• আজ শনিবার, ৩ আশ্বিন, ১৪২৮ ৷ ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ৷

জোর করে আপোষনামায় ধর্ষিতার স্বাক্ষর গ্রহণঃ নেপথ্যে ইউনিয়ন আ.লীগ সম্পাদক


❏ সোমবার, সেপ্টেম্বর ৬, ২০২১ রংপুর

নাজমুস সাকিব মুন, পঞ্চগড় প্রতিনিধি: পঞ্চগড়ে ধর্ষণ মামলার জেরে জোর করে আপোষনামায় ধর্ষিতার কাছ থেকে স্বাক্ষর নেয়া ও অভিযুক্তদের নিকট থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার সোনাহার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহীম খলিল মামুনের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী নারী।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, ২৩ মে সকাল সাড়ে সাতটার দিকে ওই নারী বাড়ির আঙ্গিনা ঝাড়ু দেয়ার সময় প্রতিবেশী মন্তাজ আলীর ছেলে মনসুর আলী পূর্বের ঘটনার জেরে তাকে অশ্রাব্য ভাষায় গালি দিতে থাকেন। এই সময় ভুক্তভোগী মনসুরের বাড়ির দিকে এগিয়ে গিয়ে এর প্রতিবাদ করেন। এই সময় মন্তাজ আলীর ছেলে জাহিদুল ইসলাম ও মনসুর আলী,  স্ত্রী জায়েদা বেগম, আন্তাজ আলী ও তার স্ত্রী সুরজান বেগম ভুক্তভোগীকে জোর করে আন্তাজ আলীর ঘরে নিয়ে দড়ি দিয়ে হাত-পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করে।

এরপর মনসুর ওই নারীকে ধর্ষণ করে ঘর থেকে বের করে দেন। পরে স্থানীয়রা ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করেন। এই ঘটনায় ওই নারী বাদী হয়ে দেবীগঞ্জ থানায় ০৫ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন।

মামলা নিষ্পত্তি ও ভুক্তভোগীর সাথে অভিযুক্তদের আপোষ করার শর্তে ওই ইউনিয়নের আ. লীগ সাধারণ সম্পাদক মামুন অভিযুক্তদের সাথে ১ লাখ ৫ হাজার টাকা দাবি করেন। তার কথা মতো অভিযুক্তদের পরিবার সরাসরি মামুনের কাছে প্রথমে ৭৫ হাজার টাকা দেন। পরে ওই এলাকার ইউসুফ, ময়নুল ও ফরিদুল নামে তিন ব্যক্তি বাকী টাকা নিয়ে যান। কথা ছিল ৮০ হাজার টাকা উভয় পক্ষের আপোষের মাধ্যমে ভুক্তভোগীকে দেয়া হবে। বাকী টাকা পুলিশ, আদালত ও গ্রাম্য মাতবরদের আপ্যায়নে খরচ করা হবে।

কিন্তু ভুক্তভোগীর সাথে কথা বললে মিলে ভিন্ন তথ্য। অভিযুক্তদের সাথে আপোষের বিষয়টি ছিল একতরফা। আ. লীগ সম্পাদক মামুন আপোষনামায় স্বাক্ষর দিতে বাধ্য করান ধর্ষণের শিকার নারীকে। ৫০ হাজার টাকা পেয়েছেন বলে জানান ওই নারী। ৪ সন্তানের জননী ওই নারী এখন স্বামীর সংসার থেকে বিচ্ছিন্ন। শ্বশুরবাড়ির লোকজন সন্তানদের সাথে যোগাযোগে বাধা দিচ্ছেন।

ভুক্তভোগী আরো অভিযোগ করেন, তাকে নানাভাবে হুমকি দেয়া হচ্ছে বিষয়টি নিয়ে আর যেন বাড়াবাড়ি না করেন।

তবে অভিযুক্ত জাহিদুল ইসলামের বাবা মন্তাজ আলী অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, পারিবারিক বিরোধের জেরে তাদেরকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দেবীগঞ্জ থানার উপ পরিদর্শক আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আদালতে মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে। আদালতের নির্দেশক্রমে অভিযুক্ত মনসুর আলী ও আন্তাজ আলীর ডিএনএ টেস্টের জন্য আজ (সোমবার) রাতে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়া হচ্ছে।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মামুন মুঠোফোনে বলেন, ভুক্তভোগী সম্পূর্ণ টাকা বুঝে পেয়েছে। তবে এর বেশি তিনি মুঠোফোনে কথা বলতে রাজি হননি।

আরও পড়ুন :
সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত হাতীবান্ধায় সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত এক

❏ শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২১

debigonj 23 প্রেমিকার সাথে দেখা করতে এসে মারধরের শিকার কিশোর!

❏ বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১

মোটরসাইকেল পঞ্চগড়ে সড়ক দুর্ঘটনায় স্কুল শিক্ষক নিহত

❏ বুধবার, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২১

Lalmonirhat news সমতলে চা চাষ, সাংবাদিক বিপুলের সাফল্য

❏ বুধবার, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২১

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন