🕓 সংবাদ শিরোনাম

মধুর সঙ্গে বিষ মিশিয়ে দুই সন্তানকে খাওয়ানোর পর আত্মহত্যার চেষ্টা মায়ের * অবৈধ কার্যকলাপের অভিযোগে গুলশানের স্পা সেন্টার থেকে ৯ জনকে গ্রেপ্তার * রোববার পর্যন্ত ইরানে হিজাববিরোধী বিক্ষোভে নিহতের সংখ্যা ৯২ * নিজের মেয়েকে হত্যা করে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে যেভাবে নাটক সাজায় বাবা! * কান্নাকাটি করায় বিরক্ত হয়ে ৩৫ দিনের শিশু কন্যাকে পুকুরে ফেলে দেন মা ! * তৃতীয়বারের মতো প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন, দুজনকেই শ্রীঘরে নিলো পুলিশ * বন্দরে মিশুক চালক কায়েস’র লাশ উদ্ধারের ১২ ঘন্টার মধ্যে গ্রেপ্তার ৩ * মঙ্গলবার দেশে ফিরবেন প্রধানমন্ত্রী * ইবির পরিবহন নিয়ে যত অভিযোগ * ফরিদপুরে আলোচিত দুই হাজার কোটি টাকা পাচার মামলায় ছাত্রলীগ নেতা কারাগারে *

  • আজ সোমবার, ১৮ আশ্বিন, ১৪২৯ ৷ ৩ অক্টোবর, ২০২২ ৷

‘অভাবের তাড়নায় সন্তান বিক্রির চেষ্টাকারী’ সেই মায়ের পাশে দাঁড়ালেন স্থানীয় প্রশাসন


❏ শনিবার, আগস্ট ১৩, ২০২২ আলোচিত বাংলাদেশ

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি: অভাবের তাড়নায় স্থানীয় বাজারে নিজের সন্তান বিক্রি করতে আসা সেই মায়ের পাশে দাড়িয়েছেন স্থানীয় প্রশাসন ও জনগণ। এতে করে স্বস্তির হাসি ফুটেছে আলোচিত সেই মায়ের মুখে।

এর আগে প্রাণপ্রিয় ৬ বছরের সন্তানকে ‘বিক্রির জন্য’ বাজারে তুলেছিলেন এক মা! দাম হাঁকিয়েছিলেন ১২ হাজার টাকা। পরে আওয়ামী লীগ নেতা ও সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য বাসন্তী চাকমা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের হস্তক্ষেপে সন্তান নিয়ে ঘরে ফেরেন ওই নারী।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন স্বামীর সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ছিলো। ছোট ছেলেকে নিয়ে পৈত্রিক ভিটায় গোয়াল ঘরের পাশে থাকতেন মা। নিজেও মৃগী রোগে আক্রান্ত। অভাব অনটনের সংসারে যেখানে ছেলের মুখে দু-মুঠো ভাত তুলে দেয়া দুষ্কর, সেখানে নিজের ওষুধ কিনে খাওয়া তার জন্য আরও অসম্ভব। এ অবস্থায় সন্তান মানুষ করা কঠিন ছিলো এই মায়ের জন্য ।
গত বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) সন্ধ্যা থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি পোস্ট ভাইরাল হলে আলোড়ন তৈরি হয় পাহাড়ি শহর খাগড়াছড়ি জুড়ে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘটনা ভাইরাল হওয়ার পর এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার সকালে খাগড়াছড়ি বাজারে আসার কথা বলে ছেলেকে নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন ওই নারী। বাজারে এসে সবজি বিক্রি করতে আসা কয়েকজন নারীকে ছেলে বিক্রির প্রস্তাব দেন। তারা একজনকে বলার পর ছেলেকে কিনতে ৫ হাজার টাকা প্রস্তাব দেন। কিন্তু ওই মা ১২ হাজার টাকার কমে বিক্রি করবেন না।

এ নিয়ে দর কষাকষির একপর্যায়ে জেলা সদরের কমলছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুনীল জীবন চাকমা বিষয়টি জানতে পারেন। পরবর্তীতে তার হস্তক্ষেপে মা ও ছেলেকে উদ্ধার করে পরিবারের জিম্মায় দেয়া হয়।

ওই নারীর ভাই জানান, দিদি মানসিকভাবে কিছুটা ভারসাম্যহীন। মৃগী রোগী। মৃগের ভাব উঠলে এলোমেলো কথা ও কাজ করেন। গত বৃহস্পতিবার খাগড়াছড়ি বাজার থেকে এক চেয়ারম্যান ফোন করে ছেলেকে বিক্রি চেষ্টার কথা বলার পর বাবা গিয়ে দিদি ও ভাগিনাকে বাসায় নিয়ে আসেন। অভাবের কারণে বোনের চিকিৎসা করাতে পারেন না বলেও আক্ষেপ করেন তিনি।

এ বিষয়ে সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য বাসন্তী চাকমা বলেন, পরিবারটির জন্য ৬ মাসের খাদ্যশস্য ও নগদ কিছু টাকা দেয়া হয়েছে। এছাড়া সদর ইউএনওকে বলে একটি সরকারি ঘর দেয়ারও আশ্বাস দেন তিনি।

শুক্রবার (১২ আগস্ট) খাগড়াছড়ি সদরের ভাইবোন ছড়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের পাক্কুজ্যছড়ি গ্রামে গিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, প্রতিবেশী ও স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ছেলে বিক্রি করতে মায়ের হাটে তুলে দর দেয়ার ঘটনাটি সত্য। অভাব-অনটনের সংসারে ছেলেকে ও নিজে ঠিক মত খাওয়া, ভরণপোষণ দিতে না পারায় এমন সিদ্ধান্ত নেন ওই মা।

এদিকে ব্যক্তিগতভাবে পরিবারটির পাশে দাঁড়ানোর পাশাপাশি ওই ছেলেকে শিশু সদনে থাকার ব্যবস্থা করার আশ্বাস দেন ভাইবোন ছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুজন চাকমা।

এ বিষয়ে খাগড়াছড়ির সিভিল সার্জন ডা. মো. ছাবের জানান, মৃগী রোগীদের মানসিক সমস্যা হতে পারে। বর্তমান সময়ে চিকিৎসা নিয়ে তা অনেকটা সুস্থ হওয়া যায়। জেলা সদর হাসপাতালে ভালো চিকিৎসক ও বিনামূল্যে চিকিৎসা হয়। পরিবার যদি চায় স্বাস্থ্য বিভাগ সহযোগিতা দেবে।