• আজ বৃহস্পতিবার, ৫ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২১ অক্টোবর, ২০২১ ৷

শরীয়তপুরে সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় মামলা


❏ বুধবার, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২১ ঢাকা, দেশের খবর

নয়ন দাস, স্টাফ রি‌পোর্টার, শরীয়তপুর: শরীয়তপুর পৌর শহরে দোকানে ঢুকে রোকনুজ্জামান পারভেজ (৪০) নামে এক সাংবাদিককে রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর জখম করা হয়েছে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) চারজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ১০/১৫জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী পারভেজ।

আসামীরা হলেন- শরীয়তপুর পৌরসভার উত্তর পালং গ্রামের মো. নাজমুল হাসান (২৫), নাইমুল হাসান নিলয় (২২), হৃদয় (২৫) ও রিফাত (২৩)।

ঘটনার পর দুইদিন পার হয়ে গেলেও হামলাকারীদের কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এতে ক্ষুব্ধ জেলার কর্মরত সাংবাদিকগণ। এ ঘটনায় আজ বুধবার থেকে বিভিন্ন কর্মসূচীর ডাক দিয়েছে শরীয়তপুর প্রেসক্লাব, শরীয়তপুর ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন, শরীয়তপুর অনলাইন জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনসহ বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন।

উল্লেখ্য, সোমবার দুপুরে রোকনুজ্জামান পারভেজ তার পালং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বসে ছিলেন। এসময় ২০/২৫ জন মিলে এক নারীকে রড, লাঠি দিয়ে মারধর করছিল। এক পর্যায়ে তার দোকানে আশ্রয় নেন ওই নারী। তখন ওই সন্ত্রাসীদের দোকান থেকে বের হতে বলেন পারভেজ। ঘটনাটি ভিডিও করার সময় পারভেজকে কিল-ঘুষি ও রড দিয়ে পিটিয়ে জখম করেন তারা। এসময় দোকান থেকে নগদ টাকাও লুট করা হয়। পরে তাকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন স্থানীয়রা।

আহত রোকনুজ্জামান পারভেজ এটিএন বাংলা, এটিএন নিউজ ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের শরীয়তপুর প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছেন। এছাড়া শরীয়তপুর ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

এদিকে শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক ডিসি পারভেজ হাসান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মনদীপ ঘরাই, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) তানভীর হায়দার শাওন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও শরীয়তপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি অনল কুমার দে, পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আক্তার হোসেন হাসপাতালে সাংবাদিক পারভেজকে দেখতে আসেন।

শরীয়তপুর প্রেসক্লাবের সহসভাপতি শেখ খলিলুর রহমান ও শরীয়তপুর ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শহীদুজ্জামান খান বলেন, দুইদিন পার হয়ে গেলেও হামলাকারীদের কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। তাই আমরা বিভিন্ন কর্মসূচীর ডাক দিয়েছি। আমরা এই হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আক্তার হোসেন বলেন, চারজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ১০/১৫জনকে আসামী করে একটি মামলা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত আছে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন