🕓 সংবাদ শিরোনাম

প্রধানমন্ত্রীকে সাধুবাদ জানিয়েছে টিআইবিচাকরি গেল প্রতিমন্ত্রীর মেয়ের, ফেরত দিতে হবে বেতনওস্বর্ণ গায়েব করে চাকরি হারালেন এসপিখালেদা জিয়া ও বিএনপির জন্য পদ্মা সেতুর নিচে নৌকা রাখা হবে: শাজাহান খানশেখ হাসিনার চেয়ে বেশি উন্নয়ন করাও সম্ভব নয়: খাদ্যমন্ত্রীচট্টগ্রামে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় পুলিশসহ তিনজন নিহততরুনীদের প্রেমের ফাঁদে ফেলে সর্বস্ব লুটে নিতেন পুরুষ ছদ্মবেশী এই তরুণী!অচিরেই বিএনপিসহ সকল রাজনৈতিক দলকে আলোচনায় বসার আহবান জানানো হবে: সিইসিসঠিক তথ্য পেতে আইন শৃংখলা বাহিনীর সাথে কাজ করবে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরটিকটক ভিডিও বানাতে নদীতে ঝাঁপ দেবার ঘণ্টা দেড়েক বাদে উদ্ধার হল কিশোরের মৃতদেহ

  • আজ শনিবার, ৭ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ ৷ ২১ মে, ২০২২ ৷

কুড়িগ্রামে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে প্রতিহিংসামূলক অভিযোগ!


❏ শুক্রবার, মে ১৩, ২০২২ রংপুর

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: জনগনের ভোটে টানা ৪ বার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। কুড়িয়েছেন অনেক সম্মান। নিজের ইউনিয়নকে পরিচয় করিয়েছেন দেশ বিদেশে। অথচ হঠাৎ করেই একটি নাগরিকত্ব সনদ না দেয়ার অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে! এতে হতভাগ ইউনিয়নবাসী। হতভাগ চেয়ারম্যান নিজেও। কারণ যেদিনের কথা বলা হচ্ছে সেদিন যে চেয়ারম্যানের একমাত্র ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠান ছিলো!

ইউনিয়নবাসী অনেকে বলছে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার স্বীকার তিনি। এ ঘটনাটি কুড়িগ্রাম সদরের ভোগডাঙ্গা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সাইদুর রহমানের বিরুদ্ধে!

ঘটনা প্রসঙ্গে কথা হলে চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সাইদুর রহমান বলেন,  তথ্যপ্রযুক্তি আইনে এক ব্যক্তির নামে ইতিপূর্বে মামলা করায় তিনি তার বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের নেমেছেন এবং তাকে হেয় করছেন।

মুল ঘটনা অনুসন্ধান করতে গিয়ে ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের স্থানীয় একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সদরের ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের বাণীর খামার গ্রামের কৃষক রবিউল আলম গত ইউপি নির্বাচনে বর্তমান চেয়ারম্যান এর বিপক্ষে কাজ করেছিল। এ কারণে চক্ষুলজ্জায় চেয়ারম্যানের বাসায় না গিয়ে তার আত্মীয় জিন্নাহ নামের এক শিক্ষকের দ্বারা রবিউল তার পুত্র আব্দুর রাজ্জাকের নাগরিকত্ব সনদপত্র নিয়ে যান।

এ অবস্থায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসামূলক একটি মহল সহজ-সরল রবিউল কে ফুসলিয়ে তাকে পুঁজি করে বিভ্রান্তিকর মিথ্যা তথ্য সাংবাদিককে দিয়ে সংবাদ পরিবেশন করেছেন।

জানতে চাইলে ভোগডাঙ্গা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সাইদুর রহমান বলেন এই ইউনিয়নের বাসিন্দাদের নাগরিকত্ব সনদ আমার দেয়া দায়িত্ব ও কর্তব্য।

যদি এ ধরনের জঘন্যতম কাজ কোনদিন করতাম তাহলে দল-মত নির্বিশেষে সবার ভোট পেয়ে আমি পরপর চারবার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে পারতাম না। এ ধরনের মিথ্যা অপপ্রচারের আমি হতবাক।

চেয়ারম্যান আরো বলেন গত ৭ মে আমার বাসায় বিয়ের অনুষ্ঠান ছিল। ঐ দিন রবিউল বা তার ছেলে আমার বাড়িতে আসে নাই।