• আজ শুক্রবার, ৭ মাঘ, ১৪২৮ ৷ ২১ জানুয়ারি, ২০২২ ৷

যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা কূটনৈতিক শিষ্টাচার লঙ্ঘন: তথ্যমন্ত্রী

hasan-mahmud-
❏ রবিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০২১ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে র‌্যাবের সাবেক ও বর্তমান সাত কর্মকর্তার ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘটনাকে কূটনৈতিক শিষ্টাচার লঙ্ঘন বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেছেন, এ ঘটনায় কূটনৈতিক শিষ্টাচার লঙ্ঘিত হয়েছে। এ বিষয়ে কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছে সরকার।

আজ রোববার সচিবালয়ে তথ্য অধিদপ্তরের উদ্যোগে করা ‘মা ও শিশু’ সংকলনের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘যেভাবে র‍্যাবের কর্মকর্তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে এটা অনভিপ্রেত, দুঃখজনক ও অগ্রহণযোগ্য। এ জন্য সরকারের পক্ষ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতকে তলব করে সরকার কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছে। মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে তলবের ঘটনা দেশে আগে ঘটেছি কিনা, সাম্প্রতিক সময়ে ঘটেনি।’

তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের অত্যন্ত চমৎকার সম্পর্ক। যুক্তরাষ্ট্র আমাদের উন্নয়ন সহযোগী এবং নানাভাবে আমাদের জাতির অগ্রগতিতে সহযোগিতা করে আসছে। সন্ত্রাসবাদ-জঙ্গি দমনে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের ট্যাকটিক্যাল (কৌশলগত) সহযোগিতা রয়েছে। তাদের সেই সহযোগিতা নিয়েই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীগুলো উপকৃত হয়েছে।

‘যুক্তরাষ্ট্র আমাদের বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্র। উন্নয়ন সহযোগী। আমরা আশা করছি, এক্ষেত্রে তারা আমাদের দেশের সেন্টিমেন্ট অনুধাবন করতে সমর্থ হবে। কারণ কোনো ধরনের যোগাযোগ ছাড়া হঠাৎ করে এভাবে নিষেধাজ্ঞা আরোপ কূটনৈতিক শিষ্টাচার মেনে হয়েছে কিনা, কূটনৈতিক শিষ্টাচার লংঘিত হয়েছে বলে আমরা মনে করি।’

এ সময় যুক্তরাষ্ট্রের অভ্যন্তরে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনাও তুলে ধরেন মন্ত্রী হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের অভ্যন্তরে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়। তাদের নিরাপত্তা বাহিনীগুলো ক্রমাগতভাবে বছরের পর বছর মানবাধিকার লঙ্ঘন করে। তাদের হেফাজতে যে মৃত্যু হয় সেগুলো নিয়ে বিশ্বব্যাপী সমালোচনা রয়েছে। গুয়ানতানামো বে-তে বন্দিদের ওপর নির্যাতন করা হয় সেগুলো নিয়ে বহু প্রতিবেদন বিশ্বব্যাপী প্রকাশিত হয়েছে, সেটি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিবাদ হয়েছে।

‘ট্রাম্প প্রশাসনের সময় অভিবাসীরা যখন সীমান্ত পার হওয়ার চেষ্টা করেছে, তখন মা-বাবার কাছ থেকে যেভাবে শিশুদের আলাদা করে রাখা হয়েছে, সেটি অন্য কোনো দেশে হয়েছে বলে আমার জানা নেই। সে নিয়ে বিশ্বব্যাপী প্রতিবাদ হয়েছে। ফ্লয়েডকে দিনের বেলা গলায় পা দি চেপে ধরে হত্যা করা হয়েছে। এমন ঘটনা বাংলাদেশে ঘটেনি।’