• আজ সোমবার, ৯ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২৫ অক্টোবর, ২০২১ ৷

শাহজাদপুরে দুই দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে ১১ জন আহত, আটক ৪

news 7485
❏ বুধবার, অক্টোবর ৬, ২০২১ রাজশাহী

রাজিব আহমেদ রাসেল, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে দুই দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনায় উভয় পক্ষের ১১ জন আহত হয়েছে।

মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) বেলা ১১টায় উপজেলার রুপবাটি ইউনিয়নের সদামারা গ্রামে পূর্ব বিরোধের জের ধরে ঠান্ডু গ্রুপ ও সোহেল গ্রুপের মধ্যে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের খবর পেয়ে শাহজাদপুর থানা পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

উল্লেখ্য, ঠান্ডু ও সোহেল উভয়ে সম্পর্কে একে অপরের ভগ্নীপতি ও শ্যালক। এই সংঘর্ষের ঘটনার পর পুরো গ্রাম পুরুষশূন্য হয়ে পড়ে। এসময় বেশ কয়েকটি বাড়ি ঘরে লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে।

সোহেলের ভাবি সেলিনা খাতুন (৩২) বলেন, আমার দেবর ইউসুফ (৩৫) সকাল ১১টায় ঠান্ডু গ্রুপের সমর্থকদের বাড়ি পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় তাকে মারধর করা হয়। তারপর ঠান্ডুর নেতৃত্বে তার গ্রুপের প্রায় ৫০/৬০ জন লোক দেশীয় অস্ত্র নিয়ে অতর্কিতে আমাদের ও আত্মীয়স্বজদের বাড়ি ঘরে মামলা চালায়।

এসময় তাদের ধাড়ালো অস্ত্র ও লাঠির আঘাতে হেলাল (৪০), সাইফুল (৩৪), জাহাঙ্গীর (৩৪), কোমেলা বেগম (৪৫), আতাব মোল্লা (৭৫), সোবাহান (৫৫), সাকিব (১৫) ও সোহেল (৩৫) আহত হয়। হামলাকারীরা বাড়িঘর ভাঙচুর, গবাদি পশু ও টাকা পয়সা লুটপাট করে নিয়ে যায়। পরে আহতদের উদ্ধার করে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে মুমুর্ষ অবস্থায় হেলাল, সাইফুল ও জাহাঙ্গীরকে বগুড়া শহীদ জিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

ঠান্ডুর ভাই আব্দুল আলীম বলেন, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় আমার ছোট ভাই জাহাঙ্গীর উত্তরপাড়ায় গেলে সোহেল গ্রুপের লোকজন তার উপর হামলা করে। তার আর্তচিৎকার শুনে আমরা জাহাঙ্গীরকে উদ্ধারের জন্য গেলে সোহেল ও তার লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের উপর আবারো হামলা করে। পরে আমরা তাদের প্রতিরোধ করি।

তিনি জানান, এই হামলার ঘটনায় আলমগীর, এশাক আলী ও মনোয়ারা গুরুতর আহত হন। তাদের উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এই বিষয়ে শাহজাদপুর থানার ওসি (অপারেশন এন্ড কমিউনিটি পুলিশিং) আব্দুল মজিদ বলেন, সংঘর্ষের সংবাদ পেয়ে দ্রুত সদামারা গ্রামে পুলিশের একটি দল পাঠানো হয়। তারা গিয়ে আইনশৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এর ফলে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কমে আসে। এসময় ৪ জনকে আটক করা হয়।

সংঘর্ষের ঘটনায় শফিকুল ইসলাম নামের একজন বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছে। সদামারা গ্রামের পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন