🕓 সংবাদ শিরোনাম

আমাদের যা আছে, তা দিয়েই সামনে এগিয়ে যাব: প্রধানমন্ত্রীএসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েও অর্থের অভাবে উচ্চ শিক্ষা অনিশ্চিত শুভ’রমহামারি এখনই শেষ হচ্ছে না, সৃষ্টি হতে পারে নতুন ভ্যারিয়েন্ট: টেড্রোসখাগড়াছড়িতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২নৌকা থেকে লাফিয়ে পালালো পাচারকারী, বিপুল আইস-ইয়াবা উদ্ধারশাবি উপাচার্যের বিরুদ্ধে যত অভিযোগ শিক্ষার্থীদেরমালয়েশিয়ায় প্রতারণার অভিযোগে নাবিস্কো ভাইয়া গ্রুপের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলনবিএনপি বহিষ্কার করলেও অন্য দলে যোগ দেব না: তৈমূরগ্লাস সুমনের মাদক কারবারের প্রধান সহযোগী গ্রেফতারমনোহরদীর দরগাহ মেলা শুরু, নজর কাড়ছে বড় মাছের বাজার

  • আজ বুধবার, ৫ মাঘ, ১৪২৮ ৷ ১৯ জানুয়ারি, ২০২২ ৷

করোনার সুনামি আসন্ন, ভেঙে পড়বে স্বাস্থ্যব্যবস্থা: ডব্লিউএইচও

corona n
❏ বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ৩০, ২০২১ আন্তর্জাতিক, ফিচার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- করোনাভাইরাসের দুই ধরন ওমিক্রন আর ডেল্টা বিশ্বজুড়ে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণের যে ‘সুনামি’ বইয়ে দিয়েছে, তাতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান।

তিনি বলেছেন, “এই বিপুল সংক্রমণ ভয়ঙ্কর চাপ সৃষ্টি করছে, স্বাস্থ্যকর্মীদের বিপর্যস্ত করে ফেলছে। স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়ার দশা তৈরি হচ্ছে।”

যুক্তরাষ্ট্র আর ইউরোপজুড়ে এক দিনে রেকর্ড নতুন রোগী শনাক্তের খবরের মধ্যেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মহাপরিচালক তেদ্রোস আধানম গেব্রিয়েসুসের এই শঙ্কিত ভাষ্য এল।

বিবিসি জানিয়েছে, ফ্রান্সে টানা দ্বিতীয় দিনের মত ইউরোপের রেকর্ড রোগী শনাক্ত হয়েছে বুধবার, এক দিনেই সংক্রমণ ধরা পড়েছে দুই লাখ হাজার মানুষের মধ্যে।

আর জনস হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে গত এক সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে ২ লাখ ৬৫ হাজার ৪২৭ জন কোভিড রোগী শনাক্ত হয়েছে, যা এ যাবৎকালের রেকর্ড।

ডেনমার্ক, পর্তুগাল, যুকতরাজ্য আর অস্ট্রেলিয়াতেও বুধবারের শনাক্ত রোগীর সংখ্যা আগের রেকর্ড ভেঙে ফেলেছে। পোল্যান্ডে এক দিনেই মৃত্যু হয়েছে ৭৯৪ জন কোভিড রোগীর। সংক্রমণের চতুর্থ ঢেউয়ে সেখানে এটাই এক দিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু। বুধবার দেশটিতে যারা মারা গেছেন, তাদের তিন চতুর্থাংশই কোভিড টিকার বাইরে ছিলেন।

মাত্র এক মাস সময়ের মধ্যে বিশ্বের বহু দেশে প্রাধান্য বিস্তার করা করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনটি আগের ভ্যারিয়েন্ট ডেল্টার চেয়ে কম গুরুতর অসুস্থতার ঝুঁকি তৈরি করে বলে প্রাথমিক গবেষণায় তথ্য এসেছে। কিন্তু দুই ডোজ টিকা এ ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দিতে পারছে না বলে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে বিদ্যুৎগতিতে, যা দিয়ে উদ্বিগ্ন বিশেষজ্ঞ এবং স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা।

ফ্রান্সের স্বাস্থ্যমন্ত্রী অলিভার ভেরান বলেছেন, ওমিক্রন যা ঘটাচ্ছে, তাকে আর সংক্রমণের ঢেউ বলা চলে না, এটা রীতিমত ‘জলোচ্ছ্বাসে’ পরিণত হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক অবশ্য কেবল ওমিক্রনের কথা বলছেন না। সাথে ডেল্টাকে যুক্ত করে তিনি একে বলছেন ‘জোড়া হুমকি’।

রয়টার্সের হিসাব বলছে, এখন প্রতিদিন বিশ্বে গড়ে নয় লাখ নতুন কোভিড রোগী শনাক্তের খবর আসছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেডরস আধানম গ্রেব্রিয়াসাস এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘ডেল্টা ও ওমিক্রন জোড়া হুমকি হিসেবে কাজ করছে। এর জেরে হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাচ্ছে। মৃত্যুর সংখ্যা বাড়তে পারে হু হু করে। ওমিক্রন ও ডেল্টা সংক্রমণ আছড়ে পড়তে পারে সুনামির মতো। এর ফলে গোটা স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়তে পারে।’

এ অবস্থায় বিশ্বের ধনী দেশগুলোর বুস্টার ডোজ দেওয়ার প্রবণতা গরিব ও নিম্ন আয়ের দেশগুলোকে সংকটে ফেলছে বলে সর্তক করেন তিনি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ১৯৪টি সদস্য রাষ্ট্রের মধ্যে ৯২ দেশের ৪০ শতাংশ নাগরিককেও টিকা দেয়া হয়নি। টেড্রোস আহ্বান জানান, দেশগুলো নতুন বছরের জুলাইয়ের আগেই যাতে ৭০ শতাংশ নাগরিককে টিকা দিতে পারে, সে ব্যবস্থা নিতে।

ডব্লিউএইচওর তথ্যে, গত সপ্তাহের থেকে এ সপ্তাহে বিশ্বব্যাপী করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে ১১ শতাংশ।

পুরো ইউরোপে করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়ায় জার্মানিতে সামাজিক মেলামেশার ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে। বড়দিনের পর সামাজিক অনুষ্ঠান উদযাপনেও সীমাবদ্ধতা দিয়েছিল দেশটি।

পর্তুগালেও ২৬ ডিসেম্বর থেকে নাইট ক্লাব ও বার বন্ধ রাখা হয়েছে।

সুইডেনে ক্যাফে ও বারে লোকসমাগম কমিয়ে আনার পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। পেশাজীবীদের বাসায় থেকে কাজ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।