🕓 সংবাদ শিরোনাম

জম্মু-কাশ্মীরে টানেল ধস; দীর্ঘ ৩৬ ঘণ্টা উদ্ধার তৎপরতায় মিললো ১০ মরদেহজমি দখলে বাধা দেওয়ায় সন্ত্রাসী হামলা, বৃদ্ধসহ আহত-২ভারতে যৌন নির্যাতনের শিকার আলোচিত সেই তরুণীকে বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তরভারতের বেঙ্গালুরুতে বাংলাদেশি নারীকে ধর্ষণের দায়ে ১১ জনের কারাদণ্ড‘সংকট নিরসনে শ্রীলঙ্কা ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মডেল’ অনুসরন করতে পারে’স্কুল ফাঁকি দেয়া শিক্ষকদের বিরুদ্ধে শাস্তির বিধান রাখা উচিত: মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রীটানা ৩১ দিন করোনায় মৃত্যুহীন দেশ, গত ২৪ ঘন্টায় শনাক্ত ১৬দেশের চিকিৎসা বিজ্ঞানে নতুন আবিস্কার: হেপাটাইটিস-বি ভাইরাসের ওষুধ ‘ন্যাসভ্যাক’রাতগভীরে ঘুম থেকে উঠে গলায় ফাঁস দিয়ে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যাবিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে শাবিপ্রবি পেল সর্বোচ্চ বরাদ্দ

  • আজ রবিবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ ৷ ২২ মে, ২০২২ ৷

পাবনায় ভারতীয় নাগরিক হত্যা মামলায় প্রেমিকার যাবজ্জীবন

Pabna News
❏ মঙ্গলবার, মে ১০, ২০২২ রাজশাহী

আব্দুল লতিফ রঞ্জু, পাবনা প্রতিনিধি: পাবনার ঈশ্বরদীতে ভারতীয় নাগরিক আজব লাল যাদব (৫০) হত্যা মামলায় নাসিমা খাতুন (৩০) নামের এক নারীকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। একইসাথে তাকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদন্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (১০ মে) বেলা আড়াইটার দিকে পাবনার বিশেষ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আহসান তারেক এ রায় ঘোষণা করেন।

সাজাপ্রাপ্ত আসামি নাসিমা আক্তার ঈশ্বরদী উপজেলার কালিকাপুর গ্রামের সাইফুল্লাহর মেয়ে। রায়ের সময় আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায় ঘোষণা শেষে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

মামলার বরাত দিয়ে রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবি অ্যাডভোকেট দেওয়ান মজনুল হক জানান, ভারতের বিহার প্রদেশের মাধুরাণী জেলার বাসিন্দা আজব লাল যাদব ২০১৪ সালের ২৮ মে ঈশ্বরদীর রশিদ ওয়েল মিলে রিফাইনারি ইনচার্জ হিসেবে যোগ দেন। সেখানে ২০১৬ সাল অক্টোবর পর্যন্ত কর্মরত ছিলেন। ২০১৬ সালের ১৬  অক্টোবর রশিদ ওয়েল মিল থেকে চাকুরিচ্যুত হয়ে তিনি অন্যত্র চাকুরী নেন। সে সময় তিনি উপজেলার কালিকাপুর গ্রামের সাইফুল্লাহর বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। ভাড়া থাকার সুবাদে বাড়ির মালিকের মেয়ে নাসিমা খাতুনের সাথে পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়েছিলেন ওই ভারতীয় নাগরিক। তিনি প্রচুর পরিমাণে মদপানও করতেন।

২০১৭ সালের ৬ মে কালিকাপুর গ্রামে সাইফুল্লাহর ভাড়া বাড়িতে থেকে বিষক্রিয়ায় গুরুতর অসুস্থ হলে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় পরদিন ৭ মে ঈশ্বরদী থানার তৎকালীন এসআই আব্দুর রাজ্জাক বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামাকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। তদন্তকারী কর্মকর্তা বাড়ির মালিক সাইফুল্লাহর মেয়ে নাসিমা খাতুনকে একমাত্র আসামী করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

তদন্তে আজব লাল জাদবকে বিয়ের প্রলোভনে বাড়িতে ডেকে নিয়ে ফলের জুসের সাথে বিষপান করিয়ে হত্যার বিষয়টি উঠে আসে। দীর্ঘদিন মামলার শুনানী ও স্বাক্ষ্য শেষে এ রায় ঘোষণা করেন বিচারক।

রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবি ছিলেন, অ্যাডভোকেট দেওয়ান মজনুল হক, আর আসামীপক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট মতিউর রহমান।