🕓 সংবাদ শিরোনাম

প্রধানমন্ত্রীকে সাধুবাদ জানিয়েছে টিআইবিচাকরি গেল প্রতিমন্ত্রীর মেয়ের, ফেরত দিতে হবে বেতনওস্বর্ণ গায়েব করে চাকরি হারালেন এসপিখালেদা জিয়া ও বিএনপির জন্য পদ্মা সেতুর নিচে নৌকা রাখা হবে: শাজাহান খানশেখ হাসিনার চেয়ে বেশি উন্নয়ন করাও সম্ভব নয়: খাদ্যমন্ত্রীচট্টগ্রামে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় পুলিশসহ তিনজন নিহততরুনীদের প্রেমের ফাঁদে ফেলে সর্বস্ব লুটে নিতেন পুরুষ ছদ্মবেশী এই তরুণী!অচিরেই বিএনপিসহ সকল রাজনৈতিক দলকে আলোচনায় বসার আহবান জানানো হবে: সিইসিসঠিক তথ্য পেতে আইন শৃংখলা বাহিনীর সাথে কাজ করবে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরটিকটক ভিডিও বানাতে নদীতে ঝাঁপ দেবার ঘণ্টা দেড়েক বাদে উদ্ধার হল কিশোরের মৃতদেহ

  • আজ শনিবার, ৭ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ ৷ ২১ মে, ২০২২ ৷

রেলমন্ত্রীর শ্যালিকার ছেলে সেই অভিযোগকারী

Rail news
❏ রবিবার, মে ৮, ২০২২ আলোচিত বাংলাদেশ, ফিচার

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক: রেলপথমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজনের আত্মীয় পরিচয়ে বিনাটিকিটে ভ্রমণকারী তিন ট্রেনযাত্রীকে জরিমানা করায় ওই ট্রেনের টিকিট পরিদর্শককে (টিটিই) সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। ওই সময় ট্রেনে ভ্রশণকারী তিনজনের মধ্যে একজন রেলমন্ত্রীর শ্যালিকার ছেলে এবং বাকি দুজন শ্যালক।

যার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তাকে বরখাস্ত করা হয় তার নাম ইমরুল কায়েস প্রান্ত। তিনি রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজনের স্ত্রী শাম্মী আক্তারের বোনের ছেলে। তার ট্রেনযাত্রার সঙ্গী হাসান ও ওমর রেলমন্ত্রীর স্ত্রী শাম্মীর মামাতো ভাই। ঈশ্বরদী শহরের নূর মহল্লায় তাদের বাড়ি।

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঈশ্বরদীতে নিপার বাসায় বেড়াতে আসেন তার মামাতো ভাই। সেখানেই এবার ঈদ উদযাপন করেছেন। এই নিপার ছেলেই অভিযোগকারী ইমরুল কায়েস প্রান্ত। যাকে রেলমন্ত্রীর স্ত্রী শাম্মী নিজের সন্তানের মতো দেখেন।

রেলমন্ত্রীর স্ত্রীর মামাতো ভাই হোসেন বলেন, আমরা ঢাকায় যাওয়ার জন্য ট্রেনের টিকিটের জন্য বুকিং অফিসে যাই। সেখানে টিকিট না পেয়ে বিষয়টি আপুকে জানাই। আপু আমাদের যাওয়ার জন্য সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনে তিনটি টিকিট দেওয়ার জন্য দায়িত্বরত গার্ড শফিকুল ইসলামকে ফোনে বলেন। এরপর আমরা ট্রেনের একটি বগিতে উঠি। এর কিছুক্ষণ পরই টিটিই শফিকুল ইসলাম এসে আমাদের সঙ্গে অশালীন আচরণ করেন। ট্রেন থেকে লাথি দিয়ে ফেলে দিতে চান।

অভিযোগকারী রেলমন্ত্রীর শ্যালিকার ছেলে ইমরুল কায়েস প্রান্ত বলেন, আমি ঢাকায় একটি টেক্সটাইল মিলে চাকরি করি। ছুটি শেষ হওয়ায় ঢাকাতে আমাকে আসতেই হবে। টিকিট না পেয়ে ট্রেনে উঠেছিলাম। টিটিইকে দেখেই আমি টিকিট চেয়েছি। টিটিই টাকা নিয়ে টিকিট লাগবে না বলে জানান; কিন্তু আমি টিকিট চাওয়ায় তিনি অশালীন আচরণ করেন। অশ্রাব্য কথা বলেন। এমনকি ট্রেন থেকে লাথি দিয়ে ফেলে দিতে চান। তাকে মাদকাসক্ত মনে হয়েছে। তার ব্যবহারে অসন্তোষ হয়ে বিষয়টি রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের লিখিতভাবে জানিয়েছি। এখন বিষয়টি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য আমাদের রেলমন্ত্রীর আত্মীয় হিসেবে জড়িয়ে নানারকম মিথ্যাচার করা হচ্ছে বলেও দাবি করেন প্রান্ত।

গত বুধবার রাতে খুলনা থেকে ঢাকাগামী আন্তঃনগর সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনে এ ঘটনা ঘটে। পরে বৃহস্পতিবার বিকালে রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় বাণিজ্যিক কর্মকর্তা (ডিসিও) নাসির উদ্দিনের নির্দেশে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। বরখাস্ত হওয়া টিটিই মো. শফিকুল ইসলাম রেলওয়ে জংশন ঈশ্বরদীর টিটিই হেডকোয়ার্টারের সঙ্গে যুক্ত।