• আজ মঙ্গলবার, ২১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ৬ ডিসেম্বর, ২০২২ ৷

কোটালীপাড়ায় মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করলো জ্ঞানের আলো পাঠাগার

জ্ঞানের আলো পাঠাগার
❏ শুক্রবার, ডিসেম্বর ১০, ২০২১ ঢাকা, দেশের খবর

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধিঃ গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে জ্ঞানের আলো পাঠাগার। সংগঠনটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে সড়ক দূর্ঘটনায় গুরুতর আহত শিশু হালিমা (৬) ও তার পিতা হাফিজুর রহমানের চিকিৎসার অর্থ সংগ্রহ করে।

সংগৃহীত অর্থ দিয়ে তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়। চিকিৎসা শেষে অবশিষ্ট ৪৭ হাজার ৮৮৯ টাকা হালিমার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে জ্ঞানের আলো পাঠাগার।

আজ বৃহস্পতিবার উপজেলা পরিষদ হলরুমে জ্ঞানের আলো পাঠাগারের পক্ষে হালিমার পরিবারের হাতে ৪৭ হাজার ৮৮৯ টাকা তুলে দেওয়া হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফেরদৌস ওয়াহিদ প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে হালিমার পিতা হাফিজুর রহমানের হাতে এ অর্থ তুলে দেন।

এ সময় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সুশান্ত বৈদ্য, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাহবুবুর রহমান, উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার মোঃ জসিম উদ্দিন, উপজেলা ফায়ার স্টেশনের ইনচার্জ নজরুল ইসলাম, উপজেলা শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সরওয়ার হোসেন তালুকদার উপস্থিত ছিলেন।

জ্ঞানের আলো পাঠাগারের সভাপতি সুশান্ত মন্ডল বলেন, জ্ঞানের আলো পাঠাগারের নিজস্ব ফেসবুক পেজে হালিমা ও তার বাবার চিকিৎসার জন্য অর্থ সহায়তা চেয়ে পোস্ট দেওয়া হয়। এ পোস্টে সাড়া দিয়ে অনেক হৃদয়বান মানুষ এগিয়ে আসে। সংগ্রহ হয় ১ লক্ষ ১২ হাজার ৮৮৯ টাকা। এই টাকা দিয়ে ঢাকায় শেখ হাসিনা বার্ণ ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনষ্টিটিউট ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রায় ৬ মাস ধরে হালিমা ও তার পিতা হাফিজুর রহমানের চিকিৎসা করা হয়। এই চিকিৎসায় খরচ হয় ৬৫ হাজার টাকা। অবশিষ্ট ৪৭ হাজার ৮৮৯ টাকা আজ হালিমার পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

হালিমার পিতা হাফিজুর রহমান বলেন, জ্ঞানের আলো পাঠাগার এগিয়ে না এলে আমাদের চিকিৎসা করানো সম্ভব ছিল না। পাঠাগারটির সদস্যদের সহযোগিতায় আমি ও আমার মেয়ে আজ সুস্থ। আমি সংগঠনটির সব সদস্য ও যারা আর্থিক সহায়তা করেছেন তাদের ধন্যবাদ জানাই।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, জ্ঞানের আলো পাঠাগার সবসময় অসহায় মানুষের পাশে থেকে সার্বিক সহযোগিতা করে আসছে। মানবতার সেবায় জ্ঞানের আলো পাঠাগার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।