🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ বুধবার, ১৪ আশ্বিন, ১৪২৮ ৷ ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ৷

কঠোর লকডাউনে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে মানুষের ঢল

road 523
❏ শনিবার, জুলাই ৩১, ২০২১ ফিচার, ময়মনসিংহ

মামুনুর রশিদ, ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি- কঠোর লকডাউনের নবম দিনে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে সকাল থেকে জীবিকার তাগিদে ঢাকা মুখী মানুষের ঢল নেমেছে। স্বাস্থ্য বিধি উপেক্ষা করে গাদাগাধি করে কর্মস্থলে ছুটছে মানুষ।

সরেজমিনে দেখা যায়, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ত্রিশাল বাসস্ট্যান্ড দরিরামপুর এলাকায় কঠোর লকডাউন উপেক্ষা করে ট্রাক, পিকআপ, কাভাড্র ভ্যান গাড়ীতে জীবনের ঝুকি নিয়ে চাকুরী বাচাতে নারী, পুরুষ ছুটছে কর্মস্থলে। আগামীকাল রবিবার রপ্তানীমূখী কলকারখানা খুলবে। তাই ঈদে বাড়ী আসা শ্রমিক ছুটছেন কর্মস্থলে।

সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউন আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত। এসময় বন্ধ থাকবে সকল গণপরিবহন। হঠাৎ রপ্তানীমূখী কলকারখানা খুলে দেওয়ায় মহাসড়কে বেড়েছে কর্মমুখী মানুষের পদচারণা। তারা কর্মস্থলে ফিরার জন্য বেছে নিয়েছে মালবাহী ট্রাক, লেগুনা, পিকআপ, কাভাড্র ভ্যান ইত্যাদি পরিবহন। আইন অমান্য করে দু একটি বাস চলতেও দেখা গেছে মহাসড়কে।

দরিরামপুর বাসটেন্ডের যাত্রী রোকেয়া বেগমের সাথে কথা বললে জানান, কুরবানীর ঈদে বাড়িতে আসছিলাম। গামেন্টর্স বন্ধ ছিল কাল থেকে গামেন্টর্স খোলা তাই ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়েছি। আজকে না গেলে কাল অফিস করতে পারবো না, পরে চাকরি চলে যাবে। বাধ্য হয়ে বেশি ভাড়া দিয়ে ট্রাকে উঠেছি। ভাড়া অনেক বেশী তারপরও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কর্মস্থলে যাচ্ছি।

আরেক যাত্রী সাইফুল আলম জানান, ঈদের সময় ডাবল টাকা ভাড়া দিয়ে বাড়িতে মা-বাবার সাথে ঈদ করতে আসছি। ঈদের পর লকডাউনের কারণে ঢাকা যেতে পারি নাই। সরকার ৫ তারিখ পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা করেছেন। আবার লকডাউন শেষ হবার আগেই কল কারখানা খুলে দিয়েছেন। এখন পরিবহন ছাড়া এত মানুষ কি করে কর্মস্থলে পৌছাবে। দেখেন এত লোক আজ সারারাতে ঢাকা পৌঁছাতে পারবে কিনা জানিনা। ট্রাকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে উঠেছি। তারপরও ভাড়া চার গুণ বেশী ।

আরও পড়ুন :

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন