🕓 সংবাদ শিরোনাম

আরিফিন শুভ-তিশাকে শুভকামনা জানালেন নওয়াজুদ্দিনবিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব আত্মঘাতী: এফবিসিসিআইআড়াইহাজারে মজুরি বৃদ্ধিসহ দ্রব্যমূল্যের দাম নিয়ন্ত্রণের দাবিতে শ্রমিক বিক্ষোভজাপা কোন জোটে যাবে পরিস্থিতি বুঝে সিদ্ধান্ত: জিএম কাদেরআগামী মাসেই পদ্মা সেতুতে দাঁড়িয়ে মানুষ পূর্ণিমার চাঁদ দেখবে: কাদেরঝড়ের কবলে পড়ে বালুবাহী বাল্কহেড ডুবিসরকারি কর্মচারীদের ৬০ শতাংশ বেতন বৃদ্ধির দাবিচট্টগ্রামে পুলিশ ভ্যানে বাসের ধাক্কা, ১৫ পুলিশ সদস্য আহতগাজীপুরে অরক্ষিত ক্রসিংয়ে ট্রেন-পিকআপ ভ্যান সংঘর্ষে নিহত ৩৫৫ বছর বয়সে ঢাবি ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেবেন বেলায়েত

  • আজ শনিবার, ৭ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ ৷ ২১ মে, ২০২২ ৷

অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় স্ত্রীসহ কারাগারে সাবেক ওসি


❏ বৃহস্পতিবার, মে ৫, ২০২২ আলোচিত বাংলাদেশ

খুলনা: অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় খুলনার বটিয়াঘাটা থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ আবু বকর সিদ্দিক ও তার স্ত্রী সুলতানা রাজিয়া পারুলকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (৫ মে) দুপুরে মহানগর বিশেষ আদালতে হাজির হয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মামলায় জামিন চাইলে বিচারক মাহমুদা খাতুন তা নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

দুদকের আইনজীবী খন্দকার মজিবর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ২০০৪ সালের দুদক আইনের ২৬ (২), ২৭ (১) ধারায় ও মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের ২০১২ এর ৪ (১) ও ৪ (২) ধারায় সাবেক ওসি শেখ আবু বকর সিদ্দিক ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুইটি মামলা হয়।

দুদকের উপসহকারী পরিচালক মো. আল-আমিন বাদী হয়ে ২০২১ সালের ৯ নভেম্বর মামলা দুটি করেন।

আইনজীবী খন্দকার মজিবর রহমান জানান, মামলায় প্রাথমিকভাবে প্রায় ৩৪ লাখ টাকার দুর্নীতি ধরা পড়লেও তদন্তে স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তিসহ সাবেক ওসি শেখ আবু বকর সিদ্দিকের আরও প্রায় ৫১ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ পাওয়া গেছে। যা মামলার এজাহারে সম্পৃক্ত হবে।

প্রসঙ্গত, মামলা সূত্রে জানা যায়, ১৯৮৭ সাল থেকে ২০২১ সাল অবধি সাবেক অফিসার ইনচার্জ শেখ আবু বকর সিদ্দিক দুদকে দাখিলকৃত সম্পদ বিবরণীতে ৮ লাখ ৬৯ হাজার ১৫৬ টাকার সম্পদ ও তথ্য গোপন করেন। এ ছাড়া তার আয়ের উৎসের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ ৩৩ লাখ ৮৫৯ টাকার সম্পদ নিজ মালিকানা ও ভোগদখলে রেখে এবং সরকারি চাকরিতে থাকাকালে ক্ষমতার অপব্যবহার করে ঘুষ ও দুর্নীতির মাধ্যমে ২১ লাখ ৭০ হাজার টাকা স্ত্রীর নামে দান দেখিয়ে বৈধ করার চেষ্টা করেন। এজন্য দুদক তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে।

এ ছাড়া একই ধারায় অপর মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে তার স্ত্রী সুলতানা রাজিয়া পারুলকে এবং ২নং আসামি করা হয়েছে স্বামী সাবেক অফিসার (ওসি) ইনচার্জ শেখ আবু বকর সিদ্দিককে।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, ২০০০ সাল থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে স্ত্রী পারুল দুদকের সম্পদ বিবরণীতে ১৬ লাখ ৬৫ হাজার ৯০২ টাকার তথ্য গোপনসহ ১ কোটি ১ লাখ ২৯ হাজার ৯৫৯ টাকা আয়ের উৎসের সাথে অসঙ্গতিপূর্ণ সম্পদ অর্জন এবং স্বামী আবু বকর ক্ষমতার অপব্যবহার করে ৬৯ লাখ ৬০ হাজার টাকা স্ত্রীকে দান হিসেবে গ্রহণ এবং ঠিকাদারি ব্যবসার মাধ্যমে আয় দেখিয়ে বৈধ করার চেষ্টায় মামলা দায়ের হয়েছে।