ফরিদপুরে বাড়ছে পদ্মার পানি, প্লাবিত হচ্ছে নিম্নাঞ্চল

বাড়ছে পদ্মা নদীর পানি
❏ শনিবার, আগস্ট ২১, ২০২১ ঢাকা, দেশের খবর

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি:

ছয়-সাত দিন ধরে ফরিদপুরে বাড়ছে পদ্মা নদীর পানি। এতে প্রতিনিয়ত প্লাবিত হচ্ছে নিম্নাঞ্চল। পদ্মা নদীর পানি এখন বিপৎসীমার ৩৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় পদ্মার পানি ৯ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে (গোয়ালন্দঘাট পয়েন্টে) ৩৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এতে ফরিদপুরের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে ৯টি গ্রামের প্রায় কয়েক হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এছাড়া জেলার বেশ কয়েকটি স্থানে নদীর তীব্র ভাঙন দেখা দিয়েছে।

পানিবন্দি গ্রামগুলো হলো- ফরিদপুর সদরের কাইমুদ্দিন মাতুব্বরের ডাঙ্গী, বরান বিশ্বাসের ডাঙ্গী, বাছের মোল্লার ডাঙ্গী, শুকুর আলী মাতুব্বরের ডাঙ্গী, আয়জদ্দিন মাতুব্বরের ডাঙ্গী, চর বালুধুম, বাঘের টিলা, লালার গ্রাম ও নর্থ চ্যানেল। এভাবে পানি বাড়তে থাকলে কয়েক দিনের মধ্যে জেলার অন‌্যান‌্য নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে বন‍্যার সৃষ্টি হতে পারে।

বাছের মোল্লার ডাঙ্গী এলাকার বাসিন্দা তুরাপ শেখ জানিয়েছেন, আরও এক সপ্তাহ আগে তাদের ঘরে পানি উঠেছে। আসবাবপত্র নিয়ে আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন তারা। পানি কমলে আবার এলাকায় ফিরবে আফসারের পরিবার।

স্থানীয়রা জানান, সপ্তাহখানেক হলো চরাঞ্চলে পদ্মার পানি বেড়েছে। পানি বৃদ্ধির ফলে বাড়ির আশপাঁশে তলিয়ে গেছে। মাঠের বিভিন্ন ফসলও তলিয়ে যাচ্ছে।

ডিগ্রিরচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান মিন্টু ফকির বলেন, আমার ইউনিয়নের বেশিরভাগই চরাঞ্চল। স্বাভাবিকভাবেই পানি বাড়ায় চরের মাঠ-ঘাট তলিয়ে গেছে এবং আউশ ধানসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষেত পানিতে ডুবে গেছে। এখানে অনেকটা খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে।

ফরিদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সুলতান মাহমুদ জানান, নদ-নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে কয়েকটি স্থানে নদীর ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভাঙন ঠেকাতে আমরা চেষ্টা করছি বালুভর্তি জিও ব্যাগ ফেলে প্রাথমিক প্রটেকশনের জন্য।

জেলা ত্রাণ ও দুর্যোগ ব‍্যবস্থাপনা অফিস জানায়, পদ্মা নদীতে পানি বাড়ায় ফরিদপুর জেলায় এখন পর্যন্ত কত পরিবার পানিবন্দি হয়েছে, তার কোনো তথ‍্য তাদের কাছে নেই।

ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার বলেন, পানি বৃদ্ধির বিষয়টি তারা সতর্কভাবে পর্যবেক্ষণ করছেন। জেলার বিভিন্ন উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউপি চেয়ারম্যানদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে খোঁজখবর রাখতে।

কোথাও জনমানুষের দূর্ভোগ সৃষ্টি হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এছাড়া পানিবন্দি এলাকাগুলোতে সচেতনতায় মাইকিং করাসহ তাদের শুকনো খাবার ও আশ্রয়ের জন্য সবধরনের প্রস্তুতি রয়েছে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন