🕓 সংবাদ শিরোনাম

প্রধানমন্ত্রীকে সাধুবাদ জানিয়েছে টিআইবিচাকরি গেল প্রতিমন্ত্রীর মেয়ের, ফেরত দিতে হবে বেতনওস্বর্ণ গায়েব করে চাকরি হারালেন এসপিখালেদা জিয়া ও বিএনপির জন্য পদ্মা সেতুর নিচে নৌকা রাখা হবে: শাজাহান খানশেখ হাসিনার চেয়ে বেশি উন্নয়ন করাও সম্ভব নয়: খাদ্যমন্ত্রীচট্টগ্রামে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় পুলিশসহ তিনজন নিহততরুনীদের প্রেমের ফাঁদে ফেলে সর্বস্ব লুটে নিতেন পুরুষ ছদ্মবেশী এই তরুণী!অচিরেই বিএনপিসহ সকল রাজনৈতিক দলকে আলোচনায় বসার আহবান জানানো হবে: সিইসিসঠিক তথ্য পেতে আইন শৃংখলা বাহিনীর সাথে কাজ করবে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরটিকটক ভিডিও বানাতে নদীতে ঝাঁপ দেবার ঘণ্টা দেড়েক বাদে উদ্ধার হল কিশোরের মৃতদেহ

  • আজ শনিবার, ৭ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ ৷ ২১ মে, ২০২২ ৷

মাদরাসা শিক্ষা খাতে বছরে সরকারের ব্যয় ৩ হাজার ৮৪০ কোটি টাকা : শিক্ষা উপমন্ত্রী


❏ রবিবার, মে ৮, ২০২২ জাতীয়

সময়ের কন্ঠস্বর, ঢাকা: ‘পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বিনিয়োগ হলো শিক্ষা। প্রতি বছর মাদরাসা শিক্ষার জন্য ৩ হাজার ৮৪০ কোটি টাকা ব্যয় করছে সরকার। জাতিসংঘের অন্যতম ভাষা আরবি। তেলাওয়াতের পাশাপাশি আমাদেরকে ভাষাও শিখতে হবে। ছেলে সন্তানদের আলোকিত মানুষ করতে হলে সব ধরনের ভাষায় দক্ষতা অর্জন করতে হবে’ বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

শনিবার চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার আধুনগর ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাাসা মাঠে অনুষ্ঠিত শুকরানা মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মাদ্রাসার গভর্নিং বর্ডির সভাপতি, নোমান গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. নুরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের উদ্বোধক ছিলেন চট্টগ্রাম-১৫ আসনের সাংসদ প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী।

অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী, আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য জাফর আলম।

আধুনগর ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসার ছাত্রী শাখার উদ্বোধন ও কামিল শ্রেণিতে পাঠদানের অনুমোদন প্রাপ্তি উপলক্ষে এই শুকরানা মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় শিক্ষা উপমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এখন শিক্ষাখাতে অনেক দূর এগিয়েছে। বর্তমান সরকার মাদ্রাসা শিক্ষার ব্যাপারে খুব আন্তরিক।

তিনি বলেন, শুধু কাগজে সনদ অর্জন করলে চাকরি পাওয়া যাবে না। চাকরি পেতে হলে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের বাংলা-ইংরেজির পাশাপাশি আরবি ভাষা ও কম্পিউটারের ওপর দক্ষতা অর্জন করতে হবে। আরবি ভাষায় দক্ষতা অর্জন করা গেলে মধ্যপ্রাচ্যের বিশাল শ্রমবাজারে আমাদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা হবে।