🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ বৃহস্পতিবার, ২৪ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ৯ ডিসেম্বর, ২০২১ ৷

সৌদিতে কাল থেকে মাস্ক পরিধান আর বাধ্যতামূলক থাকছে না

saudi n34n
❏ শনিবার, অক্টোবর ১৬, ২০২১ আন্তর্জাতিক

আব্দুল্লাহ আল মামুন, সৌদিআরব প্রতিনিধি: আগামীকাল ১৭ অক্টোবর থেকে সৌদি আরবে মাস্ক পরা বাধ্যবাধকতা থাকছে না। কোভিড-১৯ ভাইরাসের দুইডোজ গ্রহণকারীদের খোলা জায়গায় মাস্ক ব্যবহারের নিষেধাজ্ঞা উঠে যাচ্ছে। দীর্ঘ ১৪ মাস পর সৌদি আরবে মাস্ক পরার নিষেধাজ্ঞা উঠে যাচ্ছে।

করোনা ভাইরাস মহামারীর জন্য এতদিন জনসম্মুখে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক ছিল। কিন্তু আগামীকাল ১৭ অক্টোবর থেকে সৌদি আরবে মাস্ক পরা আর বাধ্যতামূলক থাকছে না। কোভিড-১৯ ভাইরাসের দুই ডোজ টিকা যাদের রয়েছে, তারা নির্দিষ্ট কিছু স্থান ছাড়া সবখানে মাস্ক ছাড়া চলাফেরা করতে পারবেন।

সৌদি গেজেটের প্রতিবেদনের বরাত দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে জানিয়েছে, আগামীকাল ১৭ অক্টোবর (রোববার) থেকে জনগণকে আর খোলা জায়গায় মুখে মাস্ক পরিধান করতে হবে না।

সৌদির গ্র্যান্ড মসজিদ এবং মসজিদে নববীতেও দুই ডোজ গ্রহণকারীদের জন্য প্রবেশাধিকার সম্পূর্ণভাবে উন্মুক্ত করা হয়েছে। তবে দেশটিতে অবস্থানরত শ্রমিক এবং দর্শনার্থীদের এখনও সর্বদা মাস্ক পরতে হবে।

এছাড়াও, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার কড়াকড়িও আর থাকবে না। এখন থেকে জনসমাবেশের অনুমতি দেওয়া হবে। এমনকি গণপরিবহন, রেস্তোরাঁ এবং সিনেমা হলগুলি সম্পূর্ণভাবে চালু করা যাবে।

সৌদি আরবে করোনা সংক্রান্ত বিধিনিষেধে শিথিলতায় বলা হয়েছে যে,সৌদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হতে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় আগামী ১৭ অক্টোবর ২০২১ রোজ রবিবার হতে কিছু ক্ষেত্রে করোনা সংক্রান্ত বিধিনিষেধে নিম্নোক্ত শিথিলতার অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

১। উন্মুক্ত স্থানে মাস্ক পরিধান করা আর বাধ্যতামূলক থাকবেনা (কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া)। তবে বদ্ধ যায়গায় মাস্ক পরিধান করতে হবে।

২। দুই ডোজ তথা সম্পূর্ণ ডোজ কোভিড টিকা গ্রহনকারীদের জন্য নিম্নোক্ত ক্ষেত্রে কিছু শিথীলতা আনা হয়েছেঃ

ক। মসজিদুল হারাম, মক্কা এবং মসজিদে নববী মদীনা কর্তৃপক্ষ সেখানে ধারণ ক্ষমতার সম্পূর্নটাই ব্যবহার করতে পারবে। তবে এক্ষেত্রে সেখানে কর্মরত কর্মী এবং আগত ভিজিটরদের অবশ্যই সার্বক্ষণিক মাস্ক পরিধান করতে হবে, এবং উমরা, নামাজ, জিয়ারার জন্য আগের মতোই তাওক্কালনা এপের মাধ্যমে পূর্বানুমতি (এপয়েন্টমেন্ট) গ্রহণ করতে হবে। (এই অনুমতির ফলে হয়তো বেশি সংখ্যক উমরাকারী ও ভিজিটরদের এলাও করবে। তবে টিকার সম্পূর্ন ডোজ গ্রহণ ছাড়া কিংবা তাওয়াক্কালনায় এপয়েন্টমেন্ট গ্রহণ ছাড়া কেউ যেতে পারবেন না।)

খ। জনসমাগম স্থল , পাবলিক প্লেস, গণপরিবহন , রেস্টুরেন্ট, বিনোদন কেন্দ, সিনেমা ইত্যাদিতে বসার ফুল ক্যাপাসিটি ব্যবহারের অনুমোদন দেয়া হয়েছে এবং সামাজিক দুরত্ব নীতি রহিত করা হয়েছে।

৩। সকল সরকারী -বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে প্রবেশের ক্ষেত্রে টিকার ডোজ সম্পূর্ণ করার শর্ত বহাল থাকবে। তাই সরকারী বেসরকারী সকল কর্তৃপক্ষকে তাদের সেবাগ্রহনকারীদের তাওয়াক্কালনায় ইমিউন স্ট্যাটাস নিশ্চিত হয়ে প্রবেশানুমতি প্রদান ও কার্যক্রম পরিচালনার প্রতি বিশেষ গুরুত্বারোপ করতে হবে।

৪। কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠানের আয়োজন ও উপস্থিতির হওয়ার ক্ষেত্রে কোন নির্দিষ্ট সংখ্যার বাধ্যবাধকতা আর থাকবেনা।

৫। তাওয়াক্কালনার মাধ্যমে স্বাস্থ্যগত অবস্থা নিরুপণ সম্ভব নয় এমন সকল জায়গায় সামাজিক দূরত্ব ও মাস্ক পরিধান নিয়ম বহাল থাকবে।

সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় স্বাস্থ্য পরিস্থিতির উপর সার্বক্ষণিক নজর রাখছে। পরিস্থিতির পরিবর্তন হলে প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এই মর্মে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।