• আজ বুধবার, ১১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ ৷ ২৫ মে, ২০২২ ৷

দেশের প্রত্যেকটি ঘর আলোকিত, এটাই সরকারের বড় সাফল্য: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী
❏ সোমবার, মার্চ ২১, ২০২২ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ পায়রায় দেশের সবচেয়ে বড় এবং অত্যাধুনিক তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র উদ্বোধনের মাধ্যমে দেশকে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনার সাফল্য তুলে ধরে বলেছেন, মুজিববর্ষে দেশের প্রত্যেকটি ঘর আলোকিত করেছে সরকার, এটাই সব থেকে বড় সাফল্য।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী এবং মুজিববর্ষে বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষের ঘরে আমরা আলো জ্বালাতে পারলাম এটাই হচ্ছে সব থেকে বড় কথা। আমরা আলোকিত করেছি এদেশের প্রত্যেকটি মানুষের ঘরকে।’

তিনি আজ এখানে একটি অনুষ্ঠানে ১৩শ’ ২০ মেগাওয়াট পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের নামফলক উন্মোচনের মাধ্যমে পরিবেশ বান্ধব আল্ট্রা-সুপারক্রিটিকাল প্রযুক্তিসহ কয়লাভিত্তিক এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উদ্বোধন করেন।

পরিবেশবান্ধব আল্ট্রা-সুপারক্রিটিক্যাল প্রযুক্তির সাহায্যে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু করার মাধ্যমে, বাংলাদেশ ‘মুজিব বর্ষে’ দেশকে শতভাগ বিদ্যুৎ কভারেজের আওতায় আনার সরকারের অঙ্গীকার বাস্তবায়ন করে আরেকটি মাইলফলক অর্জন করেছে।

কোভিড-১৯ মহামারীর প্রাদুর্ভাবে বাংলাদেশসহ সমগ্র বিশ্ব থমকে যাওয়ার পর এটিই প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগতভাবে প্রথম কোনো উন্নয়ন প্রকল্পে সশরীরে সফর।

’৭৫ পরবর্তী সরকারগুলোর এদেশকে এগিয়ে নেয়ায় কোন আন্তরিকতাই ছিল না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ২০০৯ সালে সরকার গঠনের পর থেকে ২০২২ সাল এই দীর্ঘ সময় সরকারে থাকতে পেরেছি সেজন্য কৃতজ্ঞতা জানাই বাংলাদেশের জনগণের প্রতি। ভোট দিয়ে আমাদেরকে তাঁরা নির্বাচিত করেছেন।

শেখ হাসিনা বলেন, এই ১৩ বছর একটানা গণতান্ত্রিক পদ্ধতি অব্যাহত রয়েছে, এরমধ্যে ঝড় ঝঞ্ঝা অনেক এসেছে, বাধা অনেক এসেছে কিন্তু সেগুলো আমরা অতিক্রম করেছি। এগুলো অতিক্রম করেও আমরা গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে পেরেছি বলেই আজকে বাংলাদেশ উন্নয়নের মহাসড়কে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটি যুদ্ধ বিধ্বস্থ দেশ গড়ে তুলে জাতির পিতা একে স্বল্পোন্নত দেশের পর্যায়ে রেখে গিয়েছিলেন আজকে সেই বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে। তিনি বলেন, ওয়াদা করেছিলাম প্রতিটি মানুষের ঘরকে আলোকিত করবো, প্রতিটি মানুষ আলোকিত হবে, সেই আলোর পথে আমরা যাত্রা শুরু করেছি। আজকের দিনটা সেই আলোর পথে যাত্রা শুরু যে সফল হয়েছে সেই দিন। এজন্য সবাইকে তিনি সহযেগিতার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মুজিববর্ষ, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং সামনে রোজা ও ঈদ। এই রোজা-ঈদ সবকিছু সামনে রেখে এই তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র আপনাদেরকে উপহার দিয়ে গেলাম।’

খুনি আর যুদ্ধাপরাধীরা আর কখনও এ দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে খেলতে পারবে না বলেও মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘মানুষ আজকে নিজেই জেগেছে, উঠে দাঁড়িয়েছে এবং এগিয়ে যাবে। এগিয়ে যাব আমরা ভবিষ্যতের দিকে, যাতে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম একটি সুন্দর জীবন পায়, উন্নত জীবন পায়। সুন্দরভাবে দেশের মানুষ বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে চলতে পারে।

‘সেইভাবে আমরা বাংলাদেশকে গড়ে তুলব এবং গড়ে তুলছি। আমরা অনেক দূর এগিয়েছি, সামনে আরও অনেক পথ আমাদের যেতে হবে। ইনশাল্লাহ এই চলার গতি আর কেউ থামাতে পারবে না।’