🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ শুক্রবার, ১৫ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ৩০ জুলাই, ২০২১ ৷

‘শক্তিমান হতে চাওয়া’ সেই নাছির উদ্দিন এখন সফল উদ্যোক্তা

nasir 5
❏ সোমবার, জুলাই ৫, ২০২১ প্রজন্মের ভাবনা

প্রজন্মের ভাবনা ডেস্ক- মানুষ স্বপ্নের পথে অবিচল, স্বপ্নই মানুষের চলার পথের অনুপ্রেরণা। বড় হওয়ার ইচ্ছে, আবেগ, অনুপ্রেরণা সেই সাথে কাঙ্ক্ষিত স্বপ্নের দিকে এগিয়ে যাওয়ার অদম্য ধারাবাহিকতা একজন রিক্ত হস্ত মানুষকেও পৌঁছে দিতে পারে সফলতার চূড়ান্ত সীমানায়।

যে সীমানায় বসে উপভোগ করা যায় পেছনে ফেলে আসা দুঃসহ দিনের স্মৃতি কিংবা রোমন্থন করা যায় ক্লান্তিহীন জীবন সংগ্রামের সেই মুহূর্তগুলোকে। যেখানে বসে কেবল একটা স্মীত হাসির বদলে ভুলে যাওয়া যায় অগণিত মানুষ এবং তাদের সাথে ফিরে আসা অনাকাঙ্ক্ষিত মুহূর্তগুলোকে।

এতসব ভারি শব্দ আর কথার মোড়কে যার কথাগুলো বলতে আমার কলম এগিয়ে যাচ্ছে, তিনি গোমতী নদীর তীর ঘেঁষে বেড়ে উঠা একজন সাধারণ যুবক। অতীতের ন্যায় এবারও বলতে হয়, অসাধারণ মানুষগুলোর মধ্যে দু’টো ব্যাপারে মিল থাকে। হয় তারা বেড়ে উঠে কোনো পাহাড়ের টিলায় ছুটে বেড়ানো শৈশবে অথবা নদীর তীরের জোয়ার ভাটায় নিজেকে ডুবিয়ে দেয়া কৈশোরের তেজে।

বলছি নাছির উদ্দিন পাটোয়ারী নামের যুবকের কথা। যার স্বপ্নের সীমানা হয়তো মধ্যবিত্ত জীবনের সাধারণ ইচ্ছার মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকতে পারতো। কিন্তু না, প্রকৌশলী পিতা এবং শিক্ষিকা মাতার প্রবাহিত রক্ত যে তার ছোটবেলার বেড়ে উঠার নদীর প্রবাহিত স্রোতধারাকেও হার মানায়। তাই, স্বেচ্ছায় সানন্দে জীবনের এমন কিছু গণ্ডির সঙ্গে নিজের সখ্যতা গড়ে তুললেন, যা অলিখিত চুক্তিতেই বাধ্য করে দেশ ও জাতির কল্যাণে।

খুব ছোটবেলায় সম্ভবত মাধ্যমিক এর কোনো এক শ্রেণিতে, ছাত্র শিক্ষক কথামালার আড্ডায় তাকে মঞ্চে ডেকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, কী হতে চাও বড় হয়ে? নির্ভাবনায়, বিনা বিলম্বে নিষ্পাপ শিশুটি বলে উঠলো ‘আমি শক্তিমান হতে চাই’। কথাটি শুনেই পুরো ক্লাস হো হো করে হেসে উঠলো। বালখিল্যের শিশুমন তখনও জানতো কেবল শক্তিমান হলেই টিভির পর্দায় দেখানো কাহিনীর মতো বাস্তবেও মানুষের জন্য ত্রাণকর্তা হয়ে উঠা যায়। দুর্দশা হটিয়ে এক নিরন্তন শান্তির পৃথিবী গড়া যায় নিমেষেই।

সেদিন ক্লাসের সবার তাচ্ছিল্যের হাসির রোলে শিশুমনে হয়তো অজানার শঙ্কা জেগেছিল, প্রশ্ন এসেছিলো কেন সবাই এমন করে উপেক্ষা করছে। হয়তো দু’চোখ কিছুটা আদ্রতার উষ্ণতায় ডুবেছিল ঠিক। কিন্তু আজ, সেই সহপাঠীদের, সেই পুরনো ক্লাস মাষ্টারদের যারা স্বপ্ন দেখতেন কেউ এসে আচমকা বলে উঠুক নতুন জীবনের গল্প, তারাই আজ প্রশান্তিতে দেখে সেই ছোট্ট শিশু থেকে আজকের পরিণত উদাহরণের দিকে। এমন দৃঢ়তার প্রতিচ্ছবির দিকে।

নাছির উদ্দিন পাটোয়ারী একাধারে একজন সম্পাদক, একজন উদ্যোগী ব্যবসায়ী সেই সাথে কয়েক শত তরুণ উদ্যোক্তার অনুপ্রেরণা। যার তারুণ্য, শক্তি যোগায় দিশাহীন হয়ে পড়া সেই যুবকদের যারা কখনই হয়তো উদ্যমী হতেন না, অগ্রগামী হতেন না উদ্যোক্তা হওয়ার ক্ষেত্রে। তারাও আজ স্বপ্ন দেখে, সাহস করে ঝুঁকি নেয়ার, তারাও দেখে নেয় জীবন চালনার সোপান কোথা অবধি পরিচালিত করে তাদের উদ্যোগ, তাদের প্রচেষ্টাকে।

কুমিল্লা জেলার মোচাগড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক সম্পন্ন করে চলে আসেন রাজধানী শহর ঢাকায়। এখান থেকেই শুরু করেন জীবনের পরবর্তী পদক্ষেপের সূচনা। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা এগিয়ে নিতে পলিটেকনিক থেকে ডিপ্লোমা অতঃপর স্নাতক সম্পন্ন করার পাশাপাশি জড়িয়ে পড়েন তথ্য ও প্রযুক্তির সম্ভাবনার দুয়ারে।

শুরুতে ছোট দাগের ফ্রিল্যান্সিং দিয়ে শুরু করা ক্যারিয়ার, উত্থান পতনের ধাক্কা সামলে মেলে বসে নানাবিধ প্রয়োগীয় প্রযুক্তি ও তার বিষয়বস্তুকে কেন্দ্র করে। সেক্ষেত্রে ‘বার্তা বাজার’ তার গৃহীত প্রথম পদক্ষেপ বলে বিবেচিত হলেও আদতে এর পূর্বেই তার পদচারণা ছিল পর্যটনকেন্দ্রিক অনলাইন সার্ভিস ‘ট্রাভেল হলিডে বিডি’ নামক প্রতিষ্ঠানকে কেন্দ্র করে। বহুল পরিচিতি না পেলেও কর্পোরেট জগতে তা নিঃসন্দেহে আস্থা ও ভরসা কুড়িয়েছিল খুব অল্প সময়ের মধ্যে।

বর্তমান শতাব্দীর দ্বিতীয় দশকের শুরুর দিকে, যখন তথ্য ও প্রযুক্তি অবাধ গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে, ঠিক সেই সময় একজন সহযোগী ফ্রিল্যান্সারের সহায়তায় যাত্রা শুরু করে, দেশের সর্ব প্রথম রেজিষ্ট্রেশনপ্রাপ্ত অনলাইন পোর্টাল ‘বার্তা বাজার’। যার প্রধান উদ্দেশ্য ছিল মানবিক দৃষ্টিতে একটি গণমাধ্যমকে নিপীড়িত জনগণের সবচেয়ে কাছাকাছি পৌঁছে দেয়া। দেশের জনগণের অধিকার আদায়ের জন্য একটি গণমাধ্যম হিসেবে কণ্ঠ উঁচু করে নিজের দেশের ন্যায্য প্রাপ্যতা, জনপ্রতিনিধি কিংবা রাষ্ট্রের কাছ থেকে বুঝে নিয়ে জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়া। সময়ের প্রতিচ্ছবি মূল প্রতিপাদ্যে বার্তা বাজারের পথচলা প্রায় একদশক।

তথ্য ও প্রযুক্তির অবাধ প্রবাহের যুগে, সাইবার সিকিউরিটি নলেজ এবং আইসিটি ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্টে নিজেকে সম্পৃক্ত করেছেন প্রাতিষ্ঠানিক আঙ্গিকে। দেশ ও দেশের বাহিরের একাধিক প্রতিষ্ঠানকে অনলাইন সেবা প্রদান করতে তিনি গঠন করেন একটি আইটি প্রতিষ্ঠান। যা আই.সি.টি বাজার নামে পরিচিত। দেশের আইসিটি ডেভলেপমেন্টকে কেন্দ্র করে আইসিটি বাজারের অর্জিত সুনাম এবং বৈদেশিক রেমিটেন্স, আইসিটি ইন্ডাস্ট্রিতে আগত নতুনদের জন্য উদাহরণ তৈরি করেছে নিঃসন্দেহে।

প্রায়শই ভ্রমণে উৎসাহী একজন পর্যটক হিসেবে ভ্রমণকালীন সময়ে, একবার একটি নামীদামী শপিং মলে কেনাকাটা করতে গিয়ে দেখেন, আমাদের দেশে উৎপাদন করা সম্ভব এমন কিছু চামড়াজাত দ্রব্য আকাশচুম্বী দামে বিক্রি হচ্ছে। যা খুব সাধারণভাবে আমাদের দেশের ও দেশের বাইরে থেকে বেড়াতে আসা পর্যটকরা কিনে নিচ্ছেন কোন প্রকার সংকোচ ছাড়াই। উদ্যোক্তার ভাবনায় যখন দেশীয় পণ্য, তখন দেশে ফিরেই ক্ষণ বিলম্ব না করে স্থাপন করেন, একটি চামড়াজাত দ্রব্য উৎপাদন, বিক্রয় ও বিপণনকারী প্রতিষ্ঠান ‘লেদার প্রো’।

যা একাধারে ভূমিকা রাখছে ই-কমার্স এবং এফ-কমার্সে জড়িত সকল চামড়া জাত দ্রব্য বিপণনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মাদার ভেন্ডর হিসেবে। দেশের প্রায় অর্ধ শতাধিক প্রতিষ্ঠান যারা ই-কমার্সের মাধ্যমে চামড়াজাতদ্রব্য ও তার মাধ্যমে উৎপাদিত পণ্যের বাজার তৈরি করেছেন এবং স্বল্প মূল্যে পৌঁছে দিচ্ছেন গ্রাহকের হাতের মুঠোয় তাদের সকলের পৃষ্ঠপোষক হিসেবে একাধারে ত্রিমাতৃক ভূমিকায় নিজেকে এবং নিজের প্রতিষ্ঠানকে অবতীর্ণ করেছেন যা লেদার প্রো’ নামে ব্যাপকভাবে সমাদৃত।

বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পকে আরও বৃহৎ পরিসরে এবং সহজ পরিসেবায়, প্রতিটি মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে প্রতিষ্ঠিত করেন ট্রিপ৭১ নামক একটি ট্রাভেল বেইজ ওটিটি প্লাটফর্ম। যার মাধ্যমে খুব স্বল্প আয়ের একজন সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষও কোন প্রতিষ্ঠান কিংবা এজেন্সির দ্বারস্থ না হয়ে, সাধারণ জ্ঞান কাজে লাগিয়ে নিজের স্মার্ট ফোনকে কেন্দ্র করে নিজেই হয়ে উঠতে পারেন নিজের ট্রাভেল প্ল্যানার।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন