🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ শনিবার, ৭ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ ৷ ২১ মে, ২০২২ ৷

ব্রাজিলের সঙ্গে খেলতে চায় না আর্জেন্টিনা!

আর্জেন্টিনা
❏ শনিবার, এপ্রিল ২৩, ২০২২ খেলা

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক: গত বছর কোভিড বিধিনিষেধ ভঙ্গ করায় মাত্র পাঁচ মিনিট খেলার পর বন্ধ করে দেয়া হয়েছিলো আর্জেন্টিনা-ব্রাজিলের মধ্যকার বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের ম্যাচটি। এর ৮ মাস পর ফের মুখোমুখি হচ্ছে দুই ফুটবল জায়ান্ট। এই বছরের বিশ্বকাপ সামনে রেখে আগামী ১১ জুন মেলবোর্নে প্রাক-প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল।

তবে সাও পাওলোর বাতিল হওয়া ম্যাচটি কবে হবে সেটি নিয়ে আগ্রহের কমতি নেই দর্শকের। শুরুতে ফিফা ভেবেছিল, খেলা যেহেতু ব্রাজিলেই পণ্ড হয়েছে, তাই ব্রাজিলেই হবে এবারের ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ। এরই মধ্যে আর্জেন্টিনা জানিয়ে দিল, তারা ব্রাজিলের সঙ্গে ম্যাচটি খেলতে চায় না।

কিন্তু ফিফা গতকাল আবার আর্জেন্টিনার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনকে (এএফএ) নির্দেশ দিয়েছে, আগামী সেপ্টেম্বরে ম্যাচটি খেলতেই হবে। যদিও এর আগে ম্যাচটি ব্রাজিলেই হবে জানালেও নতুন করে এএফএ-র মহাসচিব ভিক্তর ব্লাঙ্কোকে পাঠানো চিঠিতে ফিফা জানিয়েছে, আগামী ২২ সেপ্টেম্বর ম্যাচটা হবে, তবে কোথায় হবে সেটি এখনো চূড়ান্ত হয়নি।

আর্জেন্টাইন দৈনিক টিওয়াইসি স্পোর্ত জানিয়েছেন, ১১ জুন ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার প্রীতি ম্যাচের টিকিটও বিক্রি শুরু হয়ে গেছে। কিন্তু ঝামেলাটা হলো, আর্জেন্টিনা ব্রাজিলের সঙ্গে এভাবে পরপর দুটি ম্যাচ খেলতে চাইছে না।

গেল বছর সেপ্টেম্বরে সুপার ক্লাসিকোতে মুখোমুখি হয় ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। তবে করোনা বিধিনিষেধ ভাঙায় আর্জেন্টিনার চার খেলোয়াড়কে ধরতে মাঠে ঢুকে পড়েন ব্রাজিলের স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা। কাতার বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলে সেদিন খেলা গড়ানোর সাত মিনিট পরই ম্যাচটি বন্ধ হয়ে যায়। পরে আর তা ময়দানেই গড়ায়নি। পরে এক বিবৃতিতে ফিফা জানায়, বিশ্বকাপ বাছাইয়ের সেই ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা দ্বৈরথ আবার মাঠে গড়াবে।

সেবার ফিফা জানিয়েছিল, দুই চিরপ্রদ্বিন্দ্বীর স্থগিত হওয়া ম্যাচটি নিরপেক্ষ ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হবে। সেই ম্যাচ নিয়ে ঘোষণা এখানেই শেষ নয়। দুই দেশের ফুটবল ফেডারেশনকে জরিমানা করেছিল ফিফা। ব্রাজিলকে ৫ লাখ ৪০ হাজার ডলার এবং আর্জেন্টিনাকে ২ লাখ ডলার অর্থদণ্ড দেওয়া হয়।

ওই ম্যাচে আর্জেন্টিনার ক্রিশ্চিয়ান রোমেরো, এমিলিয়ানো মার্তিনেজ, এমিলিয়ানো বুয়েন্দিয়া ও জিওভানি লো সেলসোকে নিয়ে মূল ঝামেলা বাধে। কোয়ারেন্টিনের নিয়ম ভাঙার অভিযোগে তাদের নিয়ে আগে থেকেই তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছিল ব্রাজিলের স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা। মাঠে খেলতে নামার পর সন্দেহ সত্যি হয়। আর সাত মিনিটের মাথায় নাটকীয়ভাবে স্থগিত করা হয় ম্যাচটি।