মুহিবুল্লাহ হত্যা: আরও তিন আসামি ৩ দিনের রিমান্ডে

atok n34
❏ বুধবার, অক্টোবর ৬, ২০২১ আলোচিত বাংলাদেশ

শাহীন মাহমুদ রাসেল, কক্সবাজার: কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা নেতা মাষ্টার মুহিবুল্লাহ হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার আরো তিন আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।

বুধবার (৬ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১১ টায় টেকনাফ আদালতের জেষ্ঠ্য বিচারিক হাকিম তামান্না ফারাহ’র আদালত এ আদেশ দেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার আদালত পুলিশের পরিদর্শক চন্দন কুমার চক্রবর্তী।

আসামিরা হল, উখিয়া উপজেলার লম্বাশিয়া ১-ইস্ট রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এ-১৫ ব্লকের বাসিন্দা জাকির আহমদের ছেলে আব্দুস সালাম (৩২), কুতুপালং ৮-ডব্লিউ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এইচ-৫৪ ব্লকের বাসিন্দা মৃত মকবুল আহমদের জিয়াউর রহমান (৩০) এবং কুতুপালং ৫ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা রজক আলীর ছেলে মো. ইলিয়াছ (৩৫)। এর আগে গত রোববার গ্রেপ্তার আসামি মো. সলিম (৩৩) ও শওকত উল্লাহ (২৩) এর তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছিল।

বুধবার সকাল সাড়ে ১০ টায় তিন আসামিকে কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে প্রিজেন ভ্যান যোগে আদালতে আনা হয়। পরে ১১ টায় আসামিদের বিচারকের এজলাসে হাজির করা হয়। গত শুক্রবার সকালে উখিয়ার লম্বাশিয়া ১-ইস্ট নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে থেকে মো. সলিমকে আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ান (এপিবিএন) এবং মধুরছড়া ৩ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ডি-১৫ ব্লক থেকে শওকত উল্লাহকে উখিয়া থানা পুলিশ গ্রেপ্তার করে।

গত শনিবার ভোররাতে লম্বাশিয়া ১-ইস্ট নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এ-১৫ ব্লক থেকে আব্দুস সালাম (৩২) কে, ৮-ডব্লিউ কুতুপালং ক্যাম্প থেকে জিয়াউর রহমান (৩০) কে গ্রেপ্তার করা হয়। এছাড়া গত রোববার কুতুপালং ৫ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে মো. ইলিয়াস (৩৫) কে গ্রেপ্তার করা হয়।

পরিদর্শক চন্দন বলেন, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গত রোববার রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার আসামি আব্দুস সালাম ও জিয়াউর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে হাজির করা হয়। পরে আদালত আসামিদের রিমান্ড শুনানীর জন্য বুধবার দিন ধার্য করে আদেশ দেন। এছাড়া গত সোমবার গ্রেপ্তার অপর আসামি মো. ইলিয়াসকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে আবেদন করেন। এতে আদালত শুনানীর জন্য বুধবার দিন ধার্য করে আদেশ দেন।

বুধবার সকালে রিমান্ড শুনানীর নির্ধারিত দিনে গ্রেপ্তার তিন আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়। এতে বিচারক জিজ্ঞাসাবাদের প্রত্যেক আসামির তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন। এ নিয়ে রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৫ আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য প্রত্যেকের তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কোন আসামিকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়নি।

১৪-এপিবিএনের অধিনায়ক পুলিশ সুপার নাইমুল হক জানান, মুহিব্বুল্লাহ হত্যায় সরাসরি জড়িতদের গ্রেফতারে চেষ্টা করছেন তারা। পুরো ক্যাম্পকে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে আনা হচ্ছে। প্রতি রাতেই পুলিশ ও এপিবিএন টিম ক্যাম্পে ব্লক রেইড দিচ্ছে। সাধারণ রোহিঙ্গারা যাতে ভয়ভীতিতে না পড়ে সে দিকটাও দেখছে পুলিশ।

গত বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে অজ্ঞাত বন্দুকধারীরা মুহিবুল্লাহর নিজ অফিসে পাঁচ রাউন্ড গুলি করে। এ সময় তিন রাউন্ড গুলি তার বুকে লাগে। এতে তিনি ঘটনাস্থলে পড়ে যান। খবর পেয়ে এপিবিএন সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে ‘এমএসএফ’ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন