• আজ বৃহস্পতিবার, ২১ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ৫ আগস্ট, ২০২১ ৷

নারায়ণগঞ্জে নব্য জেএমবি’র আস্তানায় অভিযান, মসজিদের মোয়াজ্জেম আটক

ovizan 534
❏ সোমবার, জুলাই ১২, ২০২১ আলোচিত বাংলাদেশ

এম এ হাকিম ভূঁইয়া, আড়াইহাজার (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারের সাতগ্রাম ইউনিয়নের নোয়াগাও এলাকায় এক নব্য জেএমজির আস্তানার সন্ধান পায় কাউন্টার টেররিজমের সদস্যরা।

রোববার (১১ জুলাই) দিবাগত রাত ৮টার দিকে কাউন্টার টেররিজমের সোয়াদ টিমের সদস্যরা ঘটনাস্থলের আশপাশ এলাকা ঘিরে ফেলেন। রাত ১২টার পর্যন্ত চলে শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান।

এসময় একটি মসজিদের পাশেই একটি দোচালা টেনসেট ঘরের ভেতরে থাকা তিনটি শক্তিশালী বোমা দাপে দাপে নিষ্ক্রিয় করা হয়। এসময় একটি মোটরসাইকেল ও বোমা তৈরির বেশ কিছু সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

পরে ঘটনাটি সম্পর্কে সাংবাদিকে ব্রিফ করেন কাউন্টার টেররিজমের প্রধান আশাদুজ্জামান। তিনি দাবি করেন, এটি নব্য জেএমবির আস্তানা ছিল। এখানে তারা শক্তিশালী বোমা তৈরি করছিল বলে তাদের কাছে তথ্য ছিল।

এর আগে আবদুল্যাহ আল-মামুন নামে জেএমবির এক নব্য সদস্যকে আটকেরও দাবি করা হয়। তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী অভিযানটি চালানো হয়। তার বাবার হান্নান মিয়া। তিনি লালমনির হাট এলাকার বাসিন্দা বলে জানা গেছে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার জাইদুল আলম (পিপিএম), আড়াইহাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দায়িত্বে থাকা ওসি তদন্ত আনিচুর রহমান মোল্লাসহ জেলা পুলিশের বেশ কিছু ব্যক্তি।

কাউন্টার টেররিজম (সিটিটিসি)-এর প্রধান আশাদুজ্জামান জানান, চলতি বছরের ১৭ মে নারায়ণঞ্জের সাইডবোর্ড এলাকায় পুলিশ বক্সের কাছে একটি (আইডি) বিস্ফোরণ ঘটানোর চেষ্টা করা হয়েছিল। তারা সেটি সেখানে বিস্ফোরণ ঘটাতে ব্যর্থ হন। পরে কাউন্টার টেররিজম (সিটিটিসি) টিম সেটি নিস্ক্রিয় করেন। এটি ছিল খুবই শক্তিশালী বোমা। পরে নিয়ে তদন্ত চলে। পরবর্তীতে আবদুল্যাহ আল-মামুন ওরফে ডেভিট কিলার নামে এক যুবককে আটক করা হয়।

তিনি আরও বলেন, জেএমবির সদস্য আবদুল্যাহ আল-মামুনকে জিজ্ঞাবাদ করলে সে জানায় আড়াইহাজার উপজেলার সাতগ্রাম ইউনিয়নের নোয়াগাও এলাকায় একটি মসজিদে সে মোয়াজ্জেমের দায়িত্ব পালন করছেন। মসজিদের পাশে তার বসবাসের কক্ষে আরও কয়েকটি বোমা রয়েছে। তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী কাউন্টার টেররিজমের সদস্য ও সোয়াদ টিম অভিযান চালায়। তিনটি বোমা উদ্ধার করে তা নিস্ক্রিয় করা হয়। এর মধ্যে দুইটি বোমার শব্দে এলাকা কম্পিত হয়েছে। এসময় সাইনবোর্ডে বোমা বহনের কাজে ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটিসহ বোমা তৈরির বেশ কিছু সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও জানান, অভিযান চলাকালিন সময়ে তারা একটি হুমকি পেয়েছেন। হুমকীটি তারা ফেসবুকে পোষ্ট করেছে। তারা দ্বিতীয়বার ফের হামলারও পরিকল্পনা করছে বলে দাবি করেছেন।

৪ ঘন্টার শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান: সন্ধ্যা সাতটার দিকে কাউন্টার টেররিজমের বেশ কিছু সদস্য ঘটনারস্থলে চারপাশ ঘিরে ফেলেন। সোয়াদের সদস্যরা রাত ১০টার দিকে অভিযান শুরু করেন। টানা রাত ১২টার পর্যন্ত অভিযান চলে।

স্থানীয় সাতগ্রাম ইউনিয়নের নোয়াগাও এলাকায় অবস্থিত মিয়াসাহেব নামে বাড়ির পাশে নোয়াগাও কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ রয়েছে। এর একটু দূরেই রয়েছে নোয়াগাও হাফেজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানা। এটি ১৯৮২ সালে স্থাপিত হয়েছে। এর পাশেই আবদুল্যাহ আল-মামুনের থাকার দোচালা টিনসেট ঘর। পাশাপাশি তিনি মসজিদে মোয়াজ্জেমের দায়িত্বও পালন করছিলেন।

তার থাকার ঘরটিতে রাত ১০টার দিকে অভিযানটি শুরু করে ১২টার দিকে শেষ করেন। এরই মধ্যে দাপে দাপে তিনটি শক্তিশালী বোমার নিস্ক্রীয় করা হয়। একই সময় বোমা তৈরির বেশ সরঞ্জামসহ একটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধার হওয়া বোমার মধ্যে দুইটি বোমার শব্দে এলাকা কম্পিত হয়ে পড়ে। ঘটনাস্থলটি ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের কিছু দূরে অবস্থিত। তবে এ ব্যাপারে স্থানীয় কারোর বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন