• আজ বৃহস্পতিবার, ৫ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২১ অক্টোবর, ২০২১ ৷

মহাসড়ক দাপিয়ে বেড়াচ্ছে অবৈধ যানবাহন

Manikganj Highway Road
❏ সোমবার, অক্টোবর ১১, ২০২১ ঢাকা

দেওয়ান আবুল বাশার, স্টাফ রিপোর্টার: নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মহাসড়ক দাপিয়ে বেড়াচ্ছে অবৈধ যানবাহন এতে প্রতিনিয়ত বাড়ছে দূর্ঘটনা অকালেই হারাচ্ছে হাজারো প্রাণ। উচ্চ আদালত এবং মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অমান্যকরে অবাধে চলাচল করছে এসব অবৈধ যানবাহন।

আদালতের রায় কিংবা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনার পর পুলিশ কিছুদিন অভিযান চালালেও একসময় সেই অভিযান বন্ধ হয়ে যায়, ফের চলতে শুরু করে ব্যাটারি চালিত অবৈধ ইজিবাইক, শ্যালোইঞ্জিন চালিত নসিমন, করিমন ট্রলি, সিএনজি।

কোনভাবেই মহাসড়কে এই অবৈধ যানবাহন থামানো যাচ্ছে না। এর ফলে প্রতিনিয়তই মহাসড়কে ঘটছে নানা দূর্ঘটনা, এতে পথচারী, যাত্রী, চালক, শ্রমিক অকালেই প্রাণ হারাচ্ছে আবার অনেকেই অঙ্গহানী হয়ে পঙ্গুত্ববরণ করছে। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ অমান্য করে মানিকগঞ্জের ঢাকা আরিচা মহাসড়কে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন এসব নিষিদ্ধ যানবাহন।

সরেজমিনে দেখা যায়, বরঙ্গাইল হাইওয়ে থানা পুলিশের সামনে দিয়ে মহাসড়কে অবাধে চলাচল করছে এসব নিষিদ্ধ যানবাহন। জানা গেছে, বরংগাইল আরিচা উথুলী বাসস্ট্যাণ্ড থেকে সিএনজি ব্যাটারিচালিত রিক্সা নসিমন করিমন দিয়ে জেলার বিভিন্ন স্থানে মানুষ যাতায়াত করে এবং বিভিন্ন পন্য সরবরাহ করে। এই সুবাধে অসৎ কিছু পুলিশকে ম্যানেজ করে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মহাসড়কে চলছে এসব অবৈধ যানবাহন।

অপরদিকে গোলড়া হাইওয়ে পুলিশ মহাসড়কে অভিযানের নামে এসব অবৈধ যানবাহন থেকে মাসোহারা আদায় করছে। বিভিন্ন কাঁচামালের আড়তে মাল নিয়ে আসা যানবাহন আটক করা হলে তা মাসোহারা পদ্ধতিতে ছেড়ে দেওয়া হয়। এ রুটের অধিকাংশ যানবাহন মাসিক মাসোহারা দিয়ে চলাচল করছে। সম্প্রতি সময়ে জাগীর কাঁচামালের আড়ৎ থেকে মাসিক মাসোহারা না পেয়ে পাঁচটি ইঞ্জিন চালিত ভ্যান আটক করে থানায় নেওয়া হয়। এর একদিন পরেই ১৫ হাজার টাকা মাসিক মাসোহারা চুক্তি করে ওইসব অবৈধ যানবাহন ছেড়ে দেয়া হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রাণ কোম্পানির সেলস্ম্যান জানান, তাদের ইঞ্জিন চালিত ভ্যান দিয়ে জেলার বিভিন্ন দোকানে দোকানে পণ্য ডেলিভারি দিতে হয়। এ কারণে আমাদের মাঝে মধ্যে মহাসড়ক ব্যবহার করতে হয়। গত সপ্তাহে মহাড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় গোলড়া হাইওয়ে থানার এক স্যার আমার গাড়ি আটকে দেয়। পরে একজনের তদবিরে আমার গাড়ি ছেড়ে দেয়। এসময় আমাকে ওই স্যার আমাদের প্রত্যেকটি গাড়ি মাসিক এক হাজার টাকা করে মাসোহারা করতে বলে দেন।

এ ব্যাপারে বরংগাইল হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রিয়াদ মাহমুদ বলেন, এসব অবৈধ যানবাহন বন্ধে সারাদেশ ব্যাপী আমাদের মিটিং হয়েছে। খুব শীঘ্রই বিলবোর্ড ও মাইকিং এর মাধ্যমে চালকদের সচেতন এবং অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা হবে।

এবিষয়ে গোলড়া হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনির (ওসি) হোসেন বলেন, অবৈধ সকল যানবাহনের বিরুদ্ধে আমাদের নিয়মিত অভিযান চলছে এবং এসকল যানবানের বিরুদ্ধে মটরযান আইনে মামলা দেয়া হচ্ছে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন