🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ শনিবার, ৩ আশ্বিন, ১৪২৮ ৷ ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ৷

বাস টার্মিনালটিতে নোংরা পানি ও আবর্জনার স্তুপ থেকে দূর্গন্ধ ছড়াচ্ছে!

Bhola news
❏ মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ৭, ২০২১ বরিশাল

এস আই মুকুল, নিজস্ব প্রতিবেদক : অযত্নে ও অবহেলায় রয়েছে চরফ্যাশন আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল। কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত আধুনিক মানের এ বাস টার্মিনালটিতে নোংরা পানি ও আবর্জনার স্তুপ থেকে দূর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। এতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে যাত্রীদের।

টার্মিনালের প্রবেশদারে একই অবস্থা। ময়লা-আবর্জনায় ঠাসা টার্মিনালের দক্ষিণ পাশজুড়ে। চরফ্যাশন শহরের একমাত্র ময়লার ভাগাড় এটি। বাজারের সবধরনের আবর্জনা ও বাসাবাড়ি আবর্জনা এখানে ফেলা হয়। এখান থেকেও ছড়াচ্ছে প্রচন্ড দুর্গন্ধ। চরফ্যাশন শহরের প্রধান প্রবেশদার হওয়ায় যাত্রী ও পথচারীরা এখান দিয়ে নাক চেপে চলাচল করতে বাধ্য হচ্ছেন।

সোমবার দুপুরে বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা গেছে, টার্মিনালজুড়েই ময়লা। অসংখ্য স্থানে পানি জমে আছে। প্রতিদিন এই টার্মিনালে অর্ধশত বাস ধোয়ামোছার কাজ করা হয়। সেসব পানি জমে থাকে টার্মিনালে। টার্মিনালের ভিতরের সেফটিক ট্যাংকটির ঢাকনা খোলা রয়েছে। সেখান থেকে পচা পানির দূর্গন্ধ চড়াচ্ছে। শৌচাগারগুলো অপরিচ্ছন্ন। সেইসাথে টিকিট কাউন্টারগুলোতে ধুলোর স্তুপ জমে আছে।

চরফ্যাশন পৌরসভার তথ্যমতে, চরফ্যাশন পৌরসভার অর্থায়নে চরফ্যাশন হেলিপ্যাড সংলগ্ন ভোলা-চরফ্যাশন আঞ্চলিক প্রধান সড়কের পাশে ৩ একর জায়গায় ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে আধুনিক বাস টার্মিনাল নির্মিত হয়। ২০১৮ সনের ২ আগস্ট দুপুরে টার্মিনালটি উদ্ভোধন করা হয়। এই টার্মিনালে রয়েছে সাড়ে ৭ হাজার স্কয়ার ফুটের উন্নতমানের গ্লাস মোড়ানো তিনতলা ভবন। যে ভবনে সাধারণ যাত্রীদের বিশ্রামাগার ছাড়াও অত্যাধুনিক সুবিধার ভিআইপি বিশ্রামাগার, রেস্টুরেন্ট, মসজিদ, হলরুম, মিটিংরুম, দশটি টি-স্টল, পর্যাপ্ত শৌচাগারসহ প্রত্যেক রুটের জন্য পৃথক টিকিট কাউন্টারের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে। ২০১৭ সালের জুলাই মাসে এ টার্মিনালের নির্মাণ কাজ শুরু হয়।

যাত্রীদের অভিযোগ, এসব আধুনিক সুবিধা থাকলে বাস্তবে তার সঠিক ব্যবহার নেই। দূর থেকে আসা যাত্রীরা গন্তব্যে যাওয়ার অপেক্ষায় টার্মিনালের সামনে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। অধিকাংশ বাস চালক ও স্টাফ প্রাকৃতিক কর্ম সারেন ডিপোতে থাকা বাসের আশেপাশে। এতে দূষিত হচ্ছে পরিবেশ। কর্তৃপক্ষের সঠিক নজরদারি না থাকায় টার্মিনাটির সুনাম নষ্ট হচ্ছে। এমন চলতে থাকলে একসময় যাত্রীরা মুখ ফিরিয়ে নিবে।

ভোলা বাস মালিক সমিতি সূত্রে জানা যায়, ভোলা থেকে প্রতিদিন চরফ্যাশন, চেয়ারম্যানহাট, দক্ষিণ আইচা, দৌলতখান, ইলিশা, ভেদুরিয়াসহ নয়টি রুটে ১৭৪টি বাস চলাচল করে।

স্থানীয় বাস চালক আবুল কালাম বলেন, ‘বৃহৎ এ বাস টার্মিনালটি হওয়ায় আমাদের অনেক ভালো হয়েছে। আগে প্রধান সড়কে বাস রাখতে হতো। এখন আর সে সমস্যা নাই। ট্রিপ শেষ হলে টার্মিনালে বাস রেখে বাড়ি চলে যাই। তবে দু-একজন স্টাফ বাসে ঘুমায়। যতদূর জানি এরা টার্মিনালের ভিতরের শৌচাগার ব্যবহার করে।’

ভোলা জেলা বাস মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘এ বাস টার্মিনালটি দায়-দায়িত্ব চরফ্যাশন পৌরসভার। তবে বাস চালক ও স্টাফ কর্তৃক টার্মিনাল নোংরা হওয়ার বিষয়টি আমার জানা নাই। মূলত সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা না থাকায় নষ্ট হচ্ছে টার্মিনালের সৌন্দর্য ও পরিবেশ।’

চরফ্যাশন পৌরসভা মেয়র মো. মোরশেদ জানান, বাস টার্মিনালে অপরিচ্ছন্নতার বিষয়টি আমার জানা নেই। এছাড়া বাজারসহ বাসাবাড়ির ময়লা-আবর্জনার সঠিক ব্যবস্থাপনার জন্য পৌরশহর থেকে কিছুটা দূরে একটি নির্দিষ্ট স্থান নির্বাচনের কাজ চলমান রয়েছে। আশকারি দ্রুত এ সমস্যার সমাধান করা হবে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন