🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ শনিবার, ৯ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ২৪ জুলাই, ২০২১ ৷

চলছে গণপরিবহন, খুলেছে দোকানপাটও


❏ বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৫, ২০২১ ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- দেশের আর্থ সামাজিক অবস্থা এবং অর্থনৈতিক কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে বুধবার মধ্যরাত থেকে আটদিনের জন্য কঠোর লকডাউন শিথিল করা হয়েছে। ফলে রাজধানীর সড়কে আবারও স্বাভাবিক হয়েছে গণপরিবহন চলাচল, এছাড়া বিভিন্ন দোকানপাট খুলতে শুরু করেছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে খুলছে শপিংমল ও মার্কেট।

জাতীয় পরামর্শক কমিটির পাশাপাশি বিশেষজ্ঞরা বিধিনিষেধ আরও কঠোর করার পরামর্শ দিলেও ‘ঈদ উদযাপন ও দরিদ্র মানুষের রোজগারের স্বার্থে’ তা শিথিল করেছে সরকার। তবে ২৩ জুলাই ভোর থেকে ফের ১৪ দিনের কঠোর লকডাউন শুরু হবে। তাতে জরুরি সেবা বাদে শিল্পকারখানাসহ সব ধরনের প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

আজ থেকে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা পর্যন্ত আসনের অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের শর্তে বাস, ট্রেন, লঞ্চসহ সব ধরনের গণপরিবহন চলবে। স্বাস্থ্যবিধি মানার শর্তে খোলা থাকবে শপিংমল ও মার্কেট।

রাজধানীর অন্যতম ব্যস্ততম শপিং মল নিউমার্কেটে সকালে গিয়ে দেখা যায়, পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কাজ প্রায় শেষ। অপেক্ষা কেবল দোকান খোলার।

সকাল ৯টার দিকে ২ নম্বর গেটের গেটম্যান মো. শামীম বললেন, ‘সবকিছু প্রস্তুত। একটু পরই মার্কেট খোলা হবে।’

একই চিত্র দেখা যায় মৌচাক ও গুলশান হকার্স মার্কেটেও। দুই সপ্তাহের শাটডাউনের পর দোকান খুলতে মুখিয়ে আছেন ব্যবসায়ীরা। কোরবানির ঈদের ব্যবসা ধরতে তর সইছে না তাদের।

দিনের আলো ফুটতেই খুলতে দেখা গেছে, রাস্তার আশপাশের অন্যান্য দোকানপাটও। ক্রেতা আসুক বা না আসুক দোকান খোলা গেছে এটাই যেন বড় স্বস্তি।

বাড্ডার লিংক রোডের হার্ডওয়্যার দোকানি কামালউদ্দিন বললেন, ‘ভাই, দুই সপ্তাহ পর দোহান খুললাম। মাসের অর্ধেকটা শেষ। দোকান ভাড়া কী দিব, সংসার খরচ কোথা থেকে মিলাব।’

এদিকে লকডাউন শিথিল করে গণপরিবহন চলাচলের অনুমতি পাওয়ায় আজ ভোর থেকেই রাজধানীর বিভিন্ন রুটে ছোট-বড় বাস, সিএনজিচালিত অটো রিকশা, ভাড়ায়চালিত মোটরসাইকেল, টেম্পুসহ বিভিন্ন পরিবহনের যাত্রী চলাচল শুরু হয়। ভোর বেলায় পরিবহন ও যাত্রী সংখ্যা কম থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে রাস্তায় গণপরিবহনসহ অন্যান্য যানবাহনের সংখ্যা বাড়তে থাকে।

সরেজমিন রাজধানীর ধানমন্ডি, কলাবাগান, শাহবাগ, গুলিস্তান মতিঝিল, পুরানা পল্টন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, দুই সপ্তাহ লকডাউন শেষে রাস্তায় সকাল থেকেই লোকজনের উপস্থিতি অনেক বেশি। বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে মোড়ে বাসের হেলপারদের উঁচু গলায় যাত্রীদের ডাকতে দেখা যায়। আর আসন্ন ঈদকে কেন্দ্র করে নাড়ির টানে বাড়ি ফেরার জন্য একাধিক ব্যাগ নিয়ে বহু যাত্রীকে বাসে উঠতে দেখা যায়।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন