• আজ সোমবার, ৯ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২৫ অক্টোবর, ২০২১ ৷

ফসলের মাটি না দেয়ায় কৃষককে তুলে নিয়ে পেটালেন চেয়ারম্যান


❏ মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২১ অপরাধ

কামরুজ্জামান মিন্টু, স্টাফ রিপোর্টারঃ ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে গাজির ভিটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে কৃষককে রশি দিয়ে বেঁধে
মধ্যযুগীয় কায়দায় শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। নির্যাতনের শিকার কৃষক দুলাল মিয়াকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় সোমবার রাত পৌনে বারোটার দিকে ঘটনার বর্ণনা দিয়ে হালুয়াঘাট থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন নির্যাতনের শিকার কৃষক দুলাল মিয়া। অভিযোগটি দিবাগত রাত সাড়ে বারোটার দিকে মামলা হিসেবে নথিবদ্ধ করা হয়েছে। মামলার পর থেকেই পালিয়েছে ওই ইউপি চেয়ারম্যান।

বিষয়টি সময়ের কন্ঠস্বরকে নিশ্চিত করেছেন হালুয়াঘাট থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোবারক হোসেন।

মামলার বরাত দিয়ে তিনি বলেন, সোমবার বিকেল সাড়ে ৫ টার দিকে উপজেলা সদর ইউনিয়নের মুজাখালি গ্রামের কৃষক দুলাল মিয়ার ফসলি জমি থেকে মাটি নিয়ে রাস্তা সংস্কারের কাজ করছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান দেলোয়ারের কয়েকজন শ্রমিক। কিন্তু কৃষক দুলাল মিয়ার জমিতে থাকা একটি গাছের গোড়া থেকে মাটি নেওয়ার সময় বাঁধা দেওয়া হয়। তখন শ্রমিকরা মাটি নিতে না পেয়ে চেয়ারম্যানকে জানালে চেয়ারম্যান এসে কৃষক দুলাল মিয়ার সাথে কথা-কাটাকাটি শুরু হয়।

একপর্যায়ে চেয়ারম্যান ওই কৃষককে নিজ গাড়িতে উঠিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে আসেন। গ্রাম পুলিশের সহায়তায় তাকে রশি দিয়ে বেঁধে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে আহত করেন। খবর পেয়ে দুলালের পরিবার ইউনিয়ন পরিষদ থেকে নিয়ে গিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

গাজির ভিটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সোমবার বিকেলে বালিচান্দা গ্রামের রাস্তার সংস্কার কাজ চলছিল। কিন্তু দুলাল তখন সরকারি কাজে বাঁধা দিয়েছেন। আমি ঘটনাস্থলে গেলে মাটি উত্তোলনকে কেন্দ্র করে দুলালের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়।

তিনি বলেন, আমি প্রতিবাদ করলে আমার গায়ে হাত তোলা হয়। তখন গ্রাম পুলিশ তাকে ধরে আমার গাড়িতে তুলে ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে রশি দিয়ে বেঁধে ফেলে। এরপর লাঠি দিয়ে কয়েকটা আঘাত করা হয়েছে তাকে ভয় দেখানোর জন্য।

এ বিষয়ে হালুয়াঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিনুজ্জামান খান বলেন, কৃষক দুলাল মিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি থেকেই রাতে লিখিত অভিযোগটি তার ছেলের মাধ্যমে থানায় জমা দিয়েছেন। এরপর অভিযোগটি মামলা হিসেবে নথিবদ্ধ করা হয়েছে। আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন