• আজ বুধবার, ২০ আশ্বিন, ১৪২৯ ৷ ৫ অক্টোবর, ২০২২ ৷

কলেজ ছাত্রী স্ত্রীর মাথায় হাতুড়িপেটা করলো মাদকাসক্ত স্বামী


❏ বুধবার, আগস্ট ১০, ২০২২ রংপুর

সাইফুল ইসলাম, মুকুল স্টাফ করেসপন্ডেন্ট (রংপুর): রংপুরের মিঠাপুকুর পায়রাবন্দ কলেজ থেকে ফেরার পথে এইচএসসি প্রথম বর্ষের এক ছাত্রীকে মাথায় হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করার অভিযোগ উঠেছে ওই ছাত্রীর স্বামীর বিরুদ্ধে।

এলাকাবাসী মুমুর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে মিঠাপুকুর উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পরে রংপুর মেডিকেলে ভর্তি করা হয়।বুধবার দুপুরে উপজেলার পায়রাবন্দ এলাকার ভাংনি চৌপাথি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্বজনরা জানিয়েছেন, অন্যান্য দিনের মতো কলেজ শেষে দুপুরের দিকে বাবার বাড়ি ফিরছিলেন পায়রাবন্দ কলেজের এইচএসসি প্রথম বর্ষের ছাত্রী আরমিনা বেগম। ভাংনি চৌপথির দক্ষিণ পাশে ছোট কার্লভাট পার হওয়ার সময় রাস্তার ধারের একটি কলা বাগানে আগে থেকে ওত পেতে থাকা ফেরদৌস আল হাসান ডিপজল তার পথরোধ করে একটি হাতুড়ি বের করে মাথায় উপর্যুপরি আঘাত করে। আরমিনা মাটিতে লুটিয়ে পড়লে ডিপজল পালিয়ে যায়।

এলাকাবাসী আহত আরজিনাকে উদ্ধার করে মিঠাপুকুর উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যায়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে রংপুর মেডিকেলে স্থানন্তর করেন কর্তৃব্যরত চিকিৎসকেরা।

আরমিনার বাবা আব্দুর রাজ্জাক অভিযোগ করে বলেন, এক বছর আগে জোর করে আরমিনাকে বিয়ে করে পায়রাবন্দের বিরহামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মুসলিম হোসেনের ছেলে ফেরদৌস আল হাসান ডিপজল। কিন্তু বিয়ের পর থেকে তার ওপর অমানবিক নির্যাতন শুরু করে। অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে কয়েক মাসের মধ্যে সে বাবার বাড়ি পাশের কাফরিখালের বুজরুক তাজপুরে ফিরে যায়।

বাপের বাড়ি ফিরে আরমিনা নতুন করে জীবন শুরু করতে আবারও লেখাপড়া শুরু করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মাদকাসক্ত ডিপজল এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ করেন আরমিনার পরিবারের সদস্যরা।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মিঠাপুকুর থানা পুলিশের তদন্ত ওসি জাকির হোসেন বলেন, ঘটনা জানার পর ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে তদন্ত করে এসেছে। মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে এবং আসামি গ্রফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।