• আজ বুধবার, ৫ মাঘ, ১৪২৮ ৷ ১৯ জানুয়ারি, ২০২২ ৷

আন্দোলন ‘আপাতত’ স্থগিত করল রামপুরার শিক্ষার্থীরা

student n3
❏ সোমবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২১ ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- পূর্বঘোষিত কর্মসূচি বাস্তবায়নে বৃষ্টির মধ্যেই রাজধানীর রামপুরা ব্রিজের ওপরে মুখে কালো কাপড় বেঁধে অবস্থান নিয়েছে সড়কে অব্যবস্থাপনার প্রতিবাদে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

আজ সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টায় অবস্থান নেয় তারা। এ সময় তাদের পরনে স্কুল ড্রেস আর মুখে কালো কাপড় বাধা ছিল।

নিরাপদ সড়কের ১১ দফা দাবিতে বেশ কয় দিন ধরে রামপুরায় এলাকায় অবস্থান নিয়ে প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

এর আগে সড়কে দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার প্রতিবাদে গত বৃহস্পতিবার পুলিশি বাঁধার পর থেকে একের পর এক কর্মসূচি দিয়ে আসছে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। এরপর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে লাল কার্ড প্রদর্শন। ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করে আন্দোলনকারীরা।

আজকের কর্মসূচি শেষে করার আগে খিলগাঁও মডেল কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী সোহাগী সামিয়া বৈরী আবহাওয়ার জন্য আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, বৈরি আবহাওয়ার কারণে আমরা আগামীকাল (মঙ্গলবার) কোনো কর্মসূচি রাখছি না। আমরা খোঁজ নিয়ে দেখেছি আরও কয়েকদিন এরকম বৈরি আবহাওয়া থাকবে। যতদিন পর্যন্ত এ বৈরি আবহাওয়া থাকবে ততদিন পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন স্থগিত থাকবে। তবে বৈরি আবহাওয়া কেটে গেলে আমরা আবার কর্মসূচি চালিয়ে যাব। সেক্ষেত্রে আমাদের কিছু সুনির্দিষ্ট কর্মসূচি আছে। একটি হচ্ছে মঈনুদ্দীনের স্কুল থেকে নাইমের কলেজ পর্যন্ত সাইকেল র‍্যালি করব। পরে নাইমের কলেজে আমরা মোমবাতি প্রজ্বলন করব। আরেকটি হচ্ছে আমরা ছাত্র-শিক্ষক সবাই মিলে একটি সমাবেশ করব।

আজকের মানববন্ধনের বিষয়ে এ শিক্ষার্থী বলেন, এই যে এতগুলো সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে কিন্তু প্রশাসন বরাবরই নীরব ভূমিকা পালন করছে। প্রশাসনের এ নীরবতার প্রতিবাদে আমরা আজ মুখে কালো কাপড় বেঁধে নীরব আন্দোলন পালন করছি।

শিক্ষার্থীরা কেন কালো কাপড় মুখে বেঁধে নেমেছে এমন প্রশ্নের জবাবে সোহাগী সামিয়া বলেন, প্রথম কারণ হচ্ছে আজ পর্যন্ত সড়কে যারা নিহত হয়েছেন দুর্ঘটনায় তাদের প্রতি শোক প্রকাশ করার জন্য আমরা কালো কাপড় বেঁধেছি। দ্বিতীয়টি হচ্ছে, সরকারের নীরব ভূমিকায় প্রতিবাদে আমরা আন্দোলন করছি।

তিনি বলেন, আমাদের দাবি আদায় না হওয়ার পর্যন্ত আন্দোলন করব। প্রয়োজন হলে আমরা আরও ২১ বছর আন্দোলন চালিয়ে যাব।