উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার মধ্যে প্রথম ধাপে কাছিপাড়া, কালিশুরী, ধুলিয়া, কেশবপুর, কনকদিয়া, বগা, কালাইয়া, আদাবাড়িয়া ও চন্দ্রদদ্বীপসহ নয়টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এরমধ্যে কালাইয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী নৌকা প্রতীকের এসএম ফয়সাল আহম্মেদ ও কালিশুরী ইউনিয়নের নৌকা প্রতীকের নেছার উদ্দিন জামাল বিনা প্রতিদন্ধীতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, কেশবপুর ইউনিয়নের কেশবপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সকাল সারে ৮টার দিকে সতন্ত্র প্রার্থী চশমা প্রতীকের মহিউদ্দিন লাভলুর দুই কর্মী রাসমোহন দে (৩৫) ও রাব্বিকে (৪০) নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সালেহ উদ্দিন পিকুর কর্মীরা প্রকাশ্যে কুপিয়ে জখম করে মাঠে ফেলে রাখে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ সময় প্রায় দুই ঘন্টা ভোট গ্রহন স্থগিত করে রাখে প্রিসাইটিং কর্মকর্তা উপজেলা হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা মো. রিয়াজুল হক। চশমা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মহিউদ্দিন লাভলু বলেন, নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সালেহ উদ্দিন পিকুর কর্মীদের দৌরাত্মে তার কর্মীরা প্রাণের ভয়ে কেন্দ্র থেকে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছে। তাই তিনি ভোট বর্জন করেছেন।

অপরদিকে আওয়ামীলীগ বিদ্রোহী সতস্ত্র প্রার্থী অটোরিক্সা প্রতীকের এনামূল হক অপু বলেন, কেশবপুর ইউনিয়নের ৪ নং ৫ নং ও ৬নং ওয়ার্ডে তিনটি কেন্দ্র নৌকা প্রতীকের কর্মীরা দখল করে প্রকাশ্যে ভোট দিতে বাধ্য করছেন।

কেন্দ্র দখল ও নিজ কর্মী ভোটারদের ভয়ভীতি প্রদর্শন কারার অভিযোগ এনে কনকদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদের দুই সতন্ত্র প্রার্থী ভোট বর্জন করেছেন দুপুর ১২টার দিকে। স্বতন্ত্র প্রার্থী আটোরিক্সা প্রতীকের শফিকুল ইসলাম মিঠু ও চশমা প্রতীকের মিজানুর রহমান হিরন তারা তাদের নির্বাচনী অফিস কক্ষে বসে সাংবাদিকদের কাছে নির্বাচন বর্জনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থীদের অভিযোগ, সকাল নয়টা থেকে নৌকা প্রতীকের শাহিন হাওলাদার ও তার কর্মীরা কেন্দ্র দখল করে নিয়েছেন। তাদের এজেন্টদের মারধর করে বের করে দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবারপরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রশাস্ত কুমার সাহা বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নির্বাচনী সহিংসতায় দুপুর দুইটা পর্যন্ত ১২ জনের চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে কেশবপুরের তিনজনের অবস্থা খুবই আশংকাজনক। তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সেলিম রেজা বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু করার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা ছিল এবং সুষ্ঠু হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও রির্টানিং কর্মকর্তা জাকির হোসেন বলেন, যে সকল কেন্দ্রের বিষয় অভিযোগ পাওয়া গেছে, তা সাথে সাথে স্টাইকিং ফোর্সের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর মাধ্যমে সমাধান করা হয়েছে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন