• আজ বুধবার, ১১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ ৷ ২৫ মে, ২০২২ ৷

কাল রংপুরসহ দেশের ৮টি শিল্পকলা একাডেমির উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

Rangpur Pm Shilpokola News
❏ মঙ্গলবার, এপ্রিল ১২, ২০২২ রংপুর

সাইফুল ইসলাম মুকুল,স্টাফ করেসপেন্ডন্ট (রংপুর):  রংপুরের নবনির্মিত অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত জেলা শিল্পকলা একাডেমির উদ্বোধন হতে যাচ্ছে আগামীকাল বুধবার । সকাল ১১টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে রংপুরসহ দেশের ৮টি শিল্পকলা একাডেমির উদ্বোধন করবেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটিতে গণভবন ছাড়াও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তন ও নারায়ণগঞ্জ, জামালপুর, মৌলভীবাজার, পাবনা, কুষ্টিয়া, খুলনা, মানিকগঞ্জ ও রংপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিবর্গ ও শিল্পীরা সংযুক্ত থাকবেন।

ইতোমধ্যে রংপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি ভবন উদ্বোধনের প্রস্তুতিমূলক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক গোলাম রব্বানী ও শিল্পকলা একাডেমির কালচারাল অফিসার নুঝাত তাবাসসুম রিমুসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা নবনির্মিত ভবনটি পরিদর্শন করেন। এর আগে গত মার্চ মাসে রংপুর সফরে এসে নবনির্মিত শিল্পকলা একাডেমি ভবনটি পরিদর্শন করেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ।

এদিকে উদ্বোধনের আগেই এক সময়ে অযত্ন-অবহেলায় পড়ে থাকা শিল্পকলা একাডেমি চত্বরের চেহারা বদলে গেছে। নতুন ভবন ঘিরে মুখরিত হয়ে উঠেছে সংস্কৃতিপল্লীখ্যাত টাউন চত্বর। দিন যতই যাচ্ছে চত্বরে ততই বাড়ছে সংস্কৃতি অনুরাগীদের আনাগোনা। সকাল থেকে রাত অবধি চলছে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড। যেন নতুন শিল্পকলা একাডেমিকে ঘিরে উজ্জীবিত এখানকার সংস্কৃতি কর্মীরা।

জানা গেছে, সাংস্কৃতিক আন্দোলন ও চর্চার উর্বর ভূমি হিসেবে পরিচিত রংপুরে ২৭ কোটি ২৬ লাখ টাকা ব্যয়ে বিভাগীয় এই শহরে জেলা শিল্পকলা একাডেমির নতুন ভবনটি নির্মাণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে নির্মাণ কাজও শেষ হয়েছে। পাঁচতলা বিশিষ্ট অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত এই শিল্পকলা একাডেমির উদ্বোধন ঘিরে আনন্দে উদ্বেলিত এখানকার শিল্পী-কলাকুশলী ও সংগঠকরা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, রংপুর মহানগরীর প্রাণকেন্দ্রে টাউন চত্বরে পুরাতন শিল্পকলা একাডেমি ভবনের পাশেই প্রায় ৪৫ শতাংশ জমির ওপর নির্মাণ করা হয়েছে অত্যাধুনিক শিল্পকলা একাডেমি ভবনটি। ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে নির্মাণ কাজ শুরু হবার কথা থাকলেও বরাদ্দ দেরিতে আসায় প্রায় ৮ মাস পর এর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করতে না পারায় কয়েক দফায় মেয়াদও বাড়িয়ে নিয়েছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এখন নির্মাণ কাজ শেষে শুধুই আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের অপেক্ষা। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগ ও জিওবির (উন্নয়ন) অর্থায়নে দৃষ্টিনন্দন এই ভবন নির্মাণ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করেছে গণপূর্ত বিভাগ।

রংপুর গণপূর্ত বিভাগ ও জেলা শিল্পকলা একাডেমি সূত্রে জানা গেছে, নির্মাণাধীন নতুন এই ভবনটির প্রথম ও দ্বিতীয় তলা মিলে ৫০০ আসন বিশিষ্ট সুবিশাল একটি অডিটোরিয়াম রয়েছে। পাশাপাশি ভবনের আন্ডারগ্রাউন্ডে গাড়ি রাখার গ্যারেজ, দ্বিতীয় তলাতে কনফারেন্স রুম ও আর্ট গ্যালারি, তৃতীয় তলায় ক্যাফেটেরিয়া, চতুর্থ তলায় লাইব্রেরি এবং পঞ্চম তলায় সুসজ্জিত ডরমিটরি রয়েছে।

এ ছাড়া ভবনের বিভিন্ন তলায় শ্রেণি কক্ষ, অফিস কক্ষ, প্রশিক্ষক কক্ষসহ অন্যান্য কক্ষ রয়েছে। এ ছাড়া সর্বাধুনিক সাউন্ড সিস্টেমসহ নানা সুযোগ-সুবিধা রয়েছে। বিশাল পরিসরের এই শিল্পকলা একাডেমিতে প্রবেশ করতেই নজর কাড়বে দৃষ্টিনন্দন একটি ট্যারাকোটা। এতে রংপুরের ঐতিহাসিক স্থাপনা তাজহাট জমিদার বাড়ি, জেলা পরিষদ ভবন, টাউন হলের পাশাপাশি হাড়িভাঙা আম ও গরুর গাড়ি, একতারা, দোতরা, বাঁশিসহ লোকজ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য তুলে ধরা হয়েছে। ভবনটির নির্মাণ কাজ শেষ হবার পর কয়েকবার পরীক্ষণমূলক কার্যক্রমও পরিচালনা করা হয়েছে।

পুরাতন একাডেমির পাশে নির্মিত এই একাডেমিতে এখনো প্রয়োজনীয় সংখ্যক জনবল নিয়োগ করা হয়নি বলে জানা গেছে। পূর্বের ৬ জন কর্মকর্তা, কর্মচারী, সহায়ক দিয়েই চলছে নতুন ভবনের কার্যক্রম। বর্তমানে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে বিভিন্ন বিষয়ের চুক্তিভিত্তিক ১২ জন শিক্ষক রয়েছে। একাডেমিতে সঙ্গীত, নৃত্য, অভিনয়, তবলা, চারুকলা ও আবৃত্তি বিভাগে বর্তমানে প্রায় ৩০০ শিক্ষার্থী প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন।

নবনির্মিত এই আধুনিক শিল্পকলা ভবনের পাশে ঐতিহ্যবাহী টাউন হল চত্বরে প্রতিশ্রুতিশীল ১৮টি সাহিত্য, নাট্য সংগঠনসহ অন্যান্য সাংস্কৃতিক সংগঠনের নিজস্ব কার্যালয় রয়েছে। রংপুরের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ডা. মফিজুল ইসলাম মান্টু বলেন, এই টাউন হল চত্বরে পাশাপাশি একইসঙ্গে অনেকগুলো সাংস্কৃতিক সংগঠন দীর্ঘ সময় ধরে চর্চা করে যাচ্ছে। সবার আশা ছিল, এই বিভাগীয় শহরে আধুনিক শিল্পকলা ভবন হবে। অবশেষে তাদের সেই স্বপ্ন আজ পূরণের পথে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি এই শিল্পকলা একাডেমি, এ অঞ্চলের সংস্কৃতি কর্মীদের প্রাণে সঞ্চার জোগাবে বলে মনে করছেন সংগঠকরা। তাদের কারও কারও মতে, প্রধানমন্ত্রীর এই উপহার বাঙালি সংস্কৃতির চর্চা, বিকাশ, প্রসার ও লালন প্রচেষ্টাকে আরো বেগবান করবে।

সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সরকারি বেগম রোকেয়া কলেজের বাংলা বিভাগের সাবেক বিভাগীয় প্রধান মোহাম্মদ শাহ আলম বলেন, নতুন ভবনটি হলে এখানকার সংস্কৃতিচর্চা আরও বেগবান হবে।

জেলা শিল্পকলা একাডেমির কালচারাল অফিসার নুঝাত তাবাসসুম রিমু বলেন, নতুন শিল্পকলা একাডেমি ভবনটির উদ্বোধনের জন্য প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এটিসহ আট জেলার আট নতুন শিল্পকলা একাডেমির উদ্বোধন করবেন। সরকারের এ উদ্যোগে রংপুর বিভাগের মানুষের শিল্প সংস্কৃতি চর্চায় নতুন মাত্রা যোগ হবে।