• আজ বুধবার, ১১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ ৷ ২৫ মে, ২০২২ ৷

‘রোজার পরে আন্দোলন’ নিয়ে দেওয়া বক্তব্য সম্পর্কে মুখ খুললেন মির্জা আব্বাস


❏ রবিবার, এপ্রিল ২৪, ২০২২ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক: ‘রোজা গেলে বুঝতে পারবেন, আন্দোলন কাকে বলে’—নিজের এই বক্তব্যের পর বিষয়টি নিয়ে নানা আলোচনার বিষয় এবার পরিষ্কার করলেন বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস।

তিনি বলেন, ‘আমি পরিষ্কার করে বলতে চাই, আন্দোলন ছাড়া এই সরকারের পতন ঘটানো যাবে না। কথা একটাই, আন্দোলন, আন্দোলন এবং আন্দোলন।’

রাজধানীর লেডিস ক্লাবে ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ড্যাব) ইফতার মাহফিলে আজ শনিবার তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

এর আগে শুক্রবার একই জায়গায় জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশনের ইফতার মাহফিলে মির্জা আব্বাস বলেন, ‘আমরা সংগঠন শক্তিশালী করছি। যাঁরা বলেন, বিএনপি আন্দোলন করে না; রোজা গেলে বুঝতে পারবেন, আন্দোলন কাকে বলে।’

নিজের এই বক্তব্য প্রসঙ্গে আব্বাস বলেন, ‘গতকাল (শুক্রবার) এখানে আমি যেটা বক্তব্য রেখেছিলাম, সেটাকে উদ্ধৃত করে ভারতীয় একটি পত্রিকায় খুব বড় করে আসছে।

আমি বলছি যে, এই ঈদের পরে আপনারা বুঝতে পারবেন আন্দোলন কাকে বলে, কত প্রকার ও কী কী। আমরা প্রতিবছর সব সময় বলি এই ঈদের পরে হবে, ওই ঈদের পরে হবে। এই রোজার পরে হবে।

আমি পরিষ্কার করে বলেছি কালকে (শুক্রবার) যে, কোন দিন-তারিখ দিয়ে কখনোই আন্দোলন হয় না। আন্দোলন যদি করতে হয়, আমরা আন্দোলন করতে থাকব, সেটা একসময় তুঙ্গে উঠবে। এখন করোনা, রমজান, এই কারণে ভাটা পড়েছে। এর অর্থ এই নয় যে, আমাদের আন্দোলন থেমে গেছে। আন্দোলন থামে নাই। সবাই আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত।’

আব্বাস বলেন, ‘আমি যে কথা বলেছি, ভারতীয় পত্রিকা যা-ই লিখুক, আমাদের তাতে কিছু আসে যায় না। আমি পরিষ্কার করে বলতে চাই, আন্দোলন ছাড়া এই সরকারের পতন ঘটানো যাবে না। কথা একটাই, আন্দোলন, আন্দোলন এবং আন্দোলন।’

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এখন আমাদের দেশের যে সার্বিক অবস্থা, আমরা হাসতে ভুলে গেছি। আমরা আমাদের প্রিয়জনদের শুভেচ্ছা জানাতে ভুলে গেছি। আমরা নিরাপদে রাস্তায় থাকতে ভয় পাই। নিরাপদে বাড়িতে থাকতেও ভয় পাই। এখানে জীবনের কোনো মূল্য নেই।’

নিউমার্কেটের ঘটনার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ঘটনা ঘটিয়েছে আওয়ামী লীগের লোকেরা আর দোষ দিয়েছে বিএনপির। বিএনপির নেতাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে, মামলা করা হয়েছে। মামলা, খুন-গুম দিয়েই তারা টিকে আছে।

ড্যাবের সভাপতি হারুন অর রশিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খানসহ আরও অনেকে বক্তব্য দেন।