• আজ শনিবার, ১৬ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ৩১ জুলাই, ২০২১ ৷

করোনা টিকার কারখানা হবে গোপালগঞ্জে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী


❏ শনিবার, জুন ২৬, ২০২১ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, মানিকগঞ্জ- দেশে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরির প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। বলেছেন, গোপালগঞ্জে যে সরকারি ওষুধ কারখানা করা হয়েছে, সেখানেই উৎপাদন হবে এই টিকা।

দেশে উৎপাদন হলে করোনার টিকা নিয়ে অনিশ্চয়তা আর থাকবে না বলে আশা করছেন তিনি। তবে টিকার প্রযুক্তি নিশ্চিত হওয়া গেছে কি না, এ বিষয়ে তিনি কিছু বলেননি।

শনিবার (২৬ জুন) বিকেলে মানিকগঞ্জের গড়পাড়ায় নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘গোপালগঞ্জের যে ওষুধ কারখানা আছে সেখানে বা তার পাশে ভ্যাকসিন তৈরির ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। সেটা তৈরি করতে একটু সময় লাগবে। কিন্তু এখন থেকে কাজ শুরু হয়ে গেছে।’

জাহিদ মালেক বলেন, সরকার লকডাউনের ওপর নির্ভরশীল হতে চায় না। কিন্তু লকডাউন দিতে হয় বাধ্য হয়ে। যদি আপনার হাতে ভ্যাকসিন না থাকে তাহলে লকডাউনই করোনা সংক্রমণ রোধে একমাত্র কার্যকরী পন্থা। তিনি বলেন, বিশ্বের সবাই লকডাউন দিয়ে করোনাকে নিয়ন্ত্রণ করেছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, আমরা লকডাউন চাই না। লকডাউনের মাধ্যমে মানুষের ক্ষতি হয়। দেশের বিরাট ক্ষতি হয়ে যায়। কাজেই এটা আমাদের কাম্য নয়। কিন্তু মানুষের জীবন রক্ষার্থে করোনা নিয়ন্ত্রণ করতে লকডাউন আমাদের দিতে হচ্ছে।

জাহিদ মালেক বলেন, আপনারা জানেন, কয়েকদিন ধরে দেশে মৃত্যুর হার অনেক বেড়ে গেছে। গতকালও ১০৮ জন মৃত্যুবরণ করেছে এবং সংক্রমণের হারও প্রায় ২২ শতাংশের কাছে চলে গেছে। দেশের প্রায় প্রত্যেকটি জেলায় করোনা সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিশেষ করে রাজশাহী ও খুলনায় বেশি মৃত্যু হচ্ছে।

জাহিদ মালেক বলেন, দেশে এখন সংক্রমণের হার প্রায় ২২ শতাংশ। অথচ মানুষ এখনও লকডাউন মানতে চায় না। নিয়মিতভাবে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মানে না। এ অবস্থা থেকে সবাইকে বেরিয়ে আসতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, অতি দ্রুত চীন থেকে টিকা আসছে। তবে গোপনীয়তার কারণে কবে এবং কী পরিমাণ আসছে সে বিষয়ে কিছু বলতে চাননি। রাশিয়ার সঙ্গেও ভ্যাকসিন আনার বিষয়ে কথা হচ্ছে বলে তিনি জানান। তবে তাদের উৎপাদন ক্ষমতা বেশি নয় বলে পরিমাণটা খুব বেশি হবে না বলে উল্লেখ করেন মন্ত্রী।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন