গত একমাসে রাজধানীতে গ্রেপ্তার হয়েছে ৫ শতাধিক চোর-ছিনতাইকারী


❏ রবিবার, মে ১, ২০২২ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা : ঈদকে সামনে রেখে চুরি ছিনতাই বেড়ে যাওয়া এবং নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে গত এক মাসে রাজধানীতে পাঁচ শতাধিক চোর, ছিনতাইকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম।

আজ রোববার সকালে জাতীয় ঈদগাহর নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শনে এসে এসব কথা বলেন।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘গত কয়েকদিন ধরেই থানা ও ডিবিতে তালিকা করে কাজ করা হচ্ছে। গত এক মাসে পাঁচ শতাধিক তালিকাভুক্ত চোর ছিনতাইকারী গ্রেপ্তার হয়েছে।’

কমিশনার জানান, মূল্যবান সম্পদ রক্ষায় ব্যক্তি নিজেকে সতর্ক হতে জোর দিয়েছি আমরা। ঢাকার মতো বড় শহরে দুয়েকটি ঘটনা ঘটতে পারে, যেগুলো প্রতিরোধ করা কঠিন ।

তিনি বলেন, ‘এত বড় একটি শহরে দুয়েকটি ঘটনা ঘটবে। এগুলো প্রতিরোধ করার ক্ষমতা কারও নেই। আমরা সাধ্যমতো চেষ্টা করে যাচ্ছি। পুলিশের পাশাপাশি মানুষের দায়িত্ব রয়েছে। আপনার জীবন এবং সম্পদের প্রাথমিক রক্ষার দায়িত্ব আপনার। এরপর আসে রাষ্ট্রের কাছে। ট্রেন লাইনের ওপর যদি আপনি শুয়ে থাকেন আর ভাবেন পুলিশ এসে রক্ষা করবে, এটা কোন বুদ্ধির কাজ না। এর মধ্যে কেউ যদি আক্রান্ত হন সেগুলো আমরা নিশ্চয়ই দেখব।’

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘আমরা নিরাপত্তার ক্ষেত্রে সাধারণত যে বিষয়গুলো বলে থাকি সেগুলো যদি মানুষ মেনে চলে, তাহলে তার জীবন ও সম্পদের নিরাপত্তা অনেকটাই নিশ্চিত হয়। যে যেখানেই যান আপনার মূল্যবান সম্পদে হেফাজত নিচ থেকে করবেন।’

উন্নত দেশের উদাহরণ টেনে কমিশনার বলেন, ‘সারা বিশ্বে লকার সিস্টেম রয়েছে। বাংলাদেশের পুলিশ আমরাতো অত দক্ষ না, উন্নত বিশ্বে হাজার হাজার মানুষ কেন লকারে মূল্যবান সম্পদ রাখে। কারণ একটাই, এটা সুরক্ষা করার দায়িত্ব তার। আমরা সাধ্যমতো চেষ্টা করে যাচ্ছি, যেখানে যে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে, মামলা নিচ্ছি, সে অনুযায়ী গ্রেপ্তার করছি।’

চুরি ছিনতাই রোধে অতিরিক্ত ফোর্স মোতায়েন থাকার বিষয়ে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘ঢাকা শহরে এই সময় রাস্তাঘাট ফাঁকা থাকে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের পঞ্চাশটি থানাতেই আমরা অতিরিক্ত ফোর্স দিয়েছি। শহরে প্রতিরাত্রে আড়াইহাজার অতিরিক্ত ফোর্স ডিউটি করবে। প্রতি থানা থেকে দশটি করি মোবাইল টিম বের হবে। এভাবে ৫০টি থানায় ৫০০টি টিম থাকবে।’

ক্রিমিনালদের চলাচলে যাতে বিঘ্ন সৃষ্টি হয় সে জন্য আমাদের চেকপোস্ট থাকবে। ঢাকা শহরের অনেক গুরুত্বপূর্ণ স্থানে সিসিটিভি ক্যামেরা রয়েছে, কন্ট্রোল রুম থেকে সেগুলো মনিটর করা হবে।