আওয়ামী লীগ প্রতিহিংসার রাজনীতি বিশ্বাস করেনা : তোফায়েল আহমেদ


❏ মঙ্গলবার, আগস্ট ৯, ২০২২ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ভোলা : আওয়ামী লীগ প্রায় ১৪ বছর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় রয়েছে। বিএনপির উপর কোন অত্যাচার করা হয় নাই। কিন্তু বিএনপি যখনই সুযোগ পায়, তখনই আমাদের উপর অত্যাচার করে। আওয়ামী লীগ প্রতিশোধ ও প্রতিহিংসার রাজনীতি বিশ^াস করেনা বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে জেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে জেলা আওয়ামী লীগের সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তোফায়েল আহমেদ এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, রাজনীতি হলো রাজার নীতি। রাজনীতি অর্থ হলো বড় মনের পরিচয় দেয়া। রাজনীতি মানে এই নয় প্রতিহিংশায় লিপ্ত হতে হবে। আমরা এই রাজনীতি বিশ্বাস করিনা।
যে কোন সময় সরকার বিদায় নেবে বিএনপি মহাসচিবের এমন বক্তব্যের জবাবে তোফায়েল বলেন, আওয়ামী লীগকে বিদায় করা এতো সহজ নয়। বার-বার আওয়ামী লীগ দ্বারা বিদায় নিয়েছে বিএনপি। এই বিএনপি ১৫ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন করেছিলো আর ৩১ মার্চ ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হয়েছে। আওয়ামী লীগ সেই দল।

তোফায়েল বলেন, গত ১৪ বছর ধরে বিএনপি মহাসচিব একই কথা বলে আসছেন, যে আওয়ামী লীগের পায়ের তলায় মাটি নাই। ফকরুল ইসলাম আলমগীর বক্তৃতা, সংবাদ সম্মেলন, প্রেস ব্রিফিং করে বিএনপিকে টিকিয়ে রেখেছে। এছাড়া তাদের আর কোন কাজ নাই।
সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে প্রবীণ এই নেতা আরো বলেন, ঐক্যবদ্ধ থাকলে কেউ দলের কোন ক্ষতি করতে পারবেনা। প্রত্যেক ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে শক্তিশালী আওয়ামী লীগ গড়ে তুলতে হবে। যাতে ডাক দিলে হাজার-হাজার মানুষ উপস্থিত হয়।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত সুন্দরভাবে দেশকে পরিচালিত করছেন। আজকে তিনি গ্রামকে শহরে রুপান্তর করেছেন। এই সরকারের আমলে মানুষ খুবই খুশি।

জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. দোস্ত মাহমুদের সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য দেন, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল ইসলাম, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি নাজিবুল্লাহ নাজু, সাধারণ সম্পাদক আলী নেওয়াজ পলাশ, জেলা শ্রমীক লীগ আহ্বায়ক মো. শাহে আলম, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান, সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি মো. আবু ছায়েম, ছাত্রলীগ সভাপতি মো. রায়হান আহমেদ প্রমুখ।