🕓 সংবাদ শিরোনাম

যে সংবাদের শিরোনামে ‘বিব্রত’ সময়ের কণ্ঠস্বর ! * গিনেস রেকর্ডে ফের শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করলেন ঠাকুরগাঁওয়ের রাসেল * অনিশ্চয়তার বেড়াজাল পেরিয়ে অবশেষে ঢাকা আসছেন ‘ড্যান্স কুইন’ নোরা ফাতেহি * বাসের ধাক্কায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত * বড়দের সামনে সিগারেট খাওয়া নিয়ে দ্বন্দে কয়েকদফা সংঘর্ষ, আহত ১১ জন * বগুড়ায় ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে সাবেক সেনা সদস্য খুন * পণ্ড বিয়ের আয়োজন, বর গেলো শ্রীঘরে, অর্থদণ্ড হলো কনের বাবার * মসজিদে নামাজরত অবস্থায় যুবককে ছুরিকাঘাত, হামলাকারী গ্রেপ্তার * মারপিটের কারণে মাশা আমিনির মৃত্যু হয়নি: ইরানের ফরেনসিক বিভাগ * যশোরে ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী তিন সহপাঠীর মর্মান্তিক মৃত্যু *

  • আজ শনিবার, ২৩ আশ্বিন, ১৪২৯ ৷ ৮ অক্টোবর, ২০২২ ৷

ছাত্রীর শ্লীলতাহানিতে অভিযুক্ত শিক্ষকের পক্ষে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ-ভাঙচুর!


❏ শুক্রবার, জুলাই ২২, ২০২২ আলোচিত বাংলাদেশ

যশোর প্রতিনিধি: যশোরের মনিরামপুরে একটি কোচিং সেন্টারে সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীর শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় শনিবার ওই শিক্ষককে হেফাজতে নিয়েছে র‍্যাব। অভিযুক্ত ব্যক্তি ওই উপজেলার একটি স্কুলের গণিতের শিক্ষক। বিদ্যালয়ের অদূরে নিজের একটি কোচিং সেন্টার রয়েছে অভিযুক্ত শিক্ষকের ।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অভিযুক্ত শিক্ষককে এক মাসের জন্য সাময়িক বহিষ্কার করে। একই সঙ্গে কর্তৃপক্ষ ওই শিক্ষকের পরিচালিত কোচিং সেন্টার বন্ধ করে দেয়।

এদিকে শনিবার সকাল থেকে ঐ শিক্ষকের বহিষ্কার আদেশ প্রত্যাহার ও কোচিং সেন্টার চালুর দাবিতে পরীক্ষা বর্জন করে বিদ্যালয় চত্বরে বিক্ষোভ করে চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষার্থীরা। এই দিন তাঁদের ইংরেজি দ্বিতীয়পত্রের প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষা ছিল। পরীক্ষা না দিয়ে বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের জানালার গ্লাস ভাঙচুর করার অভিযোগ উঠেছে।

এদিকে ছাত্রীর শ্লীলতাহানি ও শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের কথা শুনে আজ দুপুরে র‍্যাব-৬ যশোরের সদস্যরা ওই বিদ্যালয়ে আসেন। পরে তাঁরা অভিযুক্ত শিক্ষক প্রদীপ বাইনকে হেফাজতে নেন। বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক ওই শিক্ষককে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর দাদা জানান, ওই শিক্ষক কোচিং সেন্টারে পড়তে যেত ওই শিক্ষার্থী। রোজায় বিদ্যালয় বন্ধের মধ্যে একদিন বিকেলে একা পেয়ে কোচিং সেন্টারের কক্ষের মধ্যে ছাত্রীর স্পর্শকাতর জায়গায় হাত দেন তিনি। কোচিং থেকে বাড়ি ফিরে ওই ছাত্রী তার মাকে ঘটনা খুলে বলে। পরে স্কুল কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানালে তাঁরা লিখিত অভিযোগ চান। লিখিত দেওয়ার পর ঘটনার তদন্ত হয়। তদন্তে সত্যতা পেয়ে অভিযুক্ত শিক্ষককে এক মাসের জন্য বিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়।

ভুক্তভোগী ছাত্রীর অভিভাবকেরা জানান, ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে এর আগেও এমন অনেক অভিযোগ উঠেছে। তখন টাকা ছিটিয়ে তিনি পার পেয়ে গেছেন। এবার টাকা ছিটাতে গিয়ে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি।

বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক বলেন, অভিযোগ পাওয়ার পর শিক্ষক ও পরিচালনা পর্ষদের তিনজনকে ঘটনা তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়। তদন্ত প্রতিবেদন উপস্থাপন করার পর গত বৃহস্পতিবার পরিচালনা পর্ষদের সভায় অভিযুক্ত শিক্ষককে এক মাসের জন্য সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। একই সঙ্গে ওই শিক্ষকের ব্যক্তিগতভাবে পরিচালিত কোচিং সেন্টার বন্ধ করে দেওয়া হয়। আজ শনিবার থেকে ওই শিক্ষকের শাস্তি কার্যকর হয়।

এদিকে বিক্ষোভরত এক শিক্ষার্থী জানায়, তাদের শিক্ষকের বিরুদ্ধে যা করা হচ্ছে সেটা অন্যায়। তারা এর প্রতিবাদে পরীক্ষা বর্জন করেছে। তাঁর বিরুদ্ধে অন্যায়ভাবে নেওয়া সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করতে হবে বলে দাবি জানায় তারা।

তবে এই বিষয়ে ভুক্তভোগী ছাত্রীর স্বজনদের অভিযোগ, ওই শিক্ষক এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ভুল বুঝিয়ে নিজের পক্ষে নিয়েছেন। নিজে বাঁচতে তিনি ছাত্রদের দিয়ে বিক্ষোভ ও ভাঙচুর করিয়েছেন।

ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বলেন, ওই শিক্ষকের বহিষ্কারের খবর পেয়ে শনিবার সকালে পরীক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে এসে বিক্ষোভ করে। তারা পরীক্ষা বর্জন করেছে।

তিনি আরও বলেন, ‘আমি পরীক্ষার্থীদের বোঝানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছি। পরে পরীক্ষা শুরুর সময় পার হয়ে যাওয়ায় পরীক্ষা বাতিল করে বিষয়টি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে জানিয়েছি।’

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বিকাশ চন্দ্র সরকার বলেন, ‘আগে থেকে ঘটনার কিছু আমাকে জানানো হয়নি। শনিবার শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা বর্জন করায় প্রধান শিক্ষক আমাকে ফোনে বিষয়টি জানিয়েছেন। আগামী পরীক্ষাগুলো যেন হয় সে ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

শিক্ষা কর্মকর্তা আরও বলেন, বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদ কোনো শিক্ষককে সাময়িক বহিষ্কার করতে পারেন। কিন্তু সময় উল্লেখ করে এক মাসের জন্য বহিষ্কার করার কোনো সুযোগ নেই।

ভুক্তভোগী ছাত্রীর বাবা বলেন, র‍্যাব অভিযুক্ত শিক্ষককে ধরে নিয়ে গেছে। তাঁদের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। আমি ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে থানায় মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে, নিজের বিরুদ্ধে অভিযোগ নিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক দাবি করে বলেন, ‘ওই ছাত্রী ভুল পথে যাচ্ছিল। তাকে শাসন করতে গিয়ে আমি ফেঁসে গেছি।’

মনিরামপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গাজী মাহবুবুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে এখনো কোনো অভিযোগ পাইনি। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।