• আজ রবিবার, ১৭ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ১ আগস্ট, ২০২১ ৷

ফরিদপুরে ১০ গ্রামের মানুষের পারাপারের ভরসা সেতুটি ধ্বসে পড়ার আশঙ্কা

setu
❏ বুধবার, জুন ২৩, ২০২১ ঢাকা

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি: ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে কুমার নদীর উপরে অবস্থিত মুজুরদিয়া-কমলেশ্বরদী ব্রীজটি এখন মারণ ফাঁদ। সেতুটি দিয়ে দশ গ্রামের প্রায় ১০-১৫ হাজার মানুষের যাতায়াত। এখন সেখানে যানবাহন চলাচল তো দুরের কথা পাঁয়ে হেঁটে চলতে ভয় পাচ্ছে মানুষজন।

ব্রীজের মাঝে বাঁশের খুঁটি গেড়ে ঝুঁকিপূর্ণ সেতু যান চলাচল বন্ধ লেখা সাইনবোর্ড টাঙানো হয়েছে। যে কোন সময় ব্রীজটি ধ্বসে পড়তে পারে। তবুও জীবনের তাগিদে মৃত্যু ঝুঁকি নিয়ে প্রতিনিয়ত পারাপার করছে এ এলাকার মানুষ।

জানা যায়, একপাড়ে সাতৈর ইউনিয়নের মুজুরদিয়া বাজার আরেকপাড়ে দাদপুর ইউনিয়নের কমলেশ্বরদী বাজার আর মাঝে প্রবাহমান কুমার নদী। ওপাড় থেকে এপাড় আর এপাড় থেকে ওপাড় অত্র অঞ্চলের লোকজনের দৈনন্দিন জীবনধারার যাতায়াতের অন্যতম প্রধান মাধ্যম এটি। এই দুই পাড়ের দুইটি ইউনিয়ন ছাড়াও বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের মেল বন্ধন এ সেতুটি। পাঁশাপাশি জেলা সদর ও কয়েকটি উপজেলায় যাতায়াতের একমাত্র ব্যবস্থাও।

ওই এলাকার বাসিন্দা রাকিব হোসেন জীবন ও ফোরকান মোল্লা জানান, ব্রীজের এক প্রান্তে অবস্থিত কমলেশ্বরদী এয়াকুব আলী উচ্চ বিদ্যালয় এবং সাথে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। আরেক প্রান্তে কাদিরদি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ। স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রী ছাড়াও সাধারণ মানুষদেরও নিত্য যাতায়াত এই ব্রীজটির উপড় দিয়েই, জীবনের রসদ জোগাতে নিত্য প্রয়োজনীয় নানা প্রকার পণ্য সামগ্রী পরিবহনসহ প্রতিদিন দু প্রান্তের হাজারো লোকের চলাচলের ভার বহন করে এই সেতুটি।

জানাগেছে, ১৯৮২ সালে হালকা যানবাহন চলাচলের জন্য ৮ ফুট চওড়া ও প্রায় ১৫০ ফুট দৈর্ঘ্যের এ সেতুটি নির্মিত হয়। নির্মাণ সময়ের বয়স আর আইন বৈধতা হীন ভারী যানবাহন চলাচল,এই দুয়ের সংমিশ্রনে, বিগত কয়েক বছর ধরেই সেতুটির এমন বেহাল দশা ও ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থা। বর্তমানে সেতুর একটি স্পান ডেবে যাওয়াসহ সামান্য ভার প্রয়োগেই বিপদ জনক ভাবে কেঁপে উঠছে। দুই পাঁশের রেলিং ভাঙ্গা,সেতুর মাঝখানে ফাটল ধরাসহ নানাবিধ সমস্যায় জর্জরিত।

মুজুরদিয়া ৩ নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য, রুহুল আমিন,ব্যবসায়ী এনামুল হক,কাদিরদি এলাকার স্বপন দত্ত জানান, ব্রিজটির অবস্থা ভয়াবহ খারাপ। কিন্তু তবুও থেমে নেই মানুষের প্রয়োজনীয় পারাপার। এমন অবস্থায় যেকোন সময় ঘটে যেতে পারে ভয়াবহ কোন দূর্ঘটনা এবং সেই সাথে বন্ধ হয়ে যেতে পারে দুই পাড়ের মানুষের সহজ মিতালী।

দাদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মোশাররফ হোসেন মুশা জানান, এই সেতুটি দিয়ে আমার দাদপুর ইউনিয়নের প্রায় ১০ টি গ্রামের ১০/১৫ হাজার মানুষের যাতায়াত। ব্রিজটি বর্তমান অবস্থা খুবই বেহাল ও ঝুঁকিপূর্ণ। সাইনবোর্ড লিখে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ব্রিজটি নতুন করে করার জন্য আরো কয়েক বছর(২০১৮-১৯ সাল) আগে এলাকার সাবেক সাংসদ আব্দুর রহমান অনেক চেষ্টা করেছেন। তৎকালীন স্থানীয় প্রকৌশলী ফরিদপুর নির্বাহী প্রকৌশলীসহ ঢাকা থেকেও সংশ্লিষ্ট অফিসারদের সরেজমিনে এনে একাধিকবার দেখিয়েছেন। কিন্তু বিশেষ করে আঞ্চলিক মহাসড়ক সংলগ্ন মুজুরদিয়া পাশে এপ্রোচ রোডের কারণে সমস্যা দেখা দেয়।

তিনি আরও বলেন, বর্তমান উপজেলা প্রকৌশলীসহ কর্মকর্তারাও বিষয়টি আন্তরিকতার সঙ্গে চেষ্টা করছেন। তবে ব্রিজটি ভেঙ্গে গেলে আমার এলাকার প্রায় ১৫ হাজার মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়তে হবে। জেলা উপজেলা সদরে যেতে কমপক্ষে ৮/১০ কিলোমিটার পথ ঘুরে যেতে হবে।

এ ব্যাপারে সাতৈর ইউপি চেয়ারম্যান মো: মজিবুর রহমান মোল্যা বলেন, বছর দুয়েক আগে তিনি নিজে ব্রিজ নির্মাণের জন্য ওই সংযোগ (অ্যাপ্রোচ) সড়কের জায়গা মাপঝোপ করেন। কিন্তু সেখানে রাস্তার একপাশে একটি মসজিদ এবং অপরপাঁশে কিছু দোকানপাট রয়েছে। সেগুলো অপসারণ করতে না পারায় ব্রিজের কাজ শুরু করা যায়নি।

তিনি আরও বলেন, জানামতে এসব সরকারি খাসজমিতে গড়ে তোলা হয়েছে। তবে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষে এসব স্থাপনা অপসারণ করা দুস্কর। তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগের হস্তক্ষেপে এসব স্থাপনা অপসারণ করা গেলে ব্রিজটির নির্মাণ কাজ শুরু করা যাবে।

এ প্রসঙ্গে বোয়ালমারী উপজেলা প্রকৌশলী (স্থানীয় সরকার বিভাগ) এ কে এম রফিকুল ইসলাম জানান, ব্রীজটি ১৯৮২-৮৩ সালে হালকা যানবাহন চলাচলের জন্য তৎকালীন প্রকল্প হিসেবে নির্মিত। আমরা সরেজমিনে ব্রীজটি পরিদর্শন করে লিখিতভাবে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে। সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে এর সমাধান করার।

তবে পুরনো ব্রীজটি সংস্কার করার মতো অবস্থা নেই। নতুন ব্রীজ করতে হবে। এছাড়াও নদীর উপর বড় ব্রীজ করতে বিআইডব্লিউটিএর অনুমোদন নেওয়াসহ অনেক কাজ সম্পূর্ণ করা হয়েছে। তবে দুই পাঁশে বিশেষ করে মুজুরদিয়ার পাঁশের এপ্রোচ রোডের কারণে ব্রীজটি নির্মাণ করতে বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে বলেও তিনি জানান।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন