🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ বুধবার, ১৩ আশ্বিন, ১৪২৯ ৷ ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ৷

কুড়িগ্রামে বানভাসি মানুষের হাহাকার, কষ্ট চরমে


❏ মঙ্গলবার, জুন ২১, ২০২২ প্রধান খবর, ফিচার

ফয়সাল শামীম, স্টাফ রিপোর্টার: কুড়িগ্রামের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। ব্রহ্মপুত্র ও ধরলার পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে অন্তত: দেড় লাখ মানুষ। এ অবস্থায় বিশেষ করে চরম দুর্ভোগে পড়েছে দুর্গম চরাঞ্চলের বন্যা কবলিত মানুষজন।

চুলা জ্বালাতে না পারায় এবং টিউবয়েল তলিয়ে থাকায় তীব্র হয়ে উঠছে শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট।

অন্যদিকে টানা বৃষ্টি ও উজানের পানিতে গো-খাদ্য নষ্ট হয়ে হয়ে যাওয়ায় একমাত্র আয়ের উৎস গবাদি পশুর খাদ্য সংকট নিয়েও চরম বিপাকে পড়েছেন চরাঞ্চলের মানুষ।

বন্যা কবলিত এলাকার কাঁচা-পাকা সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় ভেঙ্গে পড়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা।

নাগেশ্বরী উপজেলার ভিতরবন্দ ইউনিয়নের বানিয়ার ভিটার আশরাফুল ইসলাম বাবু জানান, আমার ঘরে ১ হাটু পানি। আশপাশের এলাকায়ও একই অবস্থা। এই এলাকা থেকে কিছু পরিবার অন্যত্র চলে গেলেও কিছু পরিবার নৌকায়, ঘরের ভিতর উঁচু করা মাচানে দিন-রাত পার করছে। আমাদের নৌকা না থাকায় প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে উঁচু জায়গায় যেতে পারিনি। ঘরের ভিতর কষ্ট করে আছি।

একই ইউনিয়নের ঝাকুয়াবাড়ী এলাকার খলিলুর রহমান জানান, আমরা কষ্ট করে দিন পার করলেও গরু, ছাগল, ভেড়ার খাদ্য সংকট নিয়ে বিপদে আছি। একদিকে বন্যার পানিতে চারনভূমি পানির নীচে অন্যদিকে টানা বৃষ্টিতে পচে গেছে খড়ও। এই গবাদি পশুই আমাদের মূল আয়ের উৎস। এটা রক্ষা করতে না পারলে আমাদের বাঁচার উপায় থাকবে না।

নাগেশ্বরী উপজেলার ভিতরবন্দ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শফিউল আলম শফি জানান, আমার ইউনিয়নে যে পরিমান মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে তাতে বরাদ্দের বাইরে আরো সহযোগীতার প্রয়োজন হবে। তিনি সরকারের বাইরেও সমাজের বৃত্তবানদের এগিয়ে আসার জন্য আহ্বান জানান।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম জানান, ৯ উপজেলার বন্যা কবলিত মানুষের জন্য ৩শ ৩৮ মেট্রিক টন চাল, নগদ ১৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা, ১ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার, ১৮ লাখ ৯৫ হাজার টাকার শিশু খাদ্য ও ১৭ লাখ ৭৫ হাজার টাকা গো-খাদ্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। যা বিতরণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

কুড়িগ্রামের বন্যা দুর্গত মানুষের পাশে দাড়াতে পারেন আমাদের মাধ্যমে- ০১৭১৩২০০০৯১।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন