সংক্রমণ বাড়লে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আবার বন্ধ: শিক্ষামন্ত্রী

Dipu moni
❏ শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১ ফিচার, শিক্ষাঙ্গন

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- করোনা মহামারি বড় আকার ধারণ করলে আবারও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে বঙ্গবন্ধু বাপু ডিজিটাল এক্সিবিশনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানের পর সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা অবস্থা পর্যবেক্ষণ করছি। এখনো অতিমারি শেষ হয়নি। যে কেউ যে কোনো সময় করোনায় আক্রান্ত হতে পারে। বড় ধরনের মহামারি দেখা দিলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, এখন পর্যন্ত কোথাও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। যদি হয় আমরা ব্যবস্থা নেব। এ পর্যন্ত করোনা সংক্রমণের সংবাদ পাওয়া গেছে তার মধ্যে অধিকাংশ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করছে, এ বিষয়ে তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছে।

শিক্ষার্থীদের মাঝে করোনার সংক্রমণ বিষয়ে এ সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

তিনি বলেন, ‘আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কয়েকটিতে করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া যাচ্ছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বিষয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণায় দেখছে। আর আমরা শিক্ষা মন্ত্রণালয় মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দেখি। সেখানে যে সমস্যা হয়েছে; বিশেষ করে মানিকগঞ্জে অষ্টম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী মারা গেছেন। তার মৃত্যুতে আমি গভীর দুঃখ প্রকাশ করছি ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। তার বিষয়টি নিয়ে আমরা সিভিল সার্জনের সঙ্গে কথা বলেছি।’

সিভিল সার্জন জানিয়েছেন, ওই শিক্ষার্থী ১৫ তারিখে একবার স্কুলে গিয়েছিল। এরপর ৬/৭ দিনের মাথায় সে মারা যায়।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘ওই স্কুলে দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী করোনা শনাক্ত হয়েছে। আর অষ্টম শ্রেণির ওই শিক্ষার্থী করোনা সদৃশ, তার মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়নি। দশম শ্রেণির যে শিক্ষার্থী করোনা সংক্রমিত হয়েছেন, ওই শ্রেণির সবাইকে করোনা পরীক্ষা করিয়েছি। আর কারও মাঝে করোনা সংক্রমণ দেখা যায়নি।’

দীপু মনি বলেন, ‘সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখতে পাচ্ছি যে, এই স্কুলে এতজন আক্রান্ত, ওই স্কুলে অতজন আক্রান্ত। আমরা সবগুলো গুরুত্ব দিচ্ছি। কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ার বিষয়গুলোর সত্যতা আমরা পাইনি।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘অতিমারি চলছে। কোথাও যেন শিক্সার্থীদের মধ্যে সংক্রমণ না ঘটে সে বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে।’

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন