🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ শনিবার, ৯ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ২৪ জুলাই, ২০২১ ৷

দেবীগঞ্জে দুইটি প্রকল্পে গড়মিল, এক প্রকল্পের সভাপতিই জানেন না কিছু!

Panchagar news
❏ মঙ্গলবার, জুলাই ৬, ২০২১ রংপুর

নাজমুস সাকিব মুন, পঞ্চগড় প্রতিনিধি: গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার কর্মসূচির অধীনে প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে আগে থেকেই সাধারণ মানুষের মধ্যে প্রশ্ন রয়েছে। প্রকল্পের অর্থ সঠিকভাবে ব্যয় না করে সিংহভাগ অর্থ লোপাট নিয়ে বিভিন্ন সময়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচারিত হলেও দুর্নীতি অব্যাহত রয়েছে।

সম্প্রতি পঞ্চগড়ের দেবীগন্জ উপজেলার দেবীডুবা ইউনিয়নে প্রকল্পের নামে মোটা অঙ্কের অর্থ লোপাটের অভিযোগ পাওয়া যায় প্রকল্প সভাপতির বিরুদ্ধে।

২০২০-২০২১ অর্থবছরে বাস্তবায়িত দুইটি কাবিটা প্রকল্পে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ আসে সময়ের কণ্ঠস্বরের নিকট। অভিযোগের প্রেক্ষিতে অনুসন্ধানে প্রকল্প দুইটির সভাপতি হিসেবে দেবীডুবা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাকের নাম জানা যায়।

প্রকল্প দুইটির একটি হল তাতীপাড়া হাইওয়ে রাস্তা থেকে মালিপাড়া যাওয়ার আগে প্রায় ৭০০ মিটার রাস্তা সংস্কার। যার বিপরীতে বরাদ্দ ছিল ২ লাখ ২৩ হাজার টাকা। যদিও এই প্রকল্পে ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা বরাদ্দ পাওয়ার কথা জানান প্রকল্প সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক। দ্বিতীয় প্রকল্পটি হল কামাতপাড়া ধাম থেকে বুড়াবুড়ি মসজিদ পর্যন্ত ৮০০ মিটার রাস্তা সংস্কার। এই প্রকল্পে বরাদ্দ ছিল ২ লাখ টাকা। প্রথম প্রকল্প এলাকার স্থানীয়রা বলছেন রাস্তাটিতে সর্বোচ্চ ৩০-৩৫ হাজার টাকা ব্যয় করা হয়েছে। তাতীপাড়া হাইওয়ের পর থেকে রাস্তায় স্বল্প পরিমাণে মাটি দেয়া হলেও রাস্তার বাকী অংশে মাটি দেয়া হয়নি। আর দ্বিতীয় প্রকল্প এলাকার স্থানীয়রা বলছেন, যেভাবে রাস্তা সংস্কার করা হয়েছে তাতে ৪৫-৫০ হাজার টাকার বেশি ব্যয় হয়নি।
দুই প্রকল্প এলাকার স্থানীয়রা নিশ্চিত করেছেন বাইরে থেকে মাটি এনে রাস্তা সংস্কার করা হয়নি। রাস্তার পাশের কৃষি জমি থেকে মাটি কেটে রাস্তায় দেয়া হয়েছে।

এইদিকে টিআর কর্মসূচির আওতায় ইউপি ভবনের সামনে ফ্লাগবার নির্মাণের জন্য ৭১ হাজার টাকা বরাদ্দ থাকলেও প্রকল্প সভাপতি আব্দুল মজিদ জানেন না কিছুই। তাকে না জানিয়েই প্রকল্প সভাপতি করা হয়েছে। সেই সাথে অর্থবছর শেষ হলেও শুরু হয়নি ফ্লাগবার নির্মাণের কাজ।

এই প্রকল্পের সভাপতি আব্দুল মজিদ বলেন, ফ্লাগবার নির্মাণের কথা আমিও শুনেছি। তবে বিস্তারিত আমি জানি না। চেয়ারম্যানের সাথে কাল কথা বলে বিস্তারিত জানাতে পারবো।

প্রথম প্রকল্প দুইটির সভাপতি ও দেবীডুবা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাকের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, কাজ যেহেতু করেছি অভিযোগ আসতেই পারে। তবে কাজ না করলে কি পিআইও (উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা) এমনি বিল দিছে। ফ্লাগবার নির্মাণের বিষয়ে চেয়ারম্যান বলেন, ফ্লাগবার নির্মাণের জন্য ইট আনা হয়েছে। কাজ শুরু হবে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল মুমিন সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, ফাইল দেখে এবং সরেজমিন দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিব।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রত্যয় হাসান মুঠো ফোনে সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, এই বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দিন। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন