🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ শনিবার, ৭ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ ৷ ২১ মে, ২০২২ ৷

বেলকুচিতে আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিবন্ধী পেলেন রঙিন ঘর ও ছাগল

ঘর বিতরণ
❏ রবিবার, মার্চ ৬, ২০২২ দেশের খবর, রাজশাহী

উজ্জ্বল অধিকারী, বেলকুচি (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি: অবশেষে নতুন রঙিন ঘর ও তিনটা ছাগল পেলেন সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের ঠাকুর পাড়ার নুরুল ইসলাম। স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘দ্য বার্ড সেফটি হাউসের উদ্যোগে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন কানাডা প্রবাসী জাকির হোসেন ও তার বন্ধুরা।

রবিবার (৬ মার্চ) সকাল ১০টার দিকে প্রতিবন্ধী নুরুল ইসলামের কাছে ঘরটি হস্তান্তর করেন বেলকুচি উপজেলা নির্বাহী অফিসার আনিসুর রহমান, যমুনা টিভির সিনিয়র রিপোর্টার গোলাম মোস্তফা রুবেল, দ্য বার্ড সেফটি হাউসের চেয়ারম্যান ও স্বেচ্ছাসেবী সমাজকর্মী মামুন বিশ্বাস, সাংবাদিক পারভেল আলি, সেচ্ছাসেবক সুজন ও সাদেক আলী।

এর আগে গত (২৭ ফেব্রুয়ারি) রাতে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে লাগা আগুনে পুড়ে যায় প্রতিবন্ধী নুরুল ইসলামের থাকার একমাত্র ঘরসহ সবকিছু। এরপর থেকেই অন্যের বাড়িতে রাত কাটাচ্ছিলেন তারা।

বিষয়টি ভাইরাল হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নজরে আসে স্বেচ্ছাসেবী ও সমাজকর্মী মামুন বিশ্বাসের। এর পরিপ্রেক্ষিতে তিনি কানাডা প্রবাসী জাকির ভাইকে বিষয়টি জানান। কানাডা প্রবাসী জাকির হোসেন ও তার বন্ধুরা মিলে প্রতিবন্ধী নুরুলের জন্য মামুন বিশ্বাসের কাছে ৮১ হাজার ৪০০ টাকা ব্যাংকে পাঠান। ঘরের পাশাপাশি তাদের দেওয়া হয়েছে তিনটা ছাগল, লেপ-তোশক, থাকার চৌকি, পোশাক ও কাঁচাবাজারসহ সাড়ে সাত হাজার টাকা।

নতুন রঙিন ঘর পাওয়ার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে নুরুল ইসলাম বলেন, আমি এমনিতেই অনেক কষ্ট করে সংসার চালাতাম। তার ওপর আগুনে ঘরসহ সবকিছু পুড়ে ছাই হয়ে যায়। স্বপ্নেও কল্পনা করতে পারিনি যে আমি নতুন রঙিন ঘর পাব। তাও আবার এত তাড়াতাড়ি। শুধু ঘর নয়, ছাগল সহ আরো অনেক কিছু পেয়েছি। আমি খুব খুশি হয়েছি। যতদিন বেঁচে থাকব, কানাডা প্রবাসী জাকির হোসেন ও তার বন্ধুদের জন্য দোয়া করব।

দ্য বার্ড সেফটি হাউসের চেয়ারম্যান ও সমাজকর্মী মামুন বিশ্বাস জানান, আগুনে ঘর পুড়ে যাওয়ার খবর পেয়ে বিস্তারিত কানাডা প্রবাসী জাকির ভাই ও তার বন্ধুরা মিলে প্রতিবন্ধী নুরুলের জন্য মামুন বিশ্বাসের কাছে ৮১ হাজার ৪০০ টাকা ব্যাংকে পাঠান। সেই টাকা দিয়েই খুব দ্রুত ঘর নির্মাণকাজ শেষ করে আজ তাকে ঘরটি বুঝিয়ে দিলাম।

তিনি আরও বলেন, আমরা সবাই যদি যার যার অবস্থান থেকে এগিয়ে আসি, তাহলে আমাদের সমাজে কোনো মানুষ অবহেলিত থাকবে না। আমাদের সবাইকে সমাজের কল্যাণে এগিয়ে আসা দরকার। আমি শুধু চেষ্টা করি, ফেসবুক বন্ধুরা এগিয়ে আসে বলেই প্রতিটি মানবতার কাজে জয় হয়।

বেলকুচি উপজেলা নির্বাহী অফিসার আনিসুর রহমান বলেন, সরকারের পাশাপাশি এরকম সামাজিক সংগঠন আছে বলেই সমাজের অসহায় মানুষগুলো উপকৃত হচ্ছে। আজ এই অসহায় পরিবারকে যে সহায়তা দেয়া হয়েছে তা দেখে আমি অনেক খুশি। আমরা সরকারীভাবে কিছু সহায়তা দেবো। সমাজের বৃত্তবানরা যদি এভাবে অসহায় মানুষের পাশে দাড়ায় তাহলে সমাজের চিত্র পরিবর্তন হবে।