🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ শনিবার, ১০ আশ্বিন, ১৪২৮ ৷ ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ৷

গণটিকার নামে সরকার গণহয়রানি করছে: রিজভী

rijvi_
❏ মঙ্গলবার, আগস্ট ১০, ২০২১ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- সরকারের অব্যবস্থাপনা ও অদক্ষতার কারণে করোনা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। গণটিকার নামে সরকার গণহয়রানি করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

মঙ্গলবার (১০ আগস্ট) সকালে এক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলায় বিএনপির উদ্যোগে করোনা হেল্প সেন্টার উদ্বোধন ও সুরক্ষাসামগ্রী বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন।

রিজভী বলেন,মন্ত্রীরা গলাবাজি করছেন । মন্ত্রীদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে যে, এ ব্যাপারে কেউ যেন কথা বলতে না পারে। তোমরা সেই দিকটা লক্ষ্য রেখো, পাল্টা বলা শুরু করবে। যেমন সরকারের অন্যায়, সরকারের নানা ধরনের গুম-খুন-বিচারবর্হিভূত হত্যা, লুটপাট, টাকা পাঁচার ইত্যাদির বিরুদ্ধে কথা বলতে গেলেই তারা যেমন নানা ধরনের কালাকানুনের বৃত্তে তাকে আটকিয়ে রাখা হয়। এখন করোনার এই অনিয়ম-দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনার বিষয়ে কথা বলতে গেলেও মন্ত্রীরা সেই অবস্থান নিচ্ছেন।

রিজভী বলেন, গতকাল (সোমবার) তথ্যমন্ত্রী বলেছেন, এরকম বিরুদ্ধাচারণ করলে পরে তাদেরকে শাস্তি পেতে হবে, আওয়ামী গতির সঙ্গে না চললে তাকে শাস্তি পেতে হবে।

রিজভী বলেন, সরকার এতো বড় বড় কথা বলে। ছবিতে বড় বড় ফ্লাইওভার, উড়াল সেতু, দোতলা-তিনতলা রাস্তার ছবি দেখান যে, উন্নয়নে ভেসে যাচ্ছে। একেবারে প্রবল উন্নয়নে বাংলাদেশ সয়লাব-এসব উন্নয়নের গল্প শুনতে শুনতে আমরা ক্লান্ত হয়ে গেছি। কিন্তু করোনার মতো মহামারি মোকাবিলা করার মতো যোগ্যতা যে সরকারের নাই, সেই সরকারের এই সব গালগল্প শুনে মানুষের মনকে ভেজানোর যে চেষ্টা করছে, এটাতে মানুষের মন ভেজে না সেই বোধটুকু এই সরকারের নাই।

রিজভী আরও বলেন, সরকার গণ টিকার নামে গণহয়রানি করছে। টিকা কেন্দ্রেই স্বাস্থ্যবিধি নেই। মানুষ বাঁচার জন্য টিকা নিতে গিয়ে আরও বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন। যেখানে একটি কেন্দ্রে তিনশ’ থেকে সাড়ে তিনশ’ লোক টিকা নিতে পারে সেখানে হাজার হাজার মানুষ উপস্থিত হচ্ছে। যেখানে নেই কোন স্বাস্থ্য সুরক্ষা ব্যবস্থা।

বিএনপির এই নেতা বলেন, করোনাকালে সরকারের অদক্ষতার কারণে আশি পার্সেন্ট লোক গরীব হয়েছে। মানুষের খাদ্য ব্যয় কমে গেছে। মানুষের মনে হাহাকার। সরকার মানুষের অভাব উত্তরণের জন্য কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না। রপ্তানি কমে গেছে এগারো শতাংশ। রেমিট্যান্স কমেছে আঠাশ শতাংশ। সবকিছু মিলিয়ে মানুষ ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির দিকে যাচ্ছে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন