🕓 সংবাদ শিরোনাম

আমাদের যা আছে, তা দিয়েই সামনে এগিয়ে যাব: প্রধানমন্ত্রীএসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েও অর্থের অভাবে উচ্চ শিক্ষা অনিশ্চিত শুভ’রমহামারি এখনই শেষ হচ্ছে না, সৃষ্টি হতে পারে নতুন ভ্যারিয়েন্ট: টেড্রোসখাগড়াছড়িতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২নৌকা থেকে লাফিয়ে পালালো পাচারকারী, বিপুল আইস-ইয়াবা উদ্ধারশাবি উপাচার্যের বিরুদ্ধে যত অভিযোগ শিক্ষার্থীদেরমালয়েশিয়ায় প্রতারণার অভিযোগে নাবিস্কো ভাইয়া গ্রুপের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলনবিএনপি বহিষ্কার করলেও অন্য দলে যোগ দেব না: তৈমূরগ্লাস সুমনের মাদক কারবারের প্রধান সহযোগী গ্রেফতারমনোহরদীর দরগাহ মেলা শুরু, নজর কাড়ছে বড় মাছের বাজার

  • আজ বুধবার, ৫ মাঘ, ১৪২৮ ৷ ১৯ জানুয়ারি, ২০২২ ৷

নারী ভোগের বস্তু নয়, সহযোদ্ধা: প্রধানমন্ত্রী

pm n34n234
❏ বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ৯, ২০২১ জাতীয়, ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে আইন থাকলেও মানসিকতা ও দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, নারীদের ভোগের বস্তু হিসেবে দেখার সুযোগ নেই, দেখতে হবে সহযোদ্ধা হিসেবে।

বৃহস্পতিবার (৯ ডিসেম্বর) সকালে বেগম রোকেয়া দিবস ও বেগম রোকেয়া পদক-২০২১ প্রদান অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যোগ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেছেন।

রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে এবছরের বেগম রোকেয়া পদক প্রদান করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বাসটা হচ্ছে সবচেয়ে বড় জিনিস। বিশ্বাসটা করতে হবে। নারীরা শুধু ভোগের বস্তু না, নারীরা সহযোদ্ধা, সহযোগী। সহযাত্রায় চলতে হবে। সমান অধিকার দিতে হবে। এটাই হলো বাস্তবতা। সেভাবেই কাজ করতে হবে। সব জায়গায় নারী-পুরুষ সমানভাবে কাজ করছে বলেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এগিয়ে যাবে। ’

তিনি বলেন, নারীদের এগিয়ে যাবার পথে বাধা আসবেই, তারপরও স্বনির্ভর হয়ে নারীদের এগিয়ে যেতে হবে। আমরা ক্ষমতায় আসার পর নারীদের শিক্ষা অবৈতনিক করেছি। প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষক নিয়োগকালে ৬০ ভাগ নারী নেয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এতে শিক্ষায় নারীদের অংশগ্রহণ বেড়েছে। বাবা-মা’রা আশ্বস্ত হয়েছেন যে তাদের মেয়ের অন্তত একটা চাকরির ব্যবস্থা হয়েছে।

এছাড়াও কমিউনিটি ক্লিনিক করেছি যেখানে নারীদের অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে। পাশাপাশি ডিজিটাল সেন্টারগুলোতে নীতিমালা করা হয়েছে যে একজন নারী ও একজন পুরুষ উদ্যোক্তা থাকতেই হবে। এমনকি আশ্রয়ণ প্রকল্পে যেসব পরিবারকে ঘর দেয়া হয়েছে তাদের মাঝে যদি কখনো বিচ্ছেদ হয়ে যায় তাহলে সেই ঘরের মালিকানা পাবে পরিবারের নারী সদস্য। এভাবেই আমরা নারীদের অগ্রগতিতে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছি।

নারীদের সমঅধিকারের বিষয়ে তিনি বলেন, আমাদের ইসলাম ধর্মে নারীদের সমান অধিকারের নিশ্চয়তা দেয়া হয়েছে। তারপরও আমাদের দেশে বিভিন্ন ধরনের বাধা আসে। তবুও এগিয়ে যেতে হবে। বাধা তো আসবেই। একবার সামনে এগিয়ে যেতে পারলে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হবে না।

এ প্রসঙ্গে প্রবল বাধার মুখেও দেশে নারীদের ফুটবল চালুর কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘খেলাধুলায় মেয়েদের তো অংশ গ্রহণই করতে দিত না। যাই হোক দ্বিতীয় বার যখন সরকারে আসলাম, অন্যভাবে ব্যবস্থা নিতে হয়েছে। আমরা প্রাথমিক থেকে স্কুলে স্কুলে প্রতিযোগিতা শুরু করলাম বঙ্গমাতা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ফুটবল টিম এবংমাধ্যমিক থেকে উচ্চ পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ফুটবল টিম। এভাবে ছোটবেলা থেকে যখন খেলা শুরু করল, এখন আর সেই বাধাটা আসে না। ’ ‘অর্থাৎ অচলায়তন ভেঙে একবার এগিয়ে যেতে পারলে আর কোন বাধা আসবে না। ’

নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে চিন্তা-চেতনা পরিবর্তনের আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এখন যে জিনিসটা সবচেয়ে আমাদের জন্য পীড়াদায়ক সেটা হচ্ছে মেয়েদের ওপর সহিংসতা। যদিও আমরা আইন করে দিয়েছি। আমরা ধর্ষণের বিরুদ্ধে আইন করেছি, আমরা নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে আইন করেছি। ’

‘শুধু আইন করলে হবে না, এখানে মানসিকতাও বদলাতে হবে। চিন্তা-চেতনার পরিবর্তন আনতে হবে। ’