🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ মঙ্গলবার, ১২ আশ্বিন, ১৪২৯ ৷ ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ৷

মৌলভীবাজারে অপরাধীদের কারাগারে না পাঠিয়ে ব্যতিক্রমী শর্তে সংশোধনের সুযোগ দিলো আদালত


❏ মঙ্গলবার, আগস্ট ৯, ২০২২ আলোচিত বাংলাদেশ

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : গাছের চারা রোপণসহ বিভিন্ন শর্তে কয়েক অপরাধীকে কারাগারে না পাঠিয়ে সংশোধনের সুযোগ দেওয়া হয়েছে। মৌলভীবাজার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট মুহম্মদ আলী আহসানের আদালত এ রায় দেন।

গতকাল সোমবার আদালত রায় দিয়ে উপস্থিতদের উদ্দেশে বলেন, লঘুদণ্ডে অনেকেই কারাগারে গিয়ে আসামির সংস্পর্শে ভবিষ্যতে গুরুতর অপরাধপ্রবণ হয়ে ওঠে। প্রবেশনের ফলে নিজেকে সংশোধন ও অপরাধ প্রবণতা থেকে বিরত থাকতে অভিযুক্তরা উৎসাহী হবে। দেশের কারাগারগুলোয় প্রায় প্রতিদিনই ধারণক্ষমতার চেয়ে অতিরিক্ত আসামি রাখা হচ্ছে। প্রবেশন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে লঘু শাস্তি প্রাপ্ত অপরাধীরা সমাজের মূল স্রোতোধারায় ফিরে আসবে ও কারাগারগুলো মাত্রাতিরিক্ত কয়েদি হতে ভারমুক্ত হবে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ১১ মার্চ জেলার জুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে মারামারির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় চন্দন কুমার দাস বাদী হয়ে কবির আহমদ ও মুহিবুর রহমানসহ অজ্ঞাতনামা ৭ থেকে ৮ জনকে আসামি করে মামলা করেন। মামলার সাক্ষ্য প্রমাণে দুজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় তাঁদের ছয় মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত।

অভিযুক্তদের প্রথমবার অপরাধ বিবেচনায় ও তাঁদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ গুরুতর না হওয়ায় এবং আদালতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে প্রায় ৭ বছর নিয়মিত হাজিরা দেওয়ার কারণে সংশোধনের সুযোগ দেওয়ার এই সিদ্ধান্তে উপনীত হন আদালত। তাই তাঁদের কারাগারে না পাঠিয়ে সংশোধনের সুযোগ দিতে ১০০টি গাছের চারা রোপণ, নতুন করে কোনো অপরাধে জড়িত না হওয়া, মাদক সেবন থেকে বিরত থাকা, শান্তি রক্ষা ও সদাচরণ করা, আদালতের নির্দেশমতো হাজির হওয়া ইত্যাদি শর্তে মুক্তি দেন আদালত। এই শর্তগুলো প্রতিপালনের জন্য সংশ্লিষ্ট উপজেলা প্রবেশন কর্মকর্তাকে পর্যবেক্ষণের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তিনি এ বিষয়ে আদালতকে অবহিত করবেন।

মৌলভীবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সাবেক পিপি এ এস এম আজাদুর রহমান বলেন, দণ্ডিতরা কারাগারে আবদ্ধ কক্ষে নয়, মুক্ত বাতাসে পরিবার পরিজনের সান্নিধ্য পাবেন। যা সংশোধনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

সরকারি কৌঁসুলি রাধাপদ দেব সজল বলেন, অধ্যাদেশটি অনেক পুরোনো হলেও প্রয়োগ ছিল না। এখন এর প্রয়োগের ফলে অনেক অপরাধী সংশোধনের সুযোগ পাবেন।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন