🕓 সংবাদ শিরোনাম

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পক্ষকালব্যাপী অনুষ্ঠানমালা * যে সংবাদের শিরোনামে ‘বিব্রত’ সময়ের কণ্ঠস্বর ! * গিনেস রেকর্ডে ফের শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করলেন ঠাকুরগাঁওয়ের রাসেল * অনিশ্চয়তার বেড়াজাল পেরিয়ে অবশেষে ঢাকা আসছেন ‘ড্যান্স কুইন’ নোরা ফাতেহি * বাসের ধাক্কায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত * বড়দের সামনে সিগারেট খাওয়া নিয়ে দ্বন্দে কয়েকদফা সংঘর্ষ, আহত ১১ জন * বগুড়ায় ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে সাবেক সেনা সদস্য খুন * পণ্ড বিয়ের আয়োজন, বর গেলো শ্রীঘরে, অর্থদণ্ড হলো কনের বাবার * মসজিদে নামাজরত অবস্থায় যুবককে ছুরিকাঘাত, হামলাকারী গ্রেপ্তার * মারপিটের কারণে মাশা আমিনির মৃত্যু হয়নি: ইরানের ফরেনসিক বিভাগ *

  • আজ শনিবার, ২৩ আশ্বিন, ১৪২৯ ৷ ৮ অক্টোবর, ২০২২ ৷

তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে রাজধানীতে এক স্কুল শিক্ষক আটক


❏ বৃহস্পতিবার, জুন ২৩, ২০২২ ঢাকা

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক: রাজধানীর খিলগাঁওয়ের একটি স্কুলের তৃতীয় শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে ওই স্কুলের বাংলা শিক্ষক রোকনুজ্জামানকে গ্রেপ্তার করেছে রামপুরা থানা-পুলিশ।

বুধবার বিকেলে হাজীপাড়ার বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে শিশুটিকে যৌন নির্যাতন করে আসছিলেন ওই শিক্ষক।

এ বিষয়ে রামপুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘বেশ কয়েক মাস ধরে অভিযুক্ত শিক্ষক শিশুটিকে যৌন নির্যাতন করে আসছিল। কিন্তু ভয়ে শিশুটি কাউকে বলতে পারেনি। এ মাসের ৮ তারিখে তাকে সর্বশেষ নির্যাতন করেছে বলে জানতে পেরেছি। গতকাল মঙ্গলবার শিশুটি তার বাবা-মাকে বিষয়টি জানিয়েছে। অনেকবার নির্যাতনের শিকার হওয়ায় শিশুটি ট্রমাটাইজ হয়ে পড়েছিল। তাকে মনস্তত্ত্ববিদের কাছেও নেওয়া হয়েছিল।

রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করা হয়েছে। গতকাল বুধবার বিকেলে রামপুরার হাজীপাড়া থেকে অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার তাকে আদালতে পাঠানো হবে।’

রফিকুল ইসলাম জানান, শিশুটির বাবা-মা শিশুটিকে বাসায় পড়ানোর জন্য একজন শিক্ষক ঠিক করেছিলেন। কিন্তু ওই শিক্ষক না এসে তিনি রোকনুজ্জামানকে শিশুটির বাসায় পাঠান। শিশুটি রোকনুজ্জামানকে দেখে ভয়ে আঁতকে ওঠে এবং চিৎকার করে বলে, ‘তিনি আমাকে মেরে ফেলবেন। তার কাছে পড়ব না।’

শিশুটির বাবা সাংবাদিকদের বলেন, ‘পড়াতে আসার পরে বাচ্চাটা এমন ভয় পেয়েছে দেখে আমরা মনস্তত্ত্ববিদের সঙ্গে যোগাযোগ করি। এর আগে আমরা কিছুই জানতাম না। ওকে প্রচুর ভয়ভীতি দেখিয়েছে। এই ঘটনার পরে বাচ্চাটা একটু একটু বলা শুরু করেছে। আমরা তার সর্বোচ্চ বিচার চাই যেন আর কেউ কোনো শিশুর সঙ্গে এমন আচরণ করতে না পারে।’