ফোনালাপে আড়িপাতা বন্ধে ১০ আইনজীবীর নোটিশ

মোবাইল ফোন
❏ মঙ্গলবার, জুন ২২, ২০২১ ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- ফোনালাপে আড়িপাতা বন্ধ করতে সরকারকে আইনি নোটিশ দেয়া হয়েছে। রেজিস্ট্রি ডাকযোগে মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের ১০ আইনজীবী এ নোটিশ পাঠান।

ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) উদ্দেশে এ নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

নোটিশ পাওয়ার সাত দিনের মধ্যে ফোনালাপে আড়িপাতা বন্ধে কার্যকর পদক্ষেপ জানাতে অনুরোধ করা হয়েছে। অন্যথায় উচ্চ আদালতে রিট করা হবে বলেও নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে।

নোটিশকারী ১০ আইনজীবী হলেন মোহাম্মদ শিশির মনির, রেজওয়ানা ফেরদৌস, উত্তম কুমার বনিক, শাহ নাবিলা কাশফী, ফরহাদ আহমেদ সিদ্দীকী, মোহাম্মদ নওয়াব আলী, মোহাম্মদ ইবরাহিম খলিল, মুস্তাফিজুর রহমান, জি এম মুজাহিদুর রহমান (মুন্না), ইমরুল কায়েস ও একরামুল কবির।

নোটিশে ২০১৩ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত সংঘটিত ১৬টি আড়িপাতার ঘটনা উল্লেখ করা হয়। তন্মধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সংলাপ, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ও বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এর ফোনালাপ, আইনজীবী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ ও রাজশাহী মহানগর পুলিশের সহকারী কমিশনার নাজমুল হাসানের ফোনালাপ উল্লেখযোগ্য। আড়িপাতার ঘটনা বাংলাদেশের গণমাধ্যমে বহুল প্রচারিত হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

নোটিশে আরও উল্লেখ করা হয়, ১৩৬১ সাল থেকে এই অধিকার পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে স্বীকৃতি। ১৮৯০ সালে হার্বাট ল রিভিউ এ প্রকাশিত প্রবন্ধে ব্যক্তিগত গোপনীয়তার অধিকার নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৬৪ সালের নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয় এক প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়। এই প্রবন্ধে ব্যক্তি স্বাধীনতা, ব্যক্তির মর্যাদা ও ব্যক্তিগত গোপনীয়তার সংরক্ষণের উপর সর্বোচ্চ গুরুত্ব আরোপ করা হয়।

এছাড়া সার্বজনীন মানবাধিকার সনদপত্র নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক চুক্তি অনুযায়ী পৃথিবীর সকল আধুনিক ব্যবস্থায় ব্যক্তিগত গোপনীয়তার অধিকার স্বীকৃত ও সংরক্ষিত।

নোটিশে বলা হয়, ২০০১ সালের বিটিআরসি আইনের ৩০ (চ) ধারা অনুসারে টেলিযোগাযোগের একান্ততা রক্ষার বিষয়টি নিশ্চিত করা কমিশনের দায়িত্ব। কিন্তু লক্ষ করা যাচ্ছে, এ ধরনের ফোনালাপ ফাঁসের ঘটনা অহরহ ঘটছে। অথচ দেশের সংবিধান ও প্রচলিত আইন অনুযায়ী কমিশনের দায়িত্ব হলো ব্যক্তিগত গোপনীয়তা সংরক্ষণ নিশ্চিত করা।

নোটিশে আরও বলা হয়, ২০১৯ সালের ২৮ আগস্ট হাইকোর্টের তিন সদস্যের বৃহত্তর বেঞ্চের দেওয়া রায়ে ব্যক্তিগত গোপনীয়তার বিষয়ে পর্যবেক্ষণ এসেছে। রায়ে বলা হয়, এ ক্ষেত্রে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন ও সেবা প্রদানকারী কোম্পানিগুলোর দায়িত্ব সর্বাধিক। সংবিধান ও আইন অনুযায়ী ব্যক্তিগত গোপনীয়তা সংরক্ষণ তাদের দায়িত্ব। তারা আইনের বিধান ব্যতিরেকে ব্যক্তিগত যোগাযোগের তথ্য প্রদান করতে পারে না।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন