• আজ মঙ্গলবার, ৪ মাঘ, ১৪২৮ ৷ ১৮ জানুয়ারি, ২০২২ ৷

ঠাকুরগাঁওয়ের পর এবার বরগুনা থেকে উদ্ধার হলো বিরল প্রজাতির শকুন

বিরল প্রজাতির শকুন
❏ শুক্রবার, ডিসেম্বর ১০, ২০২১ দেশের খবর

বরগুনা প্রতিনিধিঃ  বরগুনার তালতলীর ধানক্ষেত থেকে একটি বিরল প্রজাতির শকুন উদ্ধার করেছেন স্থানীয়রা। গ্রামবাসী এমন শকুন আগে দেখেননি এবং বিরল প্রজাতি বলে মনে করছেন।

এর আগে উত্তরের জেলা শহর ঠাকুরগাঁও থেকেও উদ্ধার হয়েছিলো প্রায় একই প্রজাতির শকুন।

গতকাল (বৃহস্পতিবার) সন্ধ্যার আগে উপজেলার সোনাকাটা ইউনিয়নের কবিরাজপাড়া ধানক্ষেতে দাঁড়িয়ে থাকা শকুনটিকে উদ্ধার করেন তারা। ভালোভাবে উড়তে না পারায় স্থানীয়রা শকুনটিকে বন বিভাগের নিকট হস্তান্তর করে।

বিরল প্রজাতির শকুন দেখা গেছে শুনে গ্রামের শত শত মানুষ একনজর দেখার জন্য ভিড় করেন।

স্থানীয়রা জানান, গতকাল সন্ধ্যার পূর্বে তারা ধানক্ষেতে বিরল প্রজাতির একটি শকুন দেখতে পান। পরে গ্রামবাসীর সম্মিলিত প্রচেষ্টায় শকুনটি তারা উদ্ধার করে বন বিভাগের কাছে হস্তান্তর করেন।

তালতলী বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, লোকালয়ের ধানক্ষেত থেকে স্থানীয়রা শকুনটিকে উদ্ধার করে আমাদের অফিসে নিয়ে আসে। শকুনটি অসুস্থ হওয়ায় আকাশে উড়তে পারছে না। চিকিৎসা দিয়ে দ্রুত সুস্থ করে অবমুক্ত করা হবে।

উল্লেখ্য, চলতি মাসেই ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার লেহেম্বা ইউনিয়নের পদমপুর গ্রামের ধানক্ষেতের মাঠ থেকে একটি বিরল প্রজাতির শকুন উদ্ধার করা হয়।

বৃহস্পতিবার (০২ ডিসেম্বর) সকাল ১০টার দিকে গ্রামবাসিরা ওই মাঠে দাঁড়িয়ে থাকা শকুনটিকে দেখতে পায়। তারা প্রায় আধঘন্টা ধরে শকুনটিকে ধাওয়া করে ধরে রিক্সাভ্যানযোগে উপজেলা চত্বরে নিয়ে আসে। উপজেলা চত্বরে এসে শকুনটি অসুস্থ হয়ে পড়ে। ধারণা করা হচ্ছে দলছুট শকুনটি পার্শ্ববর্তী সীমান্ত পার হয়ে অভূক্ত ও ক্লান্ত অবস্থায় ওই মাঠে নেমেছিল।

খবর পেয়ে ইউএনও সোহেল সুলতান জুলকার নাইন তাৎক্ষণিকভাবে বিভাগীয় বন কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করে উপজেলা বন কর্মকর্তাকে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে বলেন।

বন কর্মকর্তা শাহজাহান আলী জানান, “শকুনটিকে প্রাথমিক চিকিৎসা ও খাদ্য দেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে বীরগঞ্জের সিংড়া ফরেস্ট-বীটের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। অতিসত্বর শকুনটিকে সংরক্ষণের জন্য সেখানে পাঠানো হবে।