প্রাইভেটকার নিয়ে ঘুরতে বেরিয়ে খাদে পড়ে দুই বন্ধুর মৃত্যু


❏ শনিবার, মে ১৪, ২০২২ ঢাকা

সময়ের কণ্ঠস্বর, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীতে ভগ্নিপতির প্রাইভেটকার নিয়ে ঘুরতে বের হয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে জিসান (১৯) ও ফাহিম (১৬) নামে দুই বন্ধু নিহত হয়েছে। এ সময় আরও একজন গুরুতর আহত হয়েছেন।

শুক্রবার (১৩ মে) রাত ৩টার দিকে উপজেলার পুরাবাজার এলাকার নির্মাণাধীন সেতুর খাদে পড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনা থেকে জীবিত উদ্ধার হওয়া জাহিদ হাসান (১৬) ও নিহত ব্যক্তিদের স্বজনদের অভিযোগ, নির্মাণাধীন সেতুর সামনে কোনো সতর্কতামূলক সাইনবোর্ড ছিল না। সেতু সচল ভেবে গাড়িটি সেতুর ঢালে উঠিয়ে দিলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত জিসান মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার উত্তর চরমসুরা এলাকার মো. মানিক মিয়ার ছেলে। ফাহিম একই এলাকার সরবতুল্লার ছেলে। জিসান এবার স্থানীয় একটি উচ্চবিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করেছেন। ফাহিম দশম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার গভীর রাতে বাড়ি থেকে প্রাইভেটকার নিয়ে জেলা সদর থেকে টঙ্গীবাড়ী উপজেলার দীঘিরপাড়ের অভিমুখে যাচ্ছিলো তিন বন্ধু। পথে পুরাবাজারের ঝুঁকিপূর্ণ বেইলি সেতু ভেঙে নতুন করে নির্মাণাধীন। ফলে পাশে নতুন সেতু দিয়ে চলাচলের রাস্তা করা হয়েছে। কিন্তু দ্রুত গতির গাড়িটি নতুন সেতু দিয়ে না গিয়ে নির্মাণাধীন বেইলি সেতু দিয়ে অতিক্রম করার সময় খালের পানিতে পড়ে যায়।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তিনজনকে উদ্ধার করে মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসাপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুজনকে মৃত ঘোষণা করেন।

টঙ্গীবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জানান, তিন বন্ধুসহ দুর্ঘটনা কবলিত গাড়িটি গভীর খাদে পানিতে পড়ে যায়। খবর পেয়ে গাড়িতে থাকা তিনজনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে দুইজনের মৃত্যু হয়। নিহতদের ড্রাইভিং লাইসেন্স ছিলো কিনা ও তারা সেখানে কী করছিলো তা তদন্ত সাপেক্ষে বলা যাবে।

এদিকে নিহতদের স্বজনদের আহাজারিতে হাসপাতালে তৈরি হয় শোকাবহ এক পরিবেশ। স্বজনরা বলছেন নির্মাণাধীন ভাঙা সেতুতে সতর্কবার্তা থাকলে হয়তো এ দুর্ঘটনা এড়ানো সম্ভব হতো।