• আজ শুক্রবার, ৭ মাঘ, ১৪২৮ ৷ ২১ জানুয়ারি, ২০২২ ৷

তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনঃ নির্বাচনী সহিংসতায় প্রাণ গেলো নয় জনের

নির্বাচনী সহিংসতায় প্রাণ
❏ সোমবার, নভেম্বর ২৯, ২০২১ ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে গতকাল রবিবার সহিংসতায় নীলফামারীতে একজন বিজিবি সদস্যসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে নির্বাচনী সহিংসতায় অন্তত নয়জন নিহত হয়েছেন।

এসব ঘটনায় আহত হয়েছেন দুই শতাধিক। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীসহ নির্বাচনী কর্মকর্তাদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে।

সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে অন্তত ১৪০টি কেন্দ্রে। গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ, জাল ভোট, কেন্দ্র দখল, ব্যালট পেপার ছিনতাইসহ নানা অনিয়মের ঘটনাও ঘটেছে।

এদিকে নির্বাচনকে সহিংসতাহীন নির্বাচনের মডেল হিসেবে দাবি করেছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার। তিনি বলেন, কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া এবারের ভোটগ্রহণ শান্তিপূর্ণ হয়েছে।

ইসির পক্ষ থেকে জানানো হয়, এক হাজার ইউপি এবং ৯টি পৌরসভায় ভোটগ্রহণের কথা থাকলেও চট্টগ্রাম জেলার ১৪টি ইউপিতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সব চেয়ারম্যান-মেম্বার নির্বাচিত হওয়ায় সেখানে ভোটের প্রয়োজন হয়নি। বাকি ৯৮৬টি ইউপিতে প্রাথমিক হিসেবে ৭০ শতাংশের বেশি ভোট পড়েছে। এ ছাড়া ভোটকেন্দ্র প্রিজাইডিং অফিসারদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় ২১টি কেন্দ্রে নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে।

নির্বাচনে সহিংসতা, নিহত ৯

মুন্সীগঞ্জঃ মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার চরাঞ্চলের বাংলাবাজারে পৃথক সহিংসতার ঘটনায় শাকিল মোল্লা (৩০) ও রিয়াজুল শেখ (৬০) নামের দুজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ১০ জন। ঘটনায় নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

নরসিংদী

নরসিংদীতে পৃথক ঘটনায় নিহত হয়েছেন দুজন। রায়পুরার চান্দেরকান্দিতে ভোট গণনা শেষে সংঘর্ষে আরিফ (২৮) নামের এক অটোরিকশাচালক নিহত হন। উত্তরবাখরনগর ইউনিয়নে পৃথক সংঘর্ষে আহত ফরিদ মিয়া (৩২) নামের আরেকজন ঢাকায় নেওয়ার পথে মারা যান।

ভোটের সময় বিভিন্ন ইউনিয়নে বিচ্ছিন্ন হামলা, ধাওয়াধাওয়ি, ককটেল বিস্ফোরণ এবং কমপক্ষে ২৫ জন গুলিবিদ্ধসহ ৫০ জন আহত হন। সদর উপজেলার করিমপুর, নজরপুর, চিনিশপুরসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে এসব ঘটনা ঘটে।

সদর হাসপাতালে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. মো. আবদুল বাকী বলেন, হাসপাতালে বিকেল ৪টা পর্যন্ত গুলিবিদ্ধ ২৫ জনসহ ৫০ জন চিকিৎসা নিয়েছেন।

নীলফামারী

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জের গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের পশ্চিম দলিরাম মাঝাপাড়া কেন্দ্রে গতকাল রাত সাড়ে ৯টার দিকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে বিজিবির নায়েক রুবেল হোসেনকে (৩০) কে ।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, কেন্দ্রের ঘোষিত ফল প্রত্যাখ্যান করে লাঙল প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মারুফ হোসেনের সমর্থকরা লাঠিসোঁটা নিয়ে ভোটকেন্দ্রে নির্বাচনী কর্মকর্তাদের ওপর হামলা চালায়। আত্মরক্ষার্থে বিজিবি সদস্য রুবেল কেন্দ্রের একটি কক্ষে আশ্রয় নেন।

এ সময় বিক্ষুব্ধ কর্মীরা তাঁকে পিটিয়ে হত্যা করে পালিয়ে যায়। এ সময় পুলিশের গাড়ি ও ভোটকেন্দ্রে অগ্নিসংযোগের চেষ্টা চালায় তারা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কয়েক রাউন্ড গুলি চালায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী। পরে রাত ১১টার দিকে পুলিশ এসে বিজিবি সদস্যের মরদেহ উদ্ধার করে।

প্রিজাইডিং অফিসার ললিত চন্দ্র রায় বলেন, হামলায় তিনি নিজে, একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, কয়েকজন পুলিশ, বিজিবি, আনসার সদস্যসহ অন্তত ২৫ জন আহত হন।

ঠাকুরগাঁও

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার খনগাঁও ইউনিয়নের ঘিডোব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ফল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ চলাকালে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর গুলিতে সাহাবলি হুসেন (৩৫) এবং মজাহারুল (৪০) নিহত হন। আহত হয়েছেন আরো ছয়জন।

লক্ষ্মীপুর

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে ইউপি নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র এলাকায় সহিংসতায় আহত হন ছাত্রলীগ নেতা সাজ্জাদ হোসেন সজিব। বিকেল ৫টার দিকে ঢাকায় নেওয়ার পথে তিনি মারা যান।

আগের রাতে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জের ভাদুর ইউনিয়ন থেকে পুলিশ স্থানীয় পৌর ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক শাহ আলম সিদ্দিকী জীবনসহ ৩১ জনকে দেশীয় অস্ত্রসহ আটক করে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন লক্ষ্মীপুর জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) এ এইচ এম কামরুজ্জামান।

ভোট শুরুর আগে খুলনার তেরখাদা উপজেলার মধুপুরে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থক বাবুল শিকদারের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার দিবাগত রাত সোয়া ১২টার দিকে ভোটের প্রচার চালানোর সময় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকরা তাঁকে হাতুড়িপেটা ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। পরে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও পরে অবস্থার অবনতি হলে ঢাকায় নেওয়ার পথে গতকাল ভোরে তাঁর মৃত্যু হয়।