🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ শুক্রবার, ১৪ মাঘ, ১৪২৮ ৷ ২৮ জানুয়ারি, ২০২২ ৷

ফখরুলের কাছে “একগুচ্ছ প্রশ্নের উত্তর খুজছেন” ওবায়দুল কাদের

বিএনপি-আঃ লীগ
❏ শনিবার, ডিসেম্বর ১১, ২০২১ ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: সাম্প্রতিক সময়ে রাজনৈতিক শিষ্টাচার, মানবিকতা ইত্যাদি প্রসঙ্গ নিয়ে বিএনপি মহাসচিবের বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে “একগুচ্ছ প্রশ্নের উত্তর খুজছেন” আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার সকালে নিজ বাসভবনে ব্রিফিংকালে ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসাকে ইস্যু বানিয়ে দেশকে অস্থিতিশীল করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করাই বিএনপির উদ্দেশ্য।

এসময় তিনি অভিযোগ করে বলেন, “খালেদা জিয়ার জন্য বিএনপি নেতারা এখন মায়া কান্না করছেন অথচ তাঁর মুক্তি ও চিকিৎসার জন্য চোখে পড়ার মতো একটি মিছিলও তারা করতে পারেনি।

সাম্প্রতিক সময়ে খালেদা জিয়ার চিকিৎসাসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের নানা অভিযোগের প্রেক্ষিতে রাজনৈতিক ইতিহাস থেকে নানা প্রশ্ন ছুড়ে দেন ওবায়দুল কাদের। এসময় তিনি এসব প্রশ্নের উত্তর দেবার আহবানও জানান বিএনপি মহাসচিবের প্রতি।

যেসব “প্রশ্নের উত্তর” চাইছেন ওবায়দুল কাদের: 

এ দেশের রাজনীতিতে কে মানবিকতার নজির স্থাপন করেছেন? আর কারা রাজনীতিতে শিষ্টাচারহীনতা, অশালীনতার চর্চা করে যাচ্ছে বিএনপি মহাসচিবের কাছে তা জানতে চেয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, “২১ আগস্ট রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে চেয়েছিল বিএনপি, অথচ তখন সংসদে দাঁড়িয়ে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম জিয়া বলেছিলেন গ্রেনেড নাকি শেখ হাসিনা ভ্যানিটি ব্যাগে করে নিয়ে গিয়েছিলেন। এই বক্তব্য কোন সভ্য দেশের নেতার বক্তব্য ছিল” ?

বিএনপি মহাসচিব প্রধানমন্ত্রীর যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে প্রদত্ত বক্তব্যের সমালোচনা করে বলেছেন কোনো সভ্য দেশের নেতার এমন বক্তব্য নাকি আশা করা যায় না। এ কথা বলার আগে আয়নায় নিজের চেহারা দেখার অনুরোধ করছি উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন,

“২০১৫ সালে বিএনপি প্রধানের ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুতে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে সমবেদনা জানাতে তাঁর বাসায় গিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু দরজা না খোলায় সরকারপ্রধানকে খালেদা জিয়ার বাসার সামনে থেকে ঘুরে আসতে হয়। সন্তানের মৃত্যুর পর বেগম জিয়াকে সান্ত্বনা দিতে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা যখন গিয়েছিলেন, তখন তারা দরজা বন্ধ করে দিয়েছিলেন- সেই অমানবিক ও অসভ্য আচরণ কোন সভ্য দেশের একটি রাজনৈতিক দলের প্রধান করতে পারেন? এর জবাব কি দিবেন বিএনপি মহাসচিব” ?

“গণভবনে চায়ের আমন্ত্রণের বিপরীতে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ কোন সভ্য দেশের একজন দলপ্রধান করতে পারেন? তার জবাবও কি বিএনপি মহাসচিব দিবেন?”।

বিএনপি মহাসচিবকে নিজের দিকে তাকানোর অনুরোধ জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, “সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে জনগণের ভোটের সঙ্গে প্রতারণা করে যিনি সংসদে যান না, অথচ তার দল সংসদে- এমন দ্বিচারিতার রাজনীতি কে করেছে? কোন সভ্য দেশের রাজনৈতিক দল করতে পারে?”।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, “বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মূল কারিগর এবং বেনিফিশিয়ারি যারা, যারা শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা করলো, গ্রেনেড হামলা চালালো, ১৫ আগস্ট জন্মদিন না হওয়া সত্ত্বেও বেগম জিয়ার ভুয়া জন্মদিন পালন করে শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের অনুভূতিতে আঘাত করলো যারা, সেই দল বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম জিয়ার জন্য মানবাধিকার সর্বোচ্চ নজির দেখিয়েছেন”।

ওবায়দুল কাদের প্রশ্ন রেখে বলেন, “জিয়াউর রহমান ও বেগম জিয়ার শাসনামলে কোনো দণ্ডিত, সাজাপ্রাপ্ত আসামি এ ধরনের কোনো সুযোগ পেয়েছেন কি? অথবা তাদের শাসনামলে বিরোধী দলের কেউ এমন সুযোগ পেয়েছেন, এ ধরনের কোনো নজির তারা দেখাতে পারবেন কি?”

বিএনপি মহাসচিবের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, “তাহলে বলুন এদেশের রাজনীতিতে কে মানবিকতার স্থাপন করেছেন? আর কারা রাজনীতিতে শিষ্টাচারহীনতা, অশালীনতার চর্চা করে যাচ্ছে।”

আরও পড়ুন :

‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে আপনার রেহাই নেই’ প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে রিজভি